নীল জলরাশিতে শরীর ভেজাতে ব্যস্ত ভ্রমণ পিপাসুরা - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-১০-০৭ ১৩:০১:১৭

নীল জলরাশিতে শরীর ভেজাতে ব্যস্ত ভ্রমণ পিপাসুরা

নীল জলরাশিতে শরীর ভেজাতে ব্যস্ত ভ্রমণ পিপাসুরা
সংবাদটি শেয়ার করুন

জসিম সিদ্দিকী : ঈদে মিলদুন্নবী ও দুর্গাপূজার ছুটিতে কক্সবাজারে ছুটে এসেছেন লাখো পর্যটক। শুক্রবার (৭ অক্টোবর) বিকালে সৈকত পাড়ে পর্যটকের ভিড় দেখা যায়। আর পর্যটকদের এমন ভিড় দেখে সাগর পাড়ের বেশ কিছু হোটেল-মোটেলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পর্যটকদের অভিযোগ, আবাসিক কিছু হোটেল গলাকাটা বাণিজ্য শুরু করেছে। রুম ভাড়ার তালিকা টাঙ্গানোর নিয়ম থাকলেও হোটেলগুলো তা মানছে না।

বিকেলে সৈকতপাড়ের হোটেলগুলোতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সী গাল, কক্স টুডেসহ তারকামানের হোটেলগুলোতে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ ছাড় দিয়ে রুম ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। সেখানে সকালে ফ্রি নাস্তাও রয়েছে। কিন্তু এই হোটেলগুলোর পাশের হোটেল অভিসারে ২ হাজার ২৫০ টাকার রুম ৭ থেকে ৮ হাজার ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। শুধু তাই নয়, রুম নিতে হলে দুই রাতের জন্য নিতে হবে বলেও জানিয়ে দিচ্ছেন। একই ধরনের অভিযোগ উঠেছে হোটেল গ্রেস কক্স এবং কক্স হিলটনের বিরুদ্ধেও।

পর্যটক সুচিত্রা বলেন, আমরা ঢাকা থেকে কয়েকজন বন্ধু কক্সবাজারে এসেছি। এখানে এসে হোটেল অভিসারে রুম ভাড়া নিতে গেলে তারা প্রতি রুমের ভাড়া সাড়ে ৮ হাজার করে বলেন। রুম ভাড়া দুই রাতের জন্য নিতে হবে বলেও জানান। একপর্যায়ে তারা ১৭ হাজার টাকা দাবি করেন। অনেক করে বলেছি আমরা সবাই ছাত্র, এতো টাকা আমাদের নেই। তারপরও তারা ছাড় দেননি। অবশেষে রুম না নিয়ে আমরা অন্য হোটেলে চলে আসি। সেখানে সীমিত মূল্যে রুম নিয়েছি এক রাতের জন্য।

পর্যটকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত রুম ভাড়া আদায়ের বিষয়টি সঠিক নয় বলে দাবি করেন হোটেল অভিসারের ম্যানেজার লিটন পাল। তিনি বলেন, আমাদের হোটেলে রুমের ভাড়া সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৭৫০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ২ হাজার ২৫০ টাকা। এখানে অতিরিক্ত দাম নেওয়ার কোনো মানে হয় না। আমরা পর্যটক বান্ধব। এক রাতের জন্য রুম বুকিং নেওয়া হয় না বিষয়টিও সঠিক নয়।

এ ব্যাপারে হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাসেম সিকদার বলেন, হোটেল রুমের ভাড়া অতিরিক্ত না নেওয়ার জন্য আগে থেকেই নির্দেশনা দেওয়া আছে। হোটেলগুলোর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তা আমরা খতিয়ে দেখছি। হোটেলগুলো কোন ধরনেরর রুমের ভাড়া বেশি চেয়েছে তা দেখার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) মাসুম বিল্লাহ বলেন, যারা অতিরিক্ত দামে হোটেল রুম ভাড়া দিয়ে পর্যটন খাতকে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন তাদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, টানা ছুটিতে পর্যটকের পাশাপাশি সৈকতে ঘুরাফেরা করছেন স্থানীয়রাও। পর্যটকদের সমুদ্রস্নানে নিরাপত্তা আরও জোরদার করেছেন লাইফগার্ড কর্মীরা। জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি সজাগ রয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশও।
সৈকতের বালিয়াড়ির দিকে একের পর এক ছুটে আসছে সমুদ্রের ঢেউ। আর কিছু দুরের নীল জলরাশিতে শরীর ভেজাতে ব্যস্ত ভ্রমণ পিপাসু মানুষ। পশ্চিমাকাশে সূর্য ডোবার মুহুর্তটি ক্যামেরা বন্দী করে রাখতে ভুল করছে না পর্যটকরা। পরিবারের প্রিয় মানুষটির সাথে বালিয়াড়িতে ঘোরাঘুড়ি, মেরিন ড্রাইভে ভ্রমণ, পাথুরে সৈকতে ঘুরে বেড়ানোসহ আনন্দমুখর সময় পার করছে সবাই। সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট, লাবণী ও কলাতলী বীচ পয়েন্টে হাজারো পর্যটকের মাঝে আনন্দের কমতি নেই।

কেটে গেছে আবহাওয়ার বৈরীভাব। তারপরও সাগর উত্তাল। সমুদ্রস্নানে মাঝে মাঝে ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা। তাই পর্যটকদের সতর্ক হওয়ার পাশাপাশি সাগরে নামলে জোয়ার ভাটার নির্দেশনা মেনে চলার পরামর্শ লাইফগার্ড কর্মীদের।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মাঠে কাজ করছে ভ্রাম্যমান আদালত। আর ট্যুরিস্ট পুলিশ বলছে, টানা ছুটিতে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ টানা ছুটিতে অন্তত ৫ লাখ পর্যটকের আগমন ঘটছে বলে প্রত্যাশা পর্যটন সংশ্লিষ্টদের।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
     
  
      

আরো সংবাদ