পানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় হতাশ মহেশখালীর চাষিরা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০৩-৩০ ২০:৩৩:৫৭

পানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় হতাশ মহেশখালীর চাষিরা

পানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় হতাশ মহেশখালীর চাষিরা

কক্সবাজার :  মহেশখালীর ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি পান দেশ জুড়ে সামাদৃত। কদর সারাদেশে রয়েছে। বিশেষ করে চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মিষ্টি পান বাড়তি আকর্ষণ। এবার মহেশখালীতে পানের উৎপাদন যেমন বেড়েছে, তেমনি কিছুদিন আগে ভালো দাম পাওয়া গেলেও এখন কমে গেছে বলে জানিয়েছেন এই এলাকার পান চাষিরা। তাই ন্যায্য মূল্য নিশ্চিতের দাবি পান চাষীদের।

দুই সপ্তাহ আগেও উপজেলায় প্রতি বিড়া পান বিক্রি হয়েছে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকায়। তবে বর্তমানে রমজানে পানের দাম কমছে। বর্তমানে প্রতি বিড়া পান বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ২৫০ টাকায়। কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী এক বিড়া পান উৎপাদনে কৃষকের খরচ পড়ে ১৫০ টাকা। ফলে সে খরচ তারা তুলতে পারবেন কি না, এ নিয়ে শঙ্কা কৃষকদের। গত বছরেও এই এলাকার চাষিরা পান বিক্রি করে কিছুটা হলেও ন্যায্য মূল্য পেয়েছে। এবার লোকসানের শংকায় রয়েছেন হাজারো পানচাষি।

উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, মহেশখালীতে মিষ্টি পানের চাষ করেন প্রায় ২৭ হাজারের বেশি চাষি। ৪ হাজার একর জমিতে ছোট-বড় প্রায় ১৩ হাজার বরজ রয়েছে। চলতি অর্থবছরে (২০২৩-২৪) বরজগুলোতে প্রতি হেক্টরে ২০ টন মিষ্টি পান উৎপাদিত হয়েছে। এবার বিড়াপ্রতি বড় পান ২৫০, মাঝারি ২০০ ও ছোট পান ১৫০ টাকা দাম পাওয়া যাচ্ছে।

উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়নের বারিয়াপাড়া এলাকার গ্রামে ১০ শতক জমিতে একটি পানের বরজ করেন স্থানীয় চাষি নুরুল ইসলাম । তিনি বলেন, পানগুলো বাঁশের খাঁচায় ভরে পাশ্ববর্তী নয়া পাড়া বাজারে বিক্রি করেন। প্রথম দিকে ভালো দাম পেলেও গরম মৌসুমে এসে দাম কমেছে বলে জানান এ চাষি।
কৃষি কর্মকর্তারা জানান, মহেশখালীর সাড়ে ৩ হাজার একর পাহাড়ি জমিতে সারা বছর পান চাষ হয়। তবে সমতলের ৫০০ একর জমিতে চাষ হয় অক্টোবর থেকে মে মাস পর্যন্ত। বর্ষায় সমতলে পানি জমলে বরজের ক্ষতি হয়।

উপজেলার গোরকঘাটা, নতুনবাজার, টাইম বাজার, পানিরছড়া, কালারমারছড়া, জনতাবাজার ও শাপলাপুর বাজারে পানের হাট বসে। ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার পাইকারেরা বাজারে এসে মিষ্টি পান ক্রয় করে ট্রাক বোঝাই করে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেন। দেশের বাইরেও রপ্তানি হয় পান।

চাষিরা জানান, বরজ থেকে পান সংগ্রহের পর দু-এক দিন ধরে রাখা যায়। উপজেলায় পান সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় অনেক সময় চাষিদের বিপাকে পড়তে হয়। এছাড়া মহেশখালীতে উৎপাদিত পান স্বাদে অনন্য। এটি দেশের গন্ডি পেরিয়ে সৌদি আরব, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিকি মারমা জানান, পানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত ও চাষীদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার বিষয় নিয়ে তিনি অবগত আছেন। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানো হয়েছে। পান চাষীদের স্বার্থ রক্ষায় সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে

আরো সংবাদ