নৌকা প্রতীকের আশ্বাস পেয়ে কোটি টাকার মিশন, বিচারক-পরিবারের ভূমি দখল! - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৫ মে ২০২১ ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-২৯ ১৩:০১:০৮

নৌকা প্রতীকের আশ্বাস পেয়ে কোটি টাকার মিশন, বিচারক-পরিবারের ভূমি দখল!

নৌকা প্রতীকের আশ্বাস পেয়ে কোটি টাকার মিশন, বিচারক-পরিবারের ভূমি দখল!

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজার খুরুশকুলের তেতৈয়া এলাকার এক সিনিয়র সহকারী জজের পারিবারিক কৃষিজমি ও সামাজিক বনায়ন দখল করে প্লট বিক্রির ঘটনায় স্থানীয় সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলকে দোষারোপ করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা।

তারা বলছেন, ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এমপি কমলের মনোনয়নের আশ্বাস পেয়েই সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. কামাল উদ্দিন রাতারাতি কোটিপতি হওয়ার স্বপ্নে বিভোর। আর স্বপ্ন থেকেই বিচারক-পরিবারের জমি দখল করে তা বিক্রি করতেও দ্বিধা করেনি। কার জমি সেটা তার কাছে বড় নয়, তার দরকার টাকা আর টাকা। যে টাকায় সে মনোনয়ন বাগিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে চায়।’

কক্সবাজার সদর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মাহমদুল করিম মাদু বলেন, ‘আমার কাছে তথ্য আছে বিচারক-পরিবারের জমি দখল করে কোটি টাকার প্লট বিক্রি করেছে এ কামাল।’

তিনি বলেন, ‘সবাই বলছেন, এমপি কমল তাকে আগামী ইউপি নির্বাচনে নৌকার মনোয়ন নিয়ে দেবেন বলেছেন। এ কারণে নির্বাচনের খরচ তুলতে অন্যের জমি দখল করে প্লট বিক্রি করছে কামাল। এ টাকা কার কার পকেটে গেছে তাও তদন্ত করা প্রয়োজন।’

মাহমদুল করিম মাদু বলেন, ‘এমপি কমলের কয়েক দফা অনুরোধের পর কামালকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য করেছিলাম। দলীয় সদস্য পদ পেয়ে সে মানুষের জায়গা-জমি দখল ও বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িয়ে পড়ে। আর তাকে সবকিছুতেই আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন এমপি কমল।’

খুরুশকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় চেয়ারম্যান জসিম উদ্দীন  বলেন, ‘অসন্ন স্থানীয় নির্বাচনে এমপি কমলের কাছ থেকে ‘নৌকা’ প্রতীক মনোনয়ন পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস পেয়েছেন কামাল। মনোয়ন প্রাপ্তি ও নির্বাচনী খরচ জোগাতেই বিচারক পরিবার ও বনায়নের জমি দখল করে রাতারাতি কোটি টাকার বাণিজ্য করেছেন কামাল। একথা এখন স্থানীয়দের মুখে মুখে।’

তিনি বলেন, ‘দখলদার কামাল ও তার সহযোগীদের দাবি অনুযায়ী, তারা কথিত ৪০০ ভূমিহীন পরিবারের বসতি গড়েছে দখল করা জমিতে। আমার কাছে যে তথ্য রয়েছে প্রায় সব পরিবার থেকে দখলদারা ৪০ হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত নিয়েছেন।’ তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল।  প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কত মদদি কত কথা বলবে এসবের জবাব দেওয়ার প্রয়োজন আমি মনে করি না। শেখ হাসিনা কি কোনো নেতার কথায় মনোনয়ন দেবে?’

পরক্ষণে তিনি তার বক্তব্যের বিষয়টা এড়িয়ে যেতে অনুরোধ করে বলেন, ‘এসবের জবাব দিতে গেলে আমি তাদের সমান হয়ে যাবো। আমি তো জসিম, শাহজানকেও মনোনয়নের ক্ষেত্রে তাদের পক্ষ থাকবো বলেছি। কিন্তু মনোনয়ন তো দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

এদিকে মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর ফকিরাপুলের একটি আবাসিক হোটেল থেকে ভূমিদখলের দায়ে আলোচিত ভূমিদস্যু মো. কামাল উদ্দিন (৪০), তার ভাই শেখ কামাল মেম্বার (৩৮) ও আবু বক্কর ছিদ্দিককে (৪১) গ্রেফতার করে ডিএমপির গোয়েন্দা পুলিশ।

কক্সবাজার সদর থানার ওসি (তদন্ত) বিপুল চন্দ্র দে বলেন, ‘গ্রেফতারকৃতদের কক্সবাজারে নিয়ে আসার পর বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি কক্সবাজার সদরের খুরুশকুল ইউনিয়নের তৈতৈয়া রফিকের ঘোনা এলাকায় চট্টগ্রাম আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ কামাল উদ্দীনের পরিবারের দুই একরেরও বেশি কৃষিজমি ও কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের অধীনে বরাদ্দকৃত সামাজিক বানায়ন দখল করে ‘মুজিবনগর’ নামকরণ করে কামাল উদ্দিন ও তার সহযোগীরা। ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের আশ্রয়ন’ মর্মে ব্যানার টাঙিয়ে শতাধিক ঝুপড়িঘর নির্মাণ করে গ্রেফতার হওয়া তিনজনের নেতৃত্বে একটি চিহ্নিত ভূমিদস্যু চক্র।

দখলদারিত্ব বজায় রাখতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয়, কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমানের ছবি সম্বলিত ব্যানার টাঙিয়ে দেওয়া হয়। ব্যানারে লেখা হয়-‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার।

দখলকৃত জমির মালিক মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও ব্রিটিশ ভারতের ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের ফৌজ আর্মির সদস্য মৃত আবুল হোসেন। তিনি খুরুশকুলের তেতৈয়া এলাকার বাসিন্দা। বর্তমানে উত্তরাধিকার সূত্রে সিনিয়র সহকারী জজ কামাল উদ্দিন, হাইকোর্টের আইনজীবী বোরহান উদ্দীন রব্বানীসহ পাঁচ ব্যক্তি এসব কৃষিজমির মালিক। এখানে রয়েছে বন বিভাগের সৃজিত সামাজিক বনায়নভুক্ত জমিও। সূত্র- একুশে পত্রিকা

আরো সংবাদ