দখলের মহোৎসব চলছে পর্যটন শহর কক্সবাজারে - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২২-০১-১০ ১২:১০:৩৮

দখলের মহোৎসব চলছে পর্যটন শহর কক্সবাজারে

দখলের মহোৎসব চলছে পর্যটন শহর কক্সবাজারে
Spread the love

বিশেষ প্রতিবেদক : কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্যারাবন নিধন আর সরকারি খাসজমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মহোৎসব চলছে। থেমে নেই নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন, অবাধে পাহাড় কর্তন, বনের গাছ নিধন ও মাটি বিক্রিও। কক্সবাজার শহরের বাঁকখালী নদীর তীরে সৃষ্ট প্যারাবনের আনুমানিক ২০ হাজার গাছ কেটে দখল করা হয়েছে কয়েক শ’ একরের জলাভূমি।

পাশাপাশি গাছপালা উজাড় হওয়ায় ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির আবাসস্থল ও জীববৈচিত্র্য। কাটা গাছের গোড়ালি যাতে প্রশাসনের কেউ দেখতে না পান এ জন্য ট্রাকে মাটি ও বালু নিয়ে চলছে ভরাটের কাজ।

কয়েক দিন ধরে প্যারাবনের বিশাল ভূমি টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে রেখে সেখানে ভরাটের কার্যক্রম চালানো হলেও বাঁধা দেওয়ার কেউ নেই। বাঁকখালী নদীর দখলদারদের উচ্ছেদ, দখল বন্ধ, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞাও রয়েছে।

জানাগেছে, কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহি বাঁকখালী নদীর তীরের কস্তুরাঘাট এলাকায় প্যারাবনে আগুন ধরিয়ে দিয়ে নদীর জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ১০ একর প্যারাবন নিধন করে সরকারি খাস জমি ও নদীর তীর দখলে নিয়েছে স্থানীয় কয়েকটি দখলবাজ সিন্ডিকেট। পাশাপাশি প্যারাবনের কয়েক হাজার গাছ কেটে পাহাড়ি মাঠি পেলে ভরাট করে রাতারাতি তৈরি করা হয়েছে টিনের ঘেরা দিয়ে প্লট।

অভিযোগ উঠেছে, এই দখলকৃত প্লট চড়াদামে বিক্রি করছে দখলবাজরা। আর এই দখল কার্যক্রমে মোটা অংকের বিনিময়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছে পরিবেশ অধিদপ্তরের গুটি কয়েক অসাধু কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কয়েকজন অফিসার। যেকারনে দখলকারিদের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা হলেও বরাবরের মতোই মামলা থেকে বাদ পড়েছে দখলে নেতৃত্ব দেওয়া এবং অসংখ্য দখলকৃত প্লটের মালিক ও দখলবাজরা।

সরেজমিনে গিয়ে একাধিক লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, শুরু থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত যারা দখলের মহোৎসব চালিয়ে যাচ্ছেন তারা হলেন, নেত্রকোনা সদরের মৌগাতী, মারাদিঘী এলাকার ইদ্দিকুর রহমান এর পুত্র এলএ অফিসের চিহ্নিত দালাল ওমর ফারুক (৩৬) ওরফে দালাল ফারুক, মহেশখালীর কুতুবজোমের মেহেরিয়া পাড়ার রোকন উদ্দিন (৪০), মহেশখালী পৌরসভার, চরপাড়ার মোহাম্মদ ইউছুফ (৪৫), সাতকানিয়া কাঞ্চনার শরিফুল আলম চৌধুরী (৫০), মহেশখালী পুটিবিলা এলাকার জাহেদুল ইসলাম শিবলু (৪০), বদর মোকামের এলাকার কামাল মাঝি (৫০), খরুশকুল কুলিয়া পাড়ার মৃত মোহাম্মদ আলীর পুত্র মোহাম্মদ সোহেল (৩৬), সাতকানিয়া পশ্চিম ডলুর জসিম উদ্দিন (৪৪), বাঁশখালী চনুয়ার জিয়া মোঃ কলিম উল্লাহ (৪০), লোহাগাড়া চৌধুরীপাড়াস্থ উত্তর হরিয়া এলাকার খোরশেদ আলম চৌধুরী (৫৫), মনোহরগনজয়ের দক্ষিন সরসপুর বাতাবাড়িয়া এলাকার ফিরোজ আহমদ, বদর মোকামের কফিল উদ্দিন, চট্রগ্রাম সিটি কর্পোরেশনস্থ চাদগাঁও এলাকার মাহমুদুল করিম (৪১), শহরের লালদিঘীপাড় এলাকার আশিক (৩৮), কক্সবাজার সদর উপজেলার হাজীপাড়ার আমীর আলী (৪৫), রামু চাকমারকুলের মোস্তফা কামাল (৫০) ও বৈল্যাপাড়ার আমিন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন দখলদার বলেন, স্থানীয় কয়েক প্রভাবশালী ব্যক্তি শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে রাতে হাজার হাজার কেউড়া, বাইনগাছ কেটে বনভূমি টিন দিয়ে ঘিরে দখলে নিয়েছেন। এরপর প্রতি গন্ডা (দুই শতক) জমি ১০ থেকে ১২ লাখ টাকায় বিভিন্ন লোকজনের কাছে বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা।

এ নিয়ে কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা বলেন, জাপানি একটি পরিবেশবাদী সংস্থার কর্মীরা জোয়ারের প্লাবন থেকে শহরবাসীকে রক্ষার জন্য বাঁকখালী নদীর তীরে কয়েক হাজার বাইন ও কেওড়া গাছের চারা রোপণ করেছিলেন কয়েক বছর আগে। সেগুলো ২০ থেকে ২৫ ফুট উচ্চতার হয়েছে। এখন সেসব গাছ কেটে জলাভূমি দখল করে নিয়েছে প্রভাবশালী মহল।

কস্তুরাঘাটের ব্যবসায়ী ও বাসিন্দাদের অভিযোগ, বদরমোকাম হয়ে খুরুশকুল পর্যন্ত সংযোগ সেতু নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার পর থেকে মূলত নদী দখল শুরু হয়। নির্মাণাধীন সেতুর দুপাশে চলছে প্যারাবন উজাড় করে নদী দখল ও ভরাটের কাজ। এতে নদীর গতিপথ সংকুচিত হয়ে পড়েছে। জোয়ার-ভাটার অংশ ভরাট করে গড়ে তোলা হচ্ছে স্থাপনা। প্যারাবন দখল-বেদখল নিয়ে দখলদারদের মধ্যে সংঘাতও চলছে।

অভিযোগ রয়েছে, দখলবাজরা ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকায় তারা স্থানীয় প্রশাসনকে তোয়াক্কা করছে না। প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার চেষ্টা করেও অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে প্যারাবন উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। বাঁধা দিতে গিয়ে হুমকির মুখে পড়তে হয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

সূত্র জানায়, প্রায় দেড় হাজার একর জমি এখন তিন ভাগে প্রভাবশালীদের দখলে। এর মধ্যে প্রায় ৫০০ একর জমির অবৈধ দখল করে চিংড়িঘেরের জন্য প্রস্তুত করেছে জনৈক প্রভাবশালী। আর প্রায় ১ হাজার একরের মতো জমি দখল করে কাজ করে ঘর নির্মাণ করে যাচ্ছে প্রভাবশালীরা। একইভাবে শহরের কলাতলী হোটেল মোটেল জোন এলাকার সুগন্ধা পয়েন্টে কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জমি দখল করে নির্মিত হয়েছে মার্কেট ও দোকানঘর। একইভাবে মেরিন ড্রাইভ সড়কের দুপাশেই অসংখ্য দখলবাজ থাবা বিস্তৃত করে রেখেছে। দখল করা হয়েছে হিমছড়ি ও উখিয়া এলাকার বনভূমি।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন গভীর রাত থেকে সকাল পর্যন্ত শতাধিক শ্রমিক দিয়ে ২০/২৫ জনের একটি সিন্ডিকেট দেদারছে প্যারাবন কেটে উজাড় করছে। পাশাপাশি শত শত ট্রাক দিয়ে রাতে পাহাড়ি মাঠি পেলে নদীর তীর দখল করছে। প্রতিদিনের ন্যায় রোববার সকালে প্যারাবনে আগুন ধরিয়ে দিয়ে দখলে নামে দখলবাজরা। এসময় পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে পুরো শহরে সমালোচনার ঝড় উঠলে ঘটনাস্থলে যায় কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নু-এমং মারমা মং ও পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সাইফুল ইসলাম এবং কক্সবাজার ভিত্তিক ইয়ুথ এনভারমেন্ট সোসাইটির প্রধান নির্বাহী ইব্রাহিম খলিল মামুন।

ইব্রাহিম খলিল মামুন বলেন, রোববার ভোর ৪টার দিকে গাছ কাটা শুরু করে সকাল পর্যন্ত চলে। পাশাপাশি প্যারাবনে আগুন ধরিয়ে দিয়ে উজাড় করে। এছাড়া পাহাড়ি মাঠি পেলে এক সঙ্গে ভরাট কার্যক্রমও চালায় দখলবাজরা। তিনি আরও জানান, বাঁকখালী নদীর প্রায় ৩০ হাজার গাছ কেটে ফেলা হয়েছে এবং টিনের ঘেরা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে প্লট।

কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সাইফুল ইসলাম বলেন, প্যারাবন নিধন ও পাহাড়ি মাটি পেলে নদী দখলের বিষয়ে ইতিপূর্বে ৩টি মামলা হয়েছে। তৎমধ্যে ১টির চার্জশিট হয়েছে। বাকী ২টি মামলার তদন্ত চলছে। তবে সম্প্রতি রেকর্ড হওয়া মামলায় প্রকৃত দখলবাজ ও প্যারাবন নিধনকারিদের বাদ দেয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে এই কর্মকর্তা নিজে নতুন যোগদান করেছেন বলে প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান।

এদিকে সম্প্রতি প্যারাবন নিধন ও নদী দখলকারিদের বিরুদ্ধে রেকর্ডকৃত মামলা নিয়ে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের বাণিজ্যের সমালোচনা ঝড় উঠেছে। তবে এক কর্মকর্তা জানান, যারা মামলা থেকে বাদ পড়েছে তাদের চার্জশিটে আনা হবে। উপরোক্ত বিষয় নিয়ে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শেখ নাজমুল হুদাকে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নু-এমং মারমা মং বলেন, রোববার সকালে প্যারাবনে আগুন দিয়ে দখলবাজির ব্যাপারে শুনার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। কিন্তু তখন দখলবাজদের ঘটনাস্থলে না পাওয়ার কারনে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া যায়নি। তবে উক্ত বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর আইনি ব্যবস্থা নেবেন বলে তিনি জানান।

দখলের মহোৎসব চলছে পর্যটন শহর কক্সবাজারে

দখলবাজকে ধরে নিয়ে আসছে স্থানীয় সমাজপতি মিজানুর রহমান। 

এদিকে, পরিবেশকর্মীরা বলছেন, পাহাড় ও বন কাটার সঙ্গে জড়িত শ্রমিকদের মাঝে মধ্যে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। কিন্তু মূল হোতারা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। গাছ কাটার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে বা পরিবেশ আদালতে মামলা করেই যেনো পরিবেশ অধিদপ্তর দায়িত্ব শেষ। এ কথা ভুলে গেলে চলবে না যে আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করা এবং বন ধ্বংসকারীদের আইনানুগ শাস্তি নিশ্চিত করার দায়িত্ব পরিবেশ অধিদপ্তরের। জরিমানা ছাড়াও পাহাড় বেষ্টনী দিয়ে বনায়ন করতে হবে।

তারা বলেন, সা¤প্রতিক সময়ে যেসব আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে, সেগুলোতে একই অপরাধ বারবার হলে শাস্তির মাত্রা কয়েক গুণ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। পরিবেশ আইনে যদি এমন দুর্বলতা থাকে, তাহলে তা দূর করা এবং আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ নিশ্চিত করা প্রয়োজন। প্রয়োজনে শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে পরিবেশ ধ্বংসকারী দুর্বৃত্তদের নিবৃত্ত করতে হবে। অন্যথায় বাংলাদেশ দ্রæতই বনশূন্য হয়ে যাবে, প্রাকৃতিক বনাঞ্চল বলে কিছু থাকবে না।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে মিলে বন থেকে গাছ চুরি করলে বন রক্ষা করার আর কোনো উপায় থাকে না। তারা শক্তিশালী সিন্ডিকেটে পরিণত হয়েছে বলেই বুক সটান করে গাছ চুরি করে থাকে। এব্যাপারে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেওয়ার মতো সাহসও কেউ দেখাতে পারে না। উল্টো তাকে দৌড়ের ওপর থাকতে হয়। গাছ চুরি বন্ধে এসব শক্তিশালী সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উর্ধবতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তারা।

 

আরো সংবাদ