টেকনাফে পাহাড় কেটে ফের রোহিঙ্গা বসতি তৈরি! - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-০৮ ১০:১৫:৩৮

টেকনাফে পাহাড় কেটে ফের রোহিঙ্গা বসতি তৈরি!

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের টেকনাফে আবারও পাহাড় কেটে গাছপালা নিধন করে রোহিঙ্গা বসতি তৈরী করা হচ্ছে। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তবে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

রোহিঙ্গাদের জন্য নতুন করে আর কোনো সরকারী বনভূমি দেয়া হবে না বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিলেও কক্সবাজারের টেকনাফে এস্কেভেটর দিয়ে পাহাড় কেটে ক্যাম্প তৈরী করা হচ্ছে। এনিয়ে স্থানীয়রা প্রতিবাদ শুরু করেছে। কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের প্রায় ১০ হাজার একর বনভ‚মি ব্যবহার করছে আশ্রিত এ রোহিঙ্গারা।

জানাগেছে, টেকনাফ উপজেলার লেদা এলাকায় বনবিভাগের বহু গাছপালা কেটে ও পাহাড় নিধন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরী করা হচ্ছে। তবে কক্সবাজার বনবিভাগ জানিয়েছে ক্যাম্প কর্তৃপক্ষ এব্যাপারে তাদের সাথে কোনো কথা বলেননি। আশ্রিত রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত পাঠাতে শেখ হাসিনা সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ অবস্থায় টেকনাফে আবারও পাহাড় কেটে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরি করছে ক্যাম্প কর্তৃপক্ষ। এতে স্থানীয় এলাকাবাসি ক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিবাদ শুরু করেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, টেকনাফের লেদাতে নতুন করে রোহিঙ্গা ক্যাম্প তৈরি করতে গিয়ে বিশাল বনভূমি উজাড় করা হচ্ছে। নিষেধাজ্ঞা সত্তে¡ও লেদার সরকারি বনভূমির বিশাল এলাকাজুড়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প গড়ে তোলা হচ্ছে। এতে অস্থায়ী ঘর নির্মাণের কারণে বিশাল আকৃতির বুলডোজার দিয়ে ওই এলাকার অনেক গাছপালা কেটে ফেলা হচ্ছে।

এ নিয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম নজরুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া এ জনগোষ্ঠী জেলার বিভিন্ন বনাঞ্চলের ৮ হাজার ১ দশমিক ২ একর বন উজাড় করে বসতি স্থাপন করেছে, ব্যবহার করেছে জ্বালানি হিসেবেও। টাকার অংকে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকা বেশি হবে গেছে। রোহিঙ্গা আগমনে পর থেকে কক্সবাজারের বনাঞ্চলের ১১ ভাগ ধ্বংস হয়ে গেছে। সেখানে এক দিনে যেমন মানুষ বেড়েছে তার সঙ্গে তাদের নিঃসৃত কার্বন ডাই-অক্সাইডের পরিমাণও বেড়েছে।

অপরদিকে গাছ কাটার মাধ্যমে কার্বন শোষণের প্রাকৃতিক মেশিন বন্ধ হয়ে গেলো। দুই দিক থেকে ক্ষতি হয়েছে। এখন দ্বিগুণ হারে সেখানে কার্বন জমছে। এতোকিছুর পরও যখন পাহাড় প্রকৃতির ধ্বংসকারীদের আইনের আওতায় আনা হয় না! তিনি আরও জানান, যখন দেখি কিছু এনজিও সংস্থার পৃষ্ঠপোষকতায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প বাড়াতে পাহাড় কাটা অব্যাহত রেখেছে। এসব দেখে দুঃখ করা ছাড়া কিছু বলার নেই।

এদিকে প্রতিনিয়ত অশান্ত হয়ে উঠেছে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো। ক্যাম্পে মাদক বিক্রি এবং মাদকের টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়েও ঘটেছে মারামারি খুনাখুনি। তাদের এসব কর্মকাÐ প্রতিরোধ, নজরদারি এবং রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত পাঠাতে ক‚টনৈতিক তৎপরতাসহ নানা উদ্যোগ হাতে নিয়ে সরকার ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নেয় সরকার। ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধাপে প্রায় ১৪ হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উপরন্তু রোহিঙ্গাদের কারণে প্রতিনিয়ত স্থানীয়ভাবে নানা সঙ্কট ও সমস্যা জটিল আকার ধারণ করছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখের বেশি।

২০১৭ সালের আগষ্ট থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দমন নিপীড়নের শিকার হয়ে প্রাণের ভয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা প্রায় সাড়ে ১০ লাখ রোহিঙ্গাদের গেল সাড়ে ৩ বছর ধরে আশ্রয় দিয়ে এক অনন্য উদারণ সৃষ্টি করেছে বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক সমাজের কাছে বাংলাদেশের এ মানবিকতা ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। ঘনবসতিপূর্ণ দেশ বাংলাদেশ সাড়ে ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়ে যে উদারতার পরিচয় দিয়েছে সেটা বাংলাদেশের জন্য বিশেষ করে কক্সবাজারবাসীদের জন্য অনেক গর্বের বিষয়।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশের এই উদারতার ভূয়সী প্রশংসা হলেও যে দেশের কারনে এই সংকটের সৃষ্টি হয়েছে সেই মিয়ানমারের উপর গেল সাড়ে ৩ বছরে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে তেমন একটা চাপ সৃষ্টি হয়নি।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে বছরে গড়ে জন্ম নিচ্ছে ৩০ হাজারেরও বেশি শিশু। বাংলাদেশের প্রায় ১০ হাজার একর বনভ‚মি ব্যবহার করছে আশ্রিত এ রোহিঙ্গারা।

আরো সংবাদ