তবু বিএনপি দেখাতে চায় বড় জমায়েত - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১০-২১ ১২:৫৫:২৮

তবু বিএনপি দেখাতে চায় বড় জমায়েত

তবু বিএনপি দেখাতে চায় বড় জমায়েত
সংবাদটি শেয়ার করুন

নিউজ  ডেস্ক :  হামলা, ধরপাকড়, বাড়ি বাড়ি পুলিশের হানা, ক্ষমতাসীন দলের হুমকিধমকি, বাস চলাচল বন্ধ- এতসব বন্ধুর পথ মাড়িয়ে খুলনার বিভাগীয় গণসমাবেশে বিপুল মানুষ জড়ো করার দিকেই হাঁটছে বিএনপি। এর মধ্যেই বাগেরহাটের শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জে সমাবেশমুখী বিএনপি নেতাকর্মীর ওপর হামলার ঘটনায় অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছে। ছাত্রলীগ কর্মীরা শরণখোলায় আহতদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও যেতে দেয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয় বিএনপির। খুলনায় এ পর্যন্ত ২৬ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে বলে দলের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে।

এদিকে বিভেদরেখা মুছে, অভিমান ভুলে খুলনা মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু তাঁর অনুসারীদের নিয়ে মাঠে নামায় কর্মীদের মনোবল আরও চাঙ্গা হয়েছে। সমাবেশে যোগ দিতে আশপাশের জেলা-উপজেলার অনেক তৃণমূল নেতাকর্মী এরই মধ্যে চলে এসেছে নগরীতে। গণসমাবেশ আগামীকাল শনিবার ২টায় হলেও আজ শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই নগরীর সোনালী ব্যাংক চত্বরের মঞ্চের সামনে অবস্থান নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।
বিএনপির অভিযোগ, বাস চলাচল বন্ধের পর নৌপথে লঞ্চ-ট্রলারও আটকানোর চেষ্টা চলছে। সমাবেশমুখী না হতে বিএনপির কর্মী-সমর্থকদের হুমকি দিচ্ছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। গণসমাবেশে জনস্রোত ঠেকাতে বাধা দেওয়া হচ্ছে পথে পথে। বুধবার রাত থেকেই দলের নেতাকর্মীর বাড়ি বাড়ি তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

ভাঙচুর করা হয়েছে প্রচার মাইক; বাধা দেওয়া হচ্ছে লিফলেট বিতরণে। এদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় গতকাল সন্ধ্যায় খুলনায় দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, যতই আটক ও বাধা দেওয়া হোক না কেন, যে কোনো মূল্যে সমাবেশ সফল করা হবে।

বাগেরহাটে পথে পথে হামলা: শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জে সমাবেশমুখী বিএনপি নেতাকর্মীর ওপর গতকাল হামলা হয়েছে। রায়েন্দা বাসস্ট্যান্ড, মোরেলগঞ্জ ফেরিঘাট, বাগেরহাট কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেছেন শরণখোলা উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম লাল। এ ছাড়া খুলনাসহ বিভিন্ন স্থানে যাওয়ার পথে অনেক নেতাকর্মীকে বাস থেকে নামিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া এবং টাকাসহ কাগজপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে। কোনো অ্যাম্বুলেন্সও আওয়ামী লীগের অনুমতি ছাড়া যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা।

আহতদের মধ্যে মোরেলগঞ্জ পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি মাসুদ খান চুন্নু, শরণখোলার সাউথখালী ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্বাস তালুকদার, বশার ঘরামী, মাসুম মীর, জাকির ফকিরের নাম পাওয়া গেছে।

বাগেরহাট জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোজাফফর রহমান আলম বলেন, একদিকে গণপরিবহন বন্ধ রাখছে, অন্যদিকে হচ্ছে হামলা। তাদের আগ্রাসী আচরণই বলে দিচ্ছে- বিএনপির পক্ষে সাধারণ মানুষের যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে, তাতে আওয়ামী লীগ ভীত হয়ে পড়েছে। শরণখোলা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, স্বাধীন দেশে সবাই স্বাধীন। আমরা কারও ওপর হামলা করিনি। আর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতেও কাউকে বাধা দেওয়া হয়নি।

গয়েশ্বরের অবস্থানরত বাড়ি থেকে আটক ১৩: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় রাতে নগরীর বসুপাড়া এলাকায় বাগেরহাট জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি কাজী খায়রুজ্জামান শিপনের বাড়িতে অবস্থান করছেন। সেই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে আসা ১৩ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

গয়েশ্বর সমকালকে বলেন, ‘হাতে লাঠি, কোমরে পিস্তল ঝুলিয়ে কয়েকজন বাড়িতে প্রবেশ করে ত্রাস সৃষ্টি করেছে। এরা পুলিশ কিনা বোঝার উপায় ছিল না। নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মমতাজুল হক বলেন, বিভিন্ন স্থানে ওয়ারেন্টের আসামি ধরা হচ্ছে। কোন এলাকা থেকে কাকে ধরা হয়েছে, সকালে বলতে পারব।

এর আগে খুলনা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন জানান, ২৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম, ১৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবদল নেতা কাজী সেলিম, ২৫ নম্বর ওয়ার্ড যুবদল নেতা ডালিম, ওই ওয়ার্ডের কর্মী ডা. শাহআলম ও জুলু, ২৬ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি নেতা মাহমুদ আলম বাবু মোড়লকে আটক করেছে পুলিশ। বাগেরহাট থেকে খুলনায় আসা কৃষক দলের মিঠুসহ চার বিএনপি কর্মীকে খুলনা থানার সামনে থেকে আটক করা হয়েছে। এ ছাড়া খানজাহান আলী থানার যোগীপোল ইউনিয়ন বিএনপির আবু সাইদ হাওলাদার আব্বাস ও মহানগর বিএনপির সদস্য কাজী মিজানকে থানায় তলব করা হয়েছে।

বাড়ি বাড়ি হানা: মহানগর বিএনপি নেতা শফিকুল আলম তুহিন অভিযোগ করেন, খুলনা থানা ও সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশের এসআই, এএসআইরা মোটরসাইকেল বহর নিয়ে বুধবার রাতে অনেক নেতাকর্মীর বাড়িতে যান। মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হুদা চৌধুরী সাগর, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক জাবির আলী, ৩০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বুলবুল মোল্লাসহ অসংখ্য নেতাকর্মীর বাড়িতে পুলিশ হানা দিয়েছে। এ ছাড়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান মনির, ১৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক ফারুক হোসেন, বিএনপি নেতা তৌহিদ, নুর ইসলামের বাসা এবং বিএনপি নেতা আলতাফ খানের দোকানে গতকাল অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। তারা বিএনপি নেতাকর্মীকে আটক করার চেষ্টা করছে। এ কারণে অনেক নেতা এখন বাড়িছাড়া।

তিনি জানান, গত বুধবার রাতে ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা নগরীর বিভিন্ন স্থানে ছয়টি প্রচার মাইক ভাঙচুর করেছে। খালিশপুরে গতকাল সকালে দুটি মাইক কেড়ে নিয়েছে। এ ছাড়া ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে প্রচার মাইকে হামলা এবং জেলখানা ঘাট, রূপসা ঘাট, ডাকবাংলো মোড় ও বৈকালী মোড়ে প্রচার মাইক ব্যবহারে বাধা দিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। তুহিন আরও অভিযোগ করেন, ক্ষমতাসীন দলের কয়েকজন কাউন্সিলর বিএনপি কর্মীদের ডেকে হুমকি দিয়ে বলেছেন- সমাবেশে গেলে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না।

খুলনা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক শফিকুল আলম মনা আশঙ্কা করছেন, শনিবার নগরীর প্রবেশপথগুলোতে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী লাঠি নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীর সমাবেশে আসতে বাধা দিতে পারে। বিএনপির কেন্দ্রীয় তথ্যবিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল জানান, বুধবার রাতে রূপসা উপজেলা বিএনপির অনেক নেতাকর্মীর বাড়িতে পুলিশ হানা দেয়।

আগেভাগেই নগরীতে: বিএনপি নেতা রকিবুল ইসলাম বকুল জানান, সব বাধা ডিঙিয়ে গণসমাবেশ সফল করতে তাঁদের সর্বাত্মক প্রস্তু্তুতি চলছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে অনেক নেতাকর্মী খুলনা নগরীতে চলে এসেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিএনপি নেতা জানান, খুলনা নগরীতে যাদের আত্মীয়স্বজন নেই, তারা আবাসিক হোটেলে উঠছে। নগরীর অধিকাংশ হোটেলে শুক্র ও শনিবারের কোনো কক্ষ খালি নেই। পাশাপাশি নগরীর পাঁচ-ছয়টি মিলনায়তন ভাড়া নিয়ে সেখানে শুক্রবার রাতে নেতাকর্মীদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

মেহেরপুর জেলা বিএনপি সভাপতি মাসুদ অরুণ জানান, বুধবার থেকেই নেতাকর্মী খুলনায় যেতে শুরু করেছে। চুয়াডাঙ্গার অন্তত চার হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে যোগ দেবে। সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সৈয়দ ইফতেখার আলী বলেন, সাতক্ষীরা থেকে ১০ হাজার নেতাকর্মী অংশ নেবে। ইতোমধ্যে অনেকে খুলনার উদ্দেশে রওনা হয়েছে। শুক্রবারের মধ্যে অধিকাংশ নেতাকর্মী পৌঁছে যাবে। খুলনার কয়রার দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মনজুর আলম নান্নু জানান, তাঁদের অনেকেই বুধবার বিকেলে খুলনা শহরে পৌঁছে গেছে।

মহানগর জাসাসের সদস্য সচিব এহতেশামুল হক শাওন বলেন, শুক্রবার বিকেল থেকেই নেতাকর্মী মঞ্চের সামনে অবস্থান নেবে। শুক্রবার রাত ও শনিবার সমাবেশ শুরুর আগ পর্যন্ত জাসাসের কর্মীরা সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মাধ্যমে কর্মীদের চাঙ্গা রাখবেন। বিভাগের অন্য জেলা থেকে জাসাসের সিনিয়র নেতা ও শিল্পীরা খুলনায় পৌঁছেছেন। তাঁদের নিরাপদ স্থানে রাখা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় মঞ্চ তৈরি ও মাইক লাগানোর কাজ শুরু হবে।

মাঠে মঞ্জু: প্রায় ১১ মাস পর ফের রাজনীতির মাঠে নেমেছেন খুলনা মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনিসহ পাঁচ থানা ও নগর বিএনপির সাবেক নেতারা। গতকাল খুলনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে শনিবার বিএনপির খুলনা বিভাগীয় গণসমাবেশে যোগ দেওয়ার ঘোষণা দেন তাঁরা। পরে সমাবেশ সফল করতে নগরীতে লিফলেট বিতরণ করেন।

মঞ্জু বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। সেই নির্দেশনার আলোকে সাধারণ কর্মী হিসেবে তিনি ও মহানগর বিএনপির সাবেক নেতারা সমাবেশে যোগ দেবেন।

আজ সমাবেশ যুবলীগ-ছাত্রলীগের: আজ শুক্রবার বিকেলে খুলনা নগরীতে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে মহানগর যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ। গতকাল রাতে দলীয় কার্যালয়ে সংগঠনগুলোর বর্ধিত সভা শেষে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বিএনপির ‘সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদ ও মিথ্যাচার’-এর প্রতিবাদে সংগঠনগুলো এ সমাবেশ ও মিছিল করবে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। খুলনা মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক সফিকুর রহমান পলাশ বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে তাদের কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ।

আওয়ামী লীগ ও পুলিশের ভাষ্য: বিএনপি নেতাদের অভিযোগ অস্বীকার করে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা জানান, তাঁদের নেতাকর্মী মাইক ভাঙচুর করেনি; কাউকে হুমকিও দেয়নি। বিএনপির সমাবেশে তাঁরা কোনো বাধা দেবেন না। আর বাস ধর্মঘট ডেকেছেন বাস মালিকরা।

এ ব্যাপারে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মাসুদুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, বিএনপির সমাবেশ টার্গেট করে পুলিশ কারও বাড়িতে যায়নি। যাদের নামে ওয়ারেন্ট আছে, তাদের বাড়িতে পুলিশ নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে অভিযানে যায়। তিনি বলেন, সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সমাবেশের নিরাপত্তায় প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হবে।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
 0   
  
      

আরো সংবাদ