টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গাসহ ৮ জনের প্রাণহানি - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-২৭ ১৪:২৫:৫৮

টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গাসহ ৮ জনের প্রাণহানি

টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গাসহ ৮ জনের প্রাণহানি
Spread the love

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজারের উখিয়ার শরণার্থী শিবিরসহ টেকনাফ ও মহেশখালীতে পাহাড় ধস, পানিতে ভেসে গিয়ে আর মাটির দেয়াল চাপায় ৮ জন নিহত হয়েছে। তাদের মধ্যে ৫ জন শিশু, ২ জন নারী ও ১ জন বৃদ্ধ রয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সকালে ও দুপুরে উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের ১০ নম্বর ও ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির, টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মনিরঘোনা এলাকা এবং মহেশখালী উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের উত্তর সিপাহীর পাড়ায় পৃথক এ ঘটনা ঘটেছে। এতে উখিয়ার রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে ৪ শিশুসহ ৬ জন, টেকনাফে একজন বৃদ্ধের এবং মহেশখালীতে এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার সামছু-দৌজা নয়ন জানিয়েছেন, মঙ্গলবার দুপুরে ভারী বৃষ্টিপাতে পাহাড় ধসে বসত ঘরে মাটি চাপায় উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের ১০ নম্বর শরণার্থী শিবিরে তিন শিশুসহ ৫ জন এবং ১৮ নম্বর শরণার্থী শিবিরে খালে পানির স্রোতে ভেসে গিয়ে ১ রোহিঙ্গা শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এতে পাহাড় ধসের ঘটনায় ২ জন আহত হয়েছে।

পাহাড় ধসে নিহতরা হল, উখিয়ার ১০ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের জি-৩৭ ব্লকের বাসিন্দা শাহ আলমের স্ত্রী দিল বাহার (৪২) ও ছেলে শফিউল আলম (৯) এবং একই ক্যাম্পের জি-৩৮ ব্লকের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইউসুফের স্ত্রী দিল বাহার (২৫), মেয়ে আয়েশা সিদ্দিকা (১) ও ছেলে আব্দুর রহমান ( আড়াই বছর )। এতে আহতরা হল, উখিয়ার ১০ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের জি-৩৭ ব্লকের বাসিন্দা শাহ আলমের ছেলে জানে আলম (৮) ও মেয়ে নুর ফাতেমা (১০)।

এছাড়া তবে উখিয়ার ১৮ নম্বর শরণার্থী শিবিরে খালে পানির স্রোতে ভেসে গিয়ে মারা যাওয়া রোহিঙ্গার শিশুর পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানান অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার।

সামছু-দৌজা জানান, দুপুরে উখিয়ার ১০ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড়ের ঢালের নিচের ২/৩টি বসতির উপর মাটি ধসে পড়ে। এতে দুইটি পরিবারের ৩ শিশুসহ ৫ জন ঘটনাস্থলে মারা যায় এবং আহত হয় ২ জন।

পরে খবর পেয়ে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ানসহ স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মাটি চাপা অবস্থায় ৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করে। এসময় আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে ভর্তি করেও জানান অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে উখিয়ার ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে খালে সৃষ্ট পাহাড়ী ঢলের পানিতে খেলতে নেমে ভেসে গিয়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার। তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরে কক্সবাজারের বিভিন্ন উপজেলায় থেমে থেমে ভারি বর্ষণ অব্যাহত রয়েছে। এতে উখিয়ার বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে খাল ও ছড়ায় ব্যাপক পানির ঢলের সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে উখিয়ার ১৮ নম্বর শরণার্থী শিবির সংলগ্ন খালে পাহাড়ী ঢলের পানিতে খেলতে নামে কয়েকজন রোহিঙ্গা শিশু। এসময় পানির স্রোতের টানে ভেসে যায় এক শিশু। পরে সেখান থেকে কিছু দূর এলাকায় শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। তবে এখনো পর্যন্ত শিশুটির নাম ও পরিচয় নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি বলে জানান অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার।

অন্যদিকে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টায় টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মনিরঘোনা এলাকায় পাহাড় ধসে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহামুদুল হাসান। নিহত ওই এলাকার আলী আহমদের ছেলে রকিম আলী (৫৫)।

স্থানীয়দের বরাতে এসআই মাহামুদুল বলেন, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টায় টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মনিরঘোনায় এলাকায় পাহাড়ী খাদের নিচে বাড়ীর উঠানে বসে পরিবারের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলছিল। এসময় আকস্মিক পাহাড় ধসের ঘটনায় মাটি চাপা পড়ে ২ জন। এসময় পরিবারের স্বজনরা একজনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করতে সক্ষম হন। পরে মাটি সরিয়ে রকিম আলীকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। গত কয়েকদিন ধরে অব্যাহত বৃষ্টিপাতের কারণে মঙ্গলবার পাহাড় ধসের এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানান এসআই মাহামুদুল।

এছাড়া মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় মহেলখালী উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের উত্তর সিপাহী পাড়ায় ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে বাড়ীর মাটির দেয়াল ধসে পড়ে এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানান মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুর রহমান। নিহত কিশোরী ওই এলাকার আনসার হোসেনের মেয়ে মোর্শেদা বেগম (১৭)।

ইউএনও মাহফুজুর বলেন, মঙ্গলবার সকালে মহেশখালীর উত্তর সিপাহী পাড়ায় অব্যাহত ভারি বর্ষণের কারণে একটি বাড়ীতে মাটির দেয়াল ধসে পড়ে। এতে বাড়ীতে থাকা ২/৩ জন দেয়াল চাপা পড়ে। এসময় তাৎক্ষণিক মাটির দেয়াল সরিয়ে অন্যদের জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও মোর্শেদা বেগমকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলেও জানান ইউএনও মাহফুজুর রহমান।

এদিকে কক্সবাজার আবহাওয়া দফতরের সহকারী আবহাওয়াবিদ মো. আব্দুর রহমান জানান, বঙ্গোপসাগরে বায়ুচাপের কারণে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। কক্সবাজার উপকূলে যে সমস্ত নৌযান চলাচল করে সেসব নৌযানকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদে থেকে মাছ শিকারের কথা বলা হচ্ছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজারে ১১৭ মিমি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টাও মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকতে পারে।

আরো সংবাদ