দুর্নীতিতে ডুবছে জেএমঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়   - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৯-০৫ ১৪:০৯:৩৫

দুর্নীতিতে ডুবছে জেএমঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়  

দুর্নীতিতে ডুবছে জেএমঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়  
সংবাদটি শেয়ার করুন

আ্‌দুস ছালাম কাকলী :  সদ্য এম পি ও ভুক্ত হওয়া মহেশখালী উপজেলার  শাপলাপুর ইউনিয়নের জে এম ঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের বর্তমান কমিটির সভাপতি ফরিদুল আলম, প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ, মহেশখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষার একাডেমি সুপার ভাইজার ফজলুল হক সহ মিলে  শিক্ষক ও  কর্মচারী নিয়োগ  বাণিজ্যের  অভিযোগ উঠেছে।
গত ২১ অাগষ্ট  ৪১১৩ নং স্মারকে এবং ২২ অাগষ্ট  ১০০৫৬৪২২০৮২২০১২ স্মারকে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা নাজেম উদ্দীন। (সাবেক চেয়ারম্যান শাপলাপুর ইউনিয়ন পরিষদ মহেশখালী, কক্সবাজার)।তিনি  বিদ্যালয়ের সুনির্দিষ্ট অনিয়ম দুর্নীতি তুলে ধরে মহা – পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, শিক্ষা ভবন ঢাকা এবং সচিব, শিক্ষা মন্ত্রালয়, সচিবালয় ঢাকা, বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। উক্ত অভিযোগের অনুলিপি কক্সবাজার জেলা প্রশাসক সহ সরকারী ৬ টি দপ্তরে প্রেরণ করছে।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা নাজেম উদ্দীন এর লিখিত অভিযোগে জে এম ঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ বর্তমান কমিটির সভাপতি ফরিদুল আলম এর বিরুদ্ধে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে শিক্ষক, শিক্ষীকা, ও ৪ র্থ শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগে ব্যাপক দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপ- ব্যবহার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উঠে এসেছে।
গত ১২ মে ২০২২ ইং তারিখে  ড. বিপ্লব গাঙ্গুলী  (বিদ্যালয় পরিদর্শন) মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, চট্টগ্রাম স্বাক্ষরিত জে এম ঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১১  জন বিশিষ্ট ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদন হয়েছে।
গত ৪ অাগষ্ট ২০২২ ইংরেজি তারিখে বিদ্যালয় পরিদর্শন ড. বিপ্লব গাঙ্গুলী সাক্ষরিত ১১ জন বিশিষ্ট কমিটির মধ্যে ৫,৬ ও ৮  নং কলামে থাকা আব্দুল করিম (সাধারণ অভিভাবক) সদস্য, আবুল শামা( সাধারণ অভিভাবক) সদস্য ও
খালেদা খানম (সংরক্ষিত মহিলা অভিভাবক) সদস্য গণ ১২ মে.২০২২ ইংরেজি তারিখে অনুমোদন কৃত জে এম ঘাট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন কল্পে পুর্ব থেকে অবগত নয় মর্মে চেয়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড চট্টগ্রাম,  জেলা প্রশাসক কক্সবাজার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আই সিটি কক্সবাজার, জেলা শিক্ষা অফিসার কক্সবাজার, নির্বাহী কর্মকর্তা মহেশখালী বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
বর্তমান কমিটির মধ্যে স্থান পাওয়া তিন জনের লিখিত  অভিযোগে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে, বর্তমান কমিটির গঠন কল্পে তারা  কোনো মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে নি  এবং নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেনি।  তারা  দুঃখ করে অারো  বলেন এ  রকম একটি পকেট কমিটিতে তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করে তাদের মানহানি করা হয়েছে। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে   আরো বলেন কমিটির মধ্যে নাম দেখার পরে খোঁজ খবর নিয়ে অবগত হয়েছে যে, মহেশখালী একাডেমি সুপার ভাইজার ফজলুল হক মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এ কমিটি গঠন করার সময় প্রিজাইডিং এর  দায়িত্ব পালন করেছে ।
তারা  তিন জনের মধ্যে একজন পুর্বের কমিটির মধ্যে ও বহাল ছিল তাদের ভাস্যমতে বর্তমান কমিটির মধ্যে স্থান পাওয়া ৯ নং কলামে থাকা মোহাম্মদ মাহবুব আলম ।(সাধারণ শিক্ষক) সদস্য এবং ১১নং কলামে থাকা ফরিদা ইয়াসমিন (সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক) দুই জনকে বিদ্যালয় প্রতিষ্টা হওয়ার পর থেকে আজ পযর্ন্ত কোন দিন স্কুলে দেখেননি  বলে দুঃখ করে বলেন। তারা অারো বলেন,এ নিয়ে রহস্য থাকতে পারে।
তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের এর প্রস্তুতি চলছে বলে একটি সূত্র থেকে জানা যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
 
     
  
      

আরো সংবাদ