ডুবন্ত ট্রলার থেকে ১০ মরদেহ উদ্ধার : সাড়ে ৪ মাসেও শেষ হয়নি তদন্ত - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪ ১২ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৯-১৩ ১০:০৪:৫৪

ডুবন্ত ট্রলার থেকে ১০ মরদেহ উদ্ধার : সাড়ে ৪ মাসেও শেষ হয়নি তদন্ত

ডুবন্ত ট্রলার থেকে ১০ মরদেহ উদ্ধার : সাড়ে ৪ মাসেও শেষ হয়নি তদন্ত

বিশেষ প্রতিবেদক : কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে ডুবন্ত ট্রলার থেকে ১০ জনের মরদেহ উদ্ধারের সাড়ে ৪ মাসেও তদন্ত শেষ করতে পারেনি পুলিশ। তবে মামলায় গ্রেফতার ৯ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তারমধ্যে ৭ জনের জবানবন্দি পর্যালোচনা করে ঘটনা সম্পর্কে স্পষ্ট যে ধারণা পাওয়া গেছে, তা এখনও যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িত বাকিদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার পাশাপাশি চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে বলে জানাগেছে।

ডুবন্ত ট্রলার থেকে ১০টি মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় শুরু থেকেই আলোচনায় ছিলেন খাইরুল বশর সুমন নামে এক যুবক। ঘটনার পর থেকে আত্মগোপনে থাকা এ সুমনকে গত ৬ সেপ্টেম্বর (বুধবার) চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতারের পরদিন রিমান্ডে নেওয়া হয়। পুলিশ এ পুরো ঘটনার মাস্টারমাইন্ড বলছে এ সুমনকে। সুমন মহেশখালীর সোনাদিয়া দ্বীপের পশ্চিমপাড়ার মৃত মোস্তাক আহমদের ছেলে।

তিনি হাতে অস্ত্র তুলে নিয়ে জড়িয়ে পড়ে ছিলেন দস্যুতায়। ২০১৮ সালে অস্ত্র জমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার প্রতিশ্রæতি দিয়ে আত্মসমর্পণকারী দস্যুদের মধ্যে ছিলেন সুমনও। ২০১৯ সালে জামিনে মুক্তি হয়ে ২০২১ সালে দখল ও মারামারির মামলায় আবার গ্রেফতার হন। জামিনে বেরিয়ে আবারও জড়িয়ে পড়েন দস্যুতায়।

রিমান্ড শেষে সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাতে কক্সবাজার সদরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয় সুমনকে। আদালত সূত্র জানিয়েছে, বিচারক আখতার জাবেদের আদালতে তিনি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। এ কথা স্বীকার করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুর্জয় বিশ্বাসও। জবানবন্দিতে সুমন কী বলেছেন সে বিষয়ে কিছু জানাতে রাজি হননি দুর্জয় বিশ্বাস। তিনি বলেন, সুমন অনেক শক্ত হৃদয়ের মানুষ। বারংবার বলেছেন, আমি ডাকাতি করতে পাঠিয়েছিলাম, তাদের মারতে পাঠাইনি।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ট্রলারে ১০ জনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় সুমনকে দায়ী করা হচ্ছে। এরই মধ্যে সুমন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। সুমনের জবানবন্দি যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। একই সঙ্গে তদন্তের মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যাবে, সুমন এ ঘটনার জন্য কতটুকু দায়ী। রফিকুল ইসলাম আরও বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদেরও চিহ্নিত করা হচ্ছে। তাদেরকেও দ্রæত আইনের আওতায় আনা হবে। অভিযোগপত্র দাখিলের প্রস্তুতি চলছে।

পুলিশ জানায়, ট্রলারে ১০ জনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া অপর ৮ আসামির মধ্যে প্রধান আসামি বাইট্টা কামালসহ ৬ জন ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। এরা হচ্ছেন, বাঁশখালীর বাসিন্দা ফজল কাদের মাঝি ও আবু তৈয়ুব মাঝি, মহেশখালী পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খায়ের হোসেন, চকরিয়ার বদরখালী এলাকার মো. নুর নবীর ছেলে গিয়াস উদ্দিন মুনির ও মাতারবাড়ীর সাইরার ডেইল এলাকার এস্তেফাজুল হকের ছেলে দেলোয়ার হোসেন। তবে মামলার ৪ নম্বর আসামি করিম সিকদার ও বাইট্টা কামালের ভাই ইমাম হোসেন এখনও জবানবন্দি দেননি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুর্জয় বিশ্বাস বলেন, তদন্ত অনেকটা এগিয়েছে। এ মামলায় আসামি ৬০ জনের মতো। এরই মধ্যে তদন্তে হত্যাকাÐে জড়িত অনেককে শনাক্ত করা হয়েছে। অভিযোগপত্র দাখিলের প্রস্তুতি চলছে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ এপ্রিল সাগরে ভেসে থাকা একটি ট্রলার নাজিরারটেক উপকূলে টেনে আনেন জেলেরা। সেখান থেকে ১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস। ট্রলারের মালিক ছিলেন সামশুল আলম প্রকাশ সামশু মাঝি। মৃতদের মধ্যে তিনিও আছেন। এ ঘটনায় সামশুর স্ত্রী বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় ৪ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫৬ জনকে আসামি করা হয়।

আরো সংবাদ