পর্যটকে মুখরিত সমুদ্র শহর, চলছে গলাকাটা বাণিজ্য - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১২-২৩ ১২:৩৪:০৪

পর্যটকে মুখরিত সমুদ্র শহর, চলছে গলাকাটা বাণিজ্য

পর্যটকে মুখরিত সমুদ্র শহর, চলছে গলাকাটা বাণিজ্য

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বছর শেষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি, আর নতুন বর্ষবরণের আমেজে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এখন পর্যটকে মুখরিত। শুক্রবার এবং শনিবার সপ্তাহিক ছুটি সাথে বাড়তি ছুটি হিসেবে যোগ হয়েছে বড়দিন। এই তিন দিনের ছুটিতে কক্সবাজারে দেশের নানা প্রান্ত থেকে আসতে শুরু করেছে পর্যটকরা। এদিকে পর্যটন মৌসুমে বিপুল সংখ্যক পর্যটকের আগমনকে কেন্দ্র করে গলাকাটা বাণিজ্যে শুরু করেছে সংশ্লিষ্টরা।

শুক্রবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্ট থেকে কলাতলী পয়েন্ট পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দেখা গেছে পর্যটকের উপড়ে পড়া ভীড়। এসব পর্যটকরা শীতের মিষ্টি রোদে বালিয়াড়িতে ছুটাছুটি আবার সমুদ্রের লোনা জলে গা ভাসাচ্ছেন। ইট পাথরের শহর থেকে বেরিয়ে পরিবার নিয়ে উন্মুক্ত একটা পরিবেশে এসে খুব ভালোই সময় কাটাচ্ছে তারা।

কক্সবাজার এসে সৈকতে মনোরম পরিবেশ উপভোগ করতে কেউ এসেছে পরিবার নিয়ে আবার কেউবা বন্ধুদের নিয়ে বের হয়েছেন ভ্রমনে। ভ্রমন আনন্দে পর্যটকদের জন্য বাড়তি নিরাপত্তা নিয়ে সন্তোষ্ট পর্যটকেরা।

বরিশাল থেকে আসা হাসান মাহমুদ জানান, পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছি। কক্সবাজারের পরিবেশ অনেকটা ভালো। রাস্তাঘাটেরও অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সৈকতের ঘুরে বেড়ানোর আনন্দনই আলাদা।

ফরিদ শাহীন নামের আরেক পর্যটক জানান, দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত ছাড়াও কক্সবাজারে অনেক পর্যটন স্পট উন্মুক্ত। যা বরাবরের মতোই প্রকৃতির ইশারায় কক্সবাজার চলে আসে মানুষ। এবার বাচ্চাদের পরীক্ষা শেষ হওয়া তিন দিনের ছুটে ভ্রমণে এসেছেন। ভালো লাগছে।

সৈকতে সী সেইফ লাইফ গার্ডের কর্মী জয়নাল আবেদীন জানান, সমুদ্র পাড়ে সকাল থেকে বেড়েছে মানুষের উপস্থিতি। বাড়তি পর্যটকের চাপ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে লাইফগাড সদস্যরা। তারপরও নিরাপত্তা নিয়ে কোনো ঘাটতি নেই তাদের। সমুদ্রে গোসলে নামতে গিয়ে যাতে কোনো দূর্ঘটনায় পড়তে না হয় সে বিষয়ে কঠোর নজরদারিতা বাড়িয়েছে সৈকতের সবকটি পয়েন্টে।
কক্সবাজার হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম সিকদার জানান, ইতোমধ্যে হোটেল-মোটেল, গেষ্ট হাউসের সব রুম বুকিং হয়ে গেছে। বিশেষ করে শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত কক্সবাজারের অধিকাংশ হোটেলে কোনো রুম নেই। যার কারনে পর্যটকরা রুম পেতে হিমশিম খাচ্ছে। হোটেল মোটেল মালিক সমিতি পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। সব মিলিয়ে বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের ম্যাজিষ্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ জানান, পর্যটকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় মাঠে রয়েছে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশের সঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান এ কর্মকতা।

তবে কক্সবাজারে পর্যটকের ভিড় বাড়লেই হোটেল-মোটেলে শুরু হয়েছে গলাকাটা বাণিজ্য। কে কত বেশি টাকা হাতিয়ে নিতে পারে সেই প্রতিযোগিতায় নেমেছে। যেন দেখার কেউ নেই! হোটেল ভাড়া নিয়ে কোন তালিকা না থাকায় অনিয়মই যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। এতে করে ঠকছে কক্সবাজার ভ্রমণে আসা পর্যটকরা। এ কারণে আগামী কক্সবাজার পর্যটন শিল্পে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

বাড়তি চাপে বিভিন্ন সময়ে বিপত্তিতে পড়তে হয়েছে আগত পর্যটকদের। পর্যটনের এই মৌসুমে বিভিন্ন স্থানে হোটেল মোটেল ও রেস্তোরাঁয় অতিরিক্ত দাম রাখার অভিযোগ রয়েছে। শুধু রেস্তোরাঁ নয়, রিকশা, নৌকা, অটোরিকশা ভাড়া, পর্যটন স্থানের বিভিন্ন দোকানের পণ্যের দামও হাঁকা হয়েছে বাড়তি। এমনকি পর্যটন কেন্দ্রের আশপাশে ভিক্ষুকের উৎপাত বেড়েছে। অপরদিকে অনেক পর্যটক হোটেল রুম বুক না করেই বিভিন্ন গন্তব্যে চলে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে কক্সবাজারের হোটেল মেটেল জোনে শতভাগ রুম বুক হয়ে গেছে। বর্তমানে কক্সবাজার বিমানবন্দরে দিনে ৪০টি ফ্লাইট চলাচল করা হয়েছে। পুরনো এই বিমানবন্দরটির টার্মিনালের অবকাঠামো ছোট হওয়ায় যাত্রীচাপ বাড়লে বাড়ে বিড়ম্বনাও।

এ বিষয়ে হোটেল বে মেরিনার ম্যানেজার রফিক উল্লাহ জানান, ১৬ ডিসেম্বরের পর থেকে থার্টি ফাস্ট নাইট পর্যন্ত কোনো রুম খালি থাকছে না। তবে বিভিন্ন কারনে দাম একটু আদায় করা হচ্ছে।

কক্সবাজার বিমানবন্দরের ম্যানেজার মো. গোলাম মোর্তজা হোসেন বলেন, ‘বিমানবন্দরের টার্মিনাল ছোট হওয়ায় যাত্রীচাপ বাড়লে স্থান সংকুলান নিয়ে চাপ সৃষ্টি হয়েছে। লম্বা ছুটির এই সময়ে যাত্রীরা যেন কোনও ভোগান্তিতে না পড়েন, এ বিষয়ে আমরা বাড়তি নজর রাখছি। নতুন টার্মিনাল ভবনের নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এটি শেষ হলে আর কোনও জটিলতা থাকবে না।
কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমান বলেন, নভেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত পর্যটন মৌসুম। এ সিজনে দেশের সব জায়গা থেকে কক্সবাজারে মানুষের চাপ বাড়ে। এ সময়ে মানুষজন যখন ছুটিতে থাকে, আমাদের সদস্যদের কোনও ছুটি থাকে না। পর্যটকদের নিরাপত্তায় সবসময় আমাদের সর্বোচ্চ নজরদারি থাকে।

উল্লেখ্য, বিশেষ করে পর্যটন শহর কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল ও রেস্টুরেন্টে বেশি চলছে এই গলাকাটা বাণিজ্য। এতে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন কক্সবাজার ভ্রমণে আসা পর্যটকেরা। শুধু পর্যটক নয়, মুনাফালোভী এসব ব্যবসায়ীদের হাত থেকে রেহাই মিলছে না স্থানীয় ভ্রমণ পিপাসুদেরও।

এমন অবস্থা চলতে থাকলে এখানকার পর্যটন শিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। শুধু তাই নয়, কক্সবাজারের হোটেল-মোটেল থেকে শুরু করে রেষ্টুরেন্টে গলাকাটা বাণিজ্যে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেককে বিরূপ মন্তব্য করতে দেখা যাচ্ছে।

আরো সংবাদ