টেকনাফে জনপ্রতিনিধি হতে চায় মাদক কারবারিরা - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৯-১২ ১৪:১৬:৪৬

টেকনাফে জনপ্রতিনিধি হতে চায় মাদক কারবারিরা

টেকনাফে জনপ্রতিনিধি হতে চায় মাদক কারবারিরা
Spread the love

নিউজ ডেস্ক : মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ইয়াবা ঢোকার প্রধান রুট হিসেবে কক্সবাজারের টেকনাফের আলাদা পরিচিতি রয়েছে। তাই ‘ইয়াবা-রাজধানী’ হিসেবেও খ্যাত টেকনাফ । এই এলাকা মাদকমুক্ত রাখতে পারলে দেশের অন্যান্য জায়গায়ও এর প্রভাব পড়ে। তবে সেই ‘ইয়াবা-স্বর্গ’ টেকনাফে জনপ্রতিনিধি হতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন তালিকাভুক্ত ও আত্মসমর্পণকারী মাদক ব্যবসায়ীরা। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ ও মেয়র নির্বাচন ঘিরে রাজনীতির মাঠ গরম করছেন তারা। সমকালের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে টেকনাফের আত্মসমর্পণকারী মাদক কারবারি ও পলাতকদের নানা অজানা কাহিনি। সব মিলিয়ে মাদক সংশ্নিষ্ট ৬০ জন টেকনাফের নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। এ ছাড়া যারা দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকে এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন।

মাদক মামলায় জামিনে বেরিয়ে এলাকায় প্রার্থী হিসেবে পোস্টার-ব্যানারও সেঁটেছেন কেউ কেউ। মাদকের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট ব্যক্তিরা যেভাবে টেকনাফের মতো জায়গায় জনপ্রতিনিধি হওয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছেন, তাতে অনেকেই মনে করছেন, মাদক নির্মূলের যে প্রচেষ্টা চলছে, তা ধাক্কা খেতে পারে। অনেকে আবার ‘আত্মসমর্পণ’কে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছেন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও সৎ রাজনীতিকদের অনেকের বিশ্বাস ছিল, মাদক-সংশ্নিষ্ট কেউ আর জনপ্রতিনিধি হওয়ার সাহস দেখাবে না। কিন্তু মাঠের বাস্তব চিত্র পুরোপুরি ভিন্ন। মাদক-সংশ্নিষ্টরাই স্থানীয় নির্বাচনের মাঠ গরম করে রেখেছেন। মাদক সংশ্নিষ্টদের প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ দিতে এরই মধ্যে টেকনাফের ইউএনওর কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে চিটাগাং ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব টেকনাফ (চুসাট)।

আবদুর রহমান বদির স্ত্রী শাহিন আক্তার বর্তমানে টেকনাফ-উখিয়া আসনের এমপি। তিনি সমকালকে বলেন, ‘কে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাবে, এটা তো আমি ঠিক করি না। তবে আমার দায়িত্ব হলো নৌকার প্রার্থীর বিজয়ে কাজ করা।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর সমকালকে বলেন, ‘টেকনাফে নির্বাচনে যেভাবে মাদকের সঙ্গে জড়িতরা নেমেছে, তা রীতিমতো বিস্ময়কর। এটা হতাশাজনক চিত্র। নীতিনির্ধারকরা দৃষ্টি না দিলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে। মাদক নির্মূলের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবে।’

নুরুল বশর আরও বলেন, ‘মাদকের সঙ্গে যারা সংশ্নিষ্ট, তাদের পেশি, অর্থ ও অস্ত্রের শক্তি আছে। ভালো ও সৎ প্রার্থীরা কোণঠাসা। আত্মসমর্পণ করে জামিনে এসে অনেকে নির্বাচনে নেমে পড়েছে। আবার অনেকে কৌশলে তালিকার বাইরে থাকলেও প্রকৃত অর্থে মাদক কারবারি। এমন লোকজনও জনপ্রতিনিধি হতে এলাকা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।’

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান বলেন, মাদক-সংশ্নিষ্ট থেকেও যারা নির্বাচনী মাঠে নেমেছে, তাদের ব্যাপারে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যে কোনো মূল্যে আমরা মাদক নির্মূল করব। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।
জানা গেছে, নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন সাবেক সাংসদ আবদুর রহমান বদির সৎভাই আবদুল শুক্কুর। টেকনাফ পৌরসভার মেয়র পদে প্রার্থী তিনি। এরই মধ্যে এলাকাবাসীর দোয়া চেয়ে শুক্কুরের পোস্টারে এলাকা ছেয়ে গেছে। ২০১৯ সালে মাদকবিরোধী অভিযান চলাকালে যে ১০২ মাদক কারবারি আত্মসমর্পণ করেছেন, তাদের মধ্যে শুক্কুর ছিলেন। আগে কখনও জনপ্রতিনিধি হওয়ার দৌড়ে না থাকলেও এবার জামিনে বেরিয়ে জোরেশোরে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন শুক্কুর।

টেকনাফে নির্বাচনী মাঠে ফের নেমেছেন তালিকাভুক্ত আরেক মাদক কারবারি মোহাম্মদ শাহজাহান। ২০১৯ সালের ২৫ জুলাই যশোরের বেনাপোল সীমান্ত চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে পাড়ি দেওয়ার সময় ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন শাহজাহান। এরপর লেঙ্গুরবিল এলাকায় শাহজাহানের বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫০ হাজার ইয়াবা, চারটি দেশীয় বন্দুক ও ২৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে। তবে মাদক কারবারি হিসেবে তিনি আত্মসমর্পণ করেননি। মাদক মামলায় জামিনে বের হওয়ার পর এবারও নির্বাচনের দৌড়ে রয়েছেন টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান। শুধু তাই নয়, জামিন পেয়ে দুইশর বেশি গাড়িবহর নিয়ে টেকনাফে ঢোকেন তিনি। একই ইউনিয়নের শাহজাহানের আরেক ভাই দিদার মিয়া ‘ডামি’ প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। কৌশল হলো কোনো কারণে ভাইয়ের মনোনয়ন বাতিল হলে দিদার মূল প্রার্থী হয়ে যাবেন। তার বাবা জাফর আহমদও একজন তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি। তিনি এলাকায় সাবেক এমপি বদির ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত। এ ছাড়া জাফরের আরেক ভাই মাদক কারবারি হিসেবে পরিচিত মুস্তাক আহমেদও দীর্ঘদিন ধরে রহস্যজনক নিখোঁজ রয়েছেন। তিনি মারা গেছেন নাকি জীবিত আছেন, এটা পরিবারের কাছেও স্পষ্ট নয়। এ ছাড়া টেকনাফ সদর ইউনিয়ন থেকে ইউপি সদস্য হিসেবে মাঠে রয়েছেন মাদকের তালিকায় নাম থাকা হামজালাল। নির্বাচনী দৌড়ে আছেন জিয়াউর রহমান।

এ ছাড়া টেকনাফে নির্বাচনের মাঠ গরম করছেন মনিরুজ্জামান। তিনি ‘হুন্ডি সম্রাট’ টেকনাফের বাসিন্দা জাফর আহমেদ ওরফে টিটি জাফরের আপন ভাই। টেকনাফের ৮ নম্বর ওয়ার্ড থেকে ফের কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে চান। তিনি আত্মসমর্পণও করেননি। ওই ওয়ার্ডে প্রার্থী হতে কাজ শুরু করেছেন মো. জুবায়ের। তিনি কারবারি তালিকায় থেকে আত্মসমর্পণ করেছিলেন। প্রার্থীর তালিকায় আরও রয়েছেন সাবেক এমপি বদির আরেক ভাই মৌলভি মুজিবুর রহমান। তিনি আত্মসমর্পণ করেননি। দীর্ঘদিন পলাতক জীবন কাটিয়ে এখন নির্বাচন ঘিরে এলাকায় প্রকাশ্যে মুজিবুর। তিনি টেকনাফের ৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী হতে আগ্রহী। মাদকের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট থাকার পরও এখনও জনপ্রতিনিধি হওয়ার দৌড়ে আছেন টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য এনামুল হক, সাবরাং ইউনিয়নের ইউপি সদস্য রেজাউল করিম, হ্নীলার ইউপি সদস্য নুরুল হুদা ও জামাল হোসেন। টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর প্রার্থী হতে চান আত্মসমর্পণকারী নুরুল বশর নুরশাদ।

মাদকের তালিকায় শীর্ষে থাকা আবদুর রহমান বদিকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। কক্সবাজার-৪ আসন থেকে বদির স্ত্রীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। তবে এখন স্থানীয় নির্বাচনে যারা মাঠে আছেন তাদের অনেকে বদির আত্মীয় ও ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

১২ কারবারির ব্যাংক হিসাব ফাঁকা: মাদক কারবারে ১২ জন প্রভাবশালীর ব্যাংক হিসাব নম্বরে তেমন কোনো অর্থ নেই। তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলার তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। এই কারবারিরা হলেন- টেকনাফের বাসিন্দা সাবেক এমপি বদির সৎভাই আবদুল শুক্কুর ও তার আপন বড় ভাই আবদুল আমিন, বদির আরেক সৎভাই শফিকুল ইসলাম ও ফয়সাল রহমান, হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য নুরুল হুদা ও তার ভাই নুরুল কবীর, টেকনাফ সদরের ইউপি সদস্য এনামুল হক, শীর্ষ ইয়াবা কারবারি মো. একরাম ও তার ভাই আব্দুর রহমান, হ্নীলার ইউপি সদস্য জামাল হোসেন ও তার ছেলে শাহ আজম ও মোহাম্মদ আলী। শুক্কুর ও আমিনের বিভিন্ন ব্যাংকে আটটি হিসাব নম্বর রয়েছে। সেগুলোতে উল্লেখযোগ্য কোনো অর্থ নেই। তাই এসব হিসাব নম্বর স্থগিত করার কোনো আবেদন সিআইডির পক্ষ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংককে করা হয়নি। আরেক আসামি নুরুল হুদার দুটি হিসাব নম্বরের একটিতে বর্তমানে মাত্র আট হাজার ৪০৫ টাকা ও আরেকটিতে তিন হাজার ২৪১ টাকা রয়েছে। এনামুলের একটি হিসাব নম্বরে সাত হাজার ৩৫২ টাকা আছে। শীর্ষ এই কারবারিরা এত চতুর যে, নিজেদের নামে ব্যাংক হিসাব নম্বরে বেশি অর্থ জমা রাখেননি। যদিও এলাকায় তারা বিত্তশালী হিসেবে পরিচিত। এই ১২ জন প্রত্যেকে নামে-বেনামে জমি, ফ্ল্যাট ও গাড়ি-বাড়ির মালিক।

নতুন রুট :টেকনাফের পুরোনো রুটের পাশাপাশি ইয়াবা কারবারিরা নতুন নতুন রুট ব্যবহার করছে। এর মধ্যে রয়েছে মহেশখালী, চকরিয়া, নাইক্ষ্যংছড়ি, বান্দরবান, রাঙামাটি। এ ছাড়া সিলেট সীমান্ত দিয়েও মাদক ঢুকছে। এ ছাড়া কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভের উপকূল এলাকা হয়ে লাখ লাখ ইয়াবা প্রবেশ করছে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে। সূত্র সমকাল অনলাইন।

আরো সংবাদ