হ্নীলায় ৬ বছর ধরে মহিলা মাদ্রাসার নামে বসতভিটা দখল! - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০৯-১৭ ১২:৪৭:৪৯

হ্নীলায় ৬ বছর ধরে মহিলা মাদ্রাসার নামে বসতভিটা দখল!

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের টেকনাফে মাদ্রাসার নামে বসতভিটা দখলের অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে ভূক্তভোগি পরিবার বিভিন্ন দপ্তরে গেল ৬ বছর ধরে অভিযোগ দিয়েও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় কক্সবাজার প্রেসক্লাবে ওই দখলবাজ চক্রের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেন ওই পরিবারটি।

পরিবারের পক্ষে আনিসুল মোস্তফা লিখিত সংবাদে উল্লেখ করেন টেকনাফের হ্নীলা পশ্চিম সিকদারপাড়া উম্মে সালমা মাদ্রাসার পরিচালক এনামুল হক ও সভাপতি সাবেক টেকনাফ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন কর্তৃক মাদ্রাসার নাম ভাঙ্গিয়ে ভূমিদস্যূতায় লিপ্ত ও ভূক্তভোগিদের বসতভিটার চলাচলের রাস্তায় নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে জমি মালিককে অর্ধযুগ ধরে হয়রানী করে আসছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগকারী আনিসুল মোস্তফা একই এলাকার বাসিন্দা। উক্ত বসতভিটা তার মায়ের নামে রেকর্ডভূক্ত রয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

তিনি বলেন, টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের পশ্চিম সিকদার পাড়ায় অবস্থিত উম্মে সালমা মহিলা মাদ্রাসার পরিচালক এনামুল হক মঞ্জুর ও সভাপতি সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মামলাবাজ রফিক উদ্দিন দীর্ঘ ৬ বছর যাবত তাদের ভিটা-বাড়ীর প্রবেশপথ জোরপূর্বক দখল করে উক্ত প্রবেশ পথে একটি কাঁচা ঘর নির্মাণ করে মাদ্রাসার নাম দিয়ে দখল করে রেখেছেন। সেই প্রবেশ পথটি দখল করে তাদের ভিটা-বাড়ী আত্মসাৎ করার পাঁয়তারা করে আসছেন। উক্ত প্রবেশ পথের পরিমাণ প্রায় ২ গন্ডা’র বেশি জায়গা।

মাদ্রাসার সভাপতি রফিক উদ্দিন রাস্তাটি বন্ধ করে পরপর তিনবার তাদের ভিটাবাড়ী ক্রয় করার প্রস্তাব দেয়। উক্ত প্রস্তাবে তারা রাজি হননি। পরে কিছু জায়গা মাদ্রাসার নামে দান করতেও প্রস্তাব দেয়া হয়। তা হলে তারা রাস্তা ছেড়ে দেবেন।
পরবর্তীতে মাদ্রাসার সভাপতি ও পরিচালক তাদের মতো করে কৌশলে ওই ভিটাবাড়ী দখলে রাখেন।

এদিকে মাদ্রাসার নামে বসতভিটা দখলের বিষয়টি সর্বস্থানে ছড়িয়ে পড়লে ভূক্তভোগি পরিবারের কাছ থেকে আপোষ মীমাংশের কথা বলে একটি তিনশত টাকার ননজুডিশিয়াল খালি স্ট্যাম্প স্বাক্ষরসহ জমা রাখেন। কিন্তু বিগত চার বছর ধরে এর কোনো প্রতিকার হয়নি। এভাবে চলচাতুরি করে তাদের চরম অপমানিত ও মানসিকভাবে হয়রানী করে আসছেন এই দখলবাজ চক্র। এ বিষয়ে ভূক্তভোগি পরিবার জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তাদের দাবী তারা কখনও মাদ্রাসার বিপক্ষে নয়। ইসলামী মহিলা মাদ্রাসা মহিলাদের ইসলামী শিক্ষা বিস্তারে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তার জন্য মাদ্রাসার পরিচালক ও সভাপতি ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্যতা রাখেন। কিন্তু অন্যজনের ভিটে বাড়ীর রাস্তা আটকিয়ে মাদ্রাসার নাম দিয়ে তারা মাদ্রাসাকে কলংকিত করেছেন।
এছাড়াও বিষয়টি নিয়ে এলাকার মেম্বার, গণ্যমান্য ব্যক্তিব্যর্গ, শিক্ষকসহ বিভিন্নজনকে বিচার দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা কারও কথা শুনেনা উল্টো হুমধি-ধমকি প্রদান করেন।

 

এ পরিস্থিতিতে ভূক্তভোগি পরিবার বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। এ সময় বসতভিটার মালিক আনিসুল মোস্তফার মা হোসনে আক্তার ও ভাই কফিল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

আরো সংবাদ