নাইক্ষ্যংছড়িতে জমি দখলে নিতে চারাগাছ নিধন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-০৮ ০৪:৩৫:০১

নাইক্ষ্যংছড়িতে জমি দখলে নিতে চারাগাছ নিধন

নাইক্ষ্যংছড়িতে জমি দখলে নিতে চারাগাছ নিধন

মোহাম্মদ ইউনুছ নাইক্ষ্যংছড়ি :  পাবর্ত্য জেলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে প্রভাবশালী কর্তৃক অসহায় পরিবারের ১০ একর জায়গা দখলে নিতে চারাগাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের ২৭০ নং মৌজার সাপ মারা ঝিরি এলাকায়।

সুত্রে জানা যায় ১৯৮০/৮১ সালের একই এলাকার নুর আহমদের ছেলে জয়নাল আবেদিনের ৩ একর খতিয়ানি, যার হোল্ডিং নং ২৩৯ ও ২০০২/৩ সালের বন্দোবস্তি প্রভুজল মূলে দীর্ঘ ৪৪ বৎসরের ভোগ দখলিয় জায়গা দখলে নিতে প্রায় দুই একর জায়গার চারাগাছ কেটে নিয়েছে প্রভাবশালী, বহিরাগত কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের ছৈয়দুল ইসলাম ও নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের আবুল বাশার গং।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গিয়ে ও একাধিক বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায়,  বেলায়ত আলী প্রকাশ ৪ মাস বয়সে জয়নাল আবেদিনকে দত্তক নেয়। সেই সুত্রে অন্য ছেলেদের মত জয়নাল আবেদিনকে ও তিন একর প্রথম শ্রেণির খতিয়ানি জমি ,৭ একর তৃতীয় শ্রেণির তার দখলিয় জমি দেন পালিত ছেলে জয়নাল আবেদিনকে।

জমির মালিক জয়নাল জানান, তার দীর্ঘ ৪৪ বৎসরের খতিয়ানি ও ভোগ দখলিয় জায়গা গোপনে গত ২৩/২/২০১১ সালে তার মা নুর বানুর নামে ভুয়া কক্সবাজার নোটারীর পাবলিকের মাধ্যমে দাবি তুলে ছৈয়দুল ইসলাম। যাহা ১১/১/২৪ ইং সালে ভুয়া প্রমাণিত হওয়ায় একই নোটারীর মাধ্যমে বাতিল হয়।

হঠাৎ করে প্রভাব খাটিয়ে গেলো ২৮ জানুয়ারি  ছৈয়দুল ইসলাম, আবুল বাশার গং সাথে আবুল কাসেম, রবি উল্লাহ, শাহিনসহ বহিরাগত আর ১০/১২ লোক দ্বারা অস্ত্রশস্ত্র সজ্জিত হয়ে আমার গাছপালা কেটে এবং আমার নির্মিত বাসা (ঘর) ভেঙ্গে ট্রাক যোগে নিয়ে যায়।

এতে আমি বাধা দিলে আমাকে বা আমার পরিবারকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এ বিষয়ে আমুক্ত নামা মূলে আবুল কাসেম বাদী হয়ে ছৈয়দুল ইসলাম, আবুল বাশারসহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে বান্দরবান চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা হয়। যার মামলা নং সি আর ৪/২০২৪।

এ বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা নাইক্ষ্যংছড়ি থানার এস আই কাজি তফকুল আলম জানান, বিষয়টি আমি একাধিক বার তদন্ত করেছি। উভয়ের কাগজপত্র দেখে প্রতিবেদন বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করা হবে।

আরো সংবাদ