দীর্ঘ ছুটি শেষে কক্সবাজারে কমতে শুরু করেছে পর্যটক - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০৪-১৫ ১৩:৩১:২১

দীর্ঘ ছুটি শেষে কক্সবাজারে কমতে শুরু করেছে পর্যটক

দীর্ঘ ছুটি শেষে কক্সবাজারে কমতে শুরু করেছে পর্যটক

জসিম সিদ্দিকী : ঈদুল ফিতর ও পহেলা বৈশাখ মিলে ৫ দিনের টানা ছুটিতে পর্যটকের ঢল নামে কক্সবাজারে। ছুটির সময় প্রায় পাঁচ শতাধিক হোটেল মোটেল এবং গেস্ট হাউসগুলো শতভাগ বুকিং থাকায় শতকোটি টাকার ব্যবসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে বরাবরের মতো হোটেলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ ছিল পর্যটকদের। হোটেল মালিক পক্ষের দাবি ৫ দিনের ছুটি থাকলেও হোটেলগুলোতে শতভাগ বুকিং ছিল মাত্র দুই দিন। আর পর্যটকদের নিরাপত্তায় সর্বদা সচেষ্ট ছিল ট্যুরিস্ট পুলিশ।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) থেকে অগ্রিম হোটেল কক্ষ বুকিংয়ে তেমন ব্যস্ততা নেই, হোটেল-মোটেলগুলোতে পর্যটকের অবস্থান ৫০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে বলে জানিয়েছেন পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কলাতলী, সুগন্ধা, সীগাল, লাবণী ও কবিতা চত্বর পয়েন্টে পর্যটকের ভিড় তেমন লক্ষ্য করা যায়নি। ঈদের দু-এক দিন পর পয়েন্টগুলোতে যে ব্যস্ততা ছিল, তা কমে গেছে। এবং দিন দিন আরও কমে যাবে বলে ধারণা করছেন হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ীরা।

কক্সবাজার হোটেল-গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সেলিম নেওয়াজ বলেন, ঈদের এক দিন পর থেকে কক্সবাজারে প্রচুর পর্যটক ছিল। এমনকি ঈদের ৪র্থ দিন কক্সবাজারে পর্যটকের ¯্রােত ছিল। সমুদ্র সৈকতে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। কিন্তু ছুটি শেষে আস্তে আস্তে পর্যটক কমতে শুরু করেছে। কর্মব্যস্ততায় পর্যটকরা ঘরমুখী হচ্ছেন।

বিচকর্মীদের সুপারভাইজার মো. মাহবুব আলম বলেন, ঈদের র্দীঘ ছুটিতে কক্সবাজারে সমুদ্র সৈকতে পর্যটকে টইটম্বুর ছিল। পর্যটকের ভিড়ে সৈকতে হাঁটার মতো অবস্থা ছিল না। কিন্তু গতকাল থেকে পর্যটক কমতে শুরু করেছে। সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্টে পর্যটকের আনাগোনা আগের চেয়ে কম দেখা যাচ্ছে।

হোটেল মোটেল গেস্ট হাউস মালিক সমিতির দেয়া তথ্যমতে, পাঁচ শতাধিক হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস ছাড়াও রেস্তোরাঁ, ওয়াটার বাইক, বিচ বাইক, কিটকট, শামুক ঝিনুক, শুঁটকি, বার্মিজ পণ্য বিক্রিসহ কয়েক লাখ মানুষ সরাসরি পর্যটন শিল্প ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। পর্যটক আসলে তাদের আয়ের পথ সুগম হয়। তবে বুকিংয়ের বাইরে ওয়ার্কিং পর্যটকের সংখ্যা বেশি।

পর্যটন উদ্যোক্তা আবদুর রহমান বলেন, পর্যটকদের সেবায় হোটেল-মার্কেটের ব্যবসায়ী ও হকারেরা কয়েকদিন ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে। এ ধারাবাহিকতা থাকলেও হয়তো আরও বেশি আয় করা সম্ভব হতো।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঈদের সময়ে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত দুটি স্পেশাল ট্রেন চালু করায় কক্সবাজারে পর্যটকের সংখ্যা বাড়ছে।

কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা বলেন, কক্সবাজারে পাঁচ শতাধিক হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস মিলে ২৫ হাজারের মতো কক্ষ রয়েছে। সে হিসেবে এক দিনে হোটেল কক্ষের ভাড়া থেকে আয় হয়েছে প্রায় ৯ কোটি টাকার উপরে। এছাড়া রেস্তোরাঁ, ওয়াটার বাইক, কিটকট, শামুক-ঝিনুক, শুঁটকি এবং বার্মিজ পণ্য বিক্রি হয়েছে ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকার মতো। এ হিসাবে ঈদের ৫ দিনের ছুটিতে শতকোটি টাকার ব্যবসা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতকে সুপরিকল্পিতভাবে সাজানো গেলে বছরজুড়ে পর্যটকের আগমন থাকত। এতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ রাজস্বও আয় হতো।

কক্সবাজার রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম ডালিম বলেন, যেমন আয় তেমন ব্যয়। ৫ দিনের ব্যবসা দিয়ে তো আর বছর পার করা সম্ভব না। তারপরও যা আয় হয়েছে তা দিয়ে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নেয়া যাবে।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অফ কক্সবাজার (টুয়াক) সভাপতি তোফায়েল আহমেদ বলেন, সেন্টমার্টিন যাওয়ার সুযোগ পেলে আরও বেশি পর্যটক আসত কক্সবাজারে।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি আপেল মাহমুদ বলেন, ঈদের ছুটিতে ব্যাপক পর্যটক সমাগমের কথা মাথায় রেখে সব ধরনের প্রস্তুতি ছিল আমাদের। সৈকতে পর্যটকদের ওয়ান-স্টপ সার্ভিস চালু করেছি আমরা। বিপদাপন্ন কোনো পর্যটক একটি বাটন টিপেই সেবা নিশ্চিত করতে পারবেন। তিনি আরও বলেন, পর্যটকের নিরাপত্তা ও সেবায় সার্বক্ষণিক টহল রয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ।

 

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. ইয়ামিন হোসেন জানান, এখনো পর্যটকদের কাছ থেকে কোনো অভিযোগ আমরা পাইনি। তারপরও হোটেলে-মোটেল ও রেস্তোরাঁয় অতিরিক্ত টাকা আদায় কিংবা অন্যান্য ক্ষেত্রে হয়রানি বন্ধ এবং পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমন নিশ্চিত করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত মাঠে কাজ করেছেন।

আরো সংবাদ