টেকনাফে অপহৃত শিশু ২২ দিন পর উদ্ধার, গ্রেফতার ১৭ - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০৩-৩১ ১২:০২:১৩

টেকনাফে অপহৃত শিশু ২২ দিন পর উদ্ধার, গ্রেফতার ১৭

টেকনাফে অপহৃত শিশু ২২ দিন পর উদ্ধার, গ্রেফতার ১৭

জসিম সিদ্দিকী : টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পূর্ব পানখালী এলাকা থেকে অপহৃত শিশুকে ২২ দিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার রাতে কুমিল্লার লালমাই এলাকার একটি বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় ৪ লাখ টাকা সহ অপহরণের সাথে জড়িত পাঁচজন গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার হওয়া শিশু সোয়াদ বিন আব্দুল্লাহ স্থানীয় আবু হুরায়রা মাদরাসার প্রথম শ্রেণির ছাত্র।

আজ রোববার দুপুরে টেকনাফ থানার হলরুমে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান পুলিশের উখিয়া টেকনাফ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল।

প্রেস ব্রিফিংয়ে মোহাম্মদ রাসেল জানান, গত ৯ মার্চ টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের পুর্ব পানখালী এলাকায় মাদরাসা থেকে বাসায় যাওয়ার পথে শিশু সোয়াদকে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা। এ বিষয়ে শিশুটির মা নুর জাহান বেগম টেকনাফ থানায় অভিযোগ দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্ত শুরু করে এবং এই অপহরণে জড়িত সন্দেহে টেকনাফের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে প্রথমে ১২ জনকে আটক করে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে শিশু সোয়াদকে অপহরণ করে প্রথমে মহেশখালীর গভীর পাহাড়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে অপহরণকারীরা শিশুর পরিবারের কাছে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। শিশুর পরিবার কয়েক কিস্তিতে ৮ লাখ টাকা মুক্তিপণ দেয়। কিন্তু শিশুকে ফেরত না দিয়ে অপহরণকারীরা তাকে কুমিল্লার লালমাই এলাকায় নিয়ে যায়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরো জানান, জিজ্ঞাসাবাদ ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় টেকনাফ থানার পুলিশের একটি টিম গতকাল রাতে কুমিল্লার লালমাই এলাকা থেকে শিশু সোয়াদকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। এ সময় মুক্তিপণের ৪ লাখ টাকা, অপহরণে ব্যবহৃত সিএনজি ও ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি জানান, শিশু অপহরণের মাস্টারমাইন্ড আনোয়ার সাদেকসহ গতকাল ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপহরণ চক্রে পুরনো এবং সাম্প্রতিককালে আসা রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী চক্র জড়িত আছে।

এ ঘটনায় কয়েক দফায় গ্রেপ্তার ১৭ জন হলেন, টেকনাফের মোচনী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নাগু ডাকাতের ছেলে আনোয়ার সাদেক (২১), তার পিতা মৃত আবদুর শুক্কুরের ছেলে নাগু ডাকাত (৫৫), মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী লায়লা বেগম (৫৫), মোহাম্মদ খানের স্ত্রী উম্মে সালমা (২৪), নাগু ডাকাতের ভাই মোহাম্মদ হাশেম (২৭), সৈয়দুল হকের স্ত্রী খাতিজাতুল খোবরা (৩৫), নাগু ডাকাতের স্ত্রী আয়েশা বেগম (৩২), সাদেকের স্ত্রী হোসনে আরা (২০), নাগু ডাকাতের অপর ছেলে রনি (১২), কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের হাজির পাড়ায় বসবাসকারি পুরাতন রোহিঙ্গা জাফর আলমের ছেলে নাসির আলম (২৮), মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের মাইস্যাঘোনা এলাকার মনছুর আলমের ছেলে সালামত উল্লাহ প্রকাশ সোনাইয়া (৪৫), একই ইউনিয়নের নয়াপাড়া এলাকার মৃত কালামিয়ার ছেলে জহির আহমেদ (৬৫), শামসুল আলমের ছেলে হাসমুল করিম তোহা (২০), সামিরাঘোনা এলাকার ফরিদুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ আতিক উল্লাহ (১৯), মৃত রহমত উল্লাহ ছেলে ফরিদুল আলম খান (৫২), সালামত উল্লাহর ছেলে মো. আমির হোসেন (২৪), শামসুল আলমের ছেলে তৌহিদুল ইসলাম তোহা (৩০)।ওসি বলেন,  গ্রেপ্তার আসামিদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

২২ দিন পর শিশুকে ফেরত পেয়ে অপহৃত শিশুর মা নুরজাহান বেগম সন্তোষ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, অপহরণ যে কোনভাবেই বন্ধ হওয়া জরুরি। তিনি পুলিশকে ধন্যবাদ জানান।

পুলিশের তথ্য বলছে, গত এক বছরে টেকনাফের বিভিন্ন এলাকা থেকে ১১৭ জনকে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৫৯ জন স্থানীয় বাসিন্দা, বাকিরা রোহিঙ্গা নাগরিক। অপহরণের পরিবারের তথ্য বলছে অপহরণের শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে অন্তত ৫১ জন মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়া পেয়েছে।

আরো সংবাদ