পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ডুবছে উপাচার্যদের দুর্নীতিতে! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০৪-১৫ ০৫:২১:২৪

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ডুবছে উপাচার্যদের দুর্নীতিতে!

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ডুবছে উপাচার্যদের দুর্নীতিতে!

নিউজ ডেস্ক :  উপাচার্যদের দুর্নীতিতে ডুবছে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। যোগ্যদের বাদ দিয়ে অযোগ্য ও আত্মীয়দের নিয়োগের ফলে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে ওঠেছে আত্মীয় পুনর্বাসন কেন্দ্র। এতে শিক্ষার মান পৌঁছেছে তলানিতে। উপাচার্য নিয়োগের প্রক্রিয়ায় বড় গলদ রয়েছে দাবি করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে (ইউজিসি) আরও কঠোর হওয়ার আহ্বান শিক্ষাবিদদের।

 
কম যাননি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদায়ী উপাচার্য ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ। ছেলে তানভীর আহমেদ ও ছেলের স্ত্রী ফারহানা খানমকে চিকিৎসক এবং স্ত্রী নাফিজা আহমেদের ভাইয়ের ছেলে সাব্বির হোসেনকে কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগসহ পরিবারের আরও ৭ সদস্যকে নিয়োগ দিয়েছেন তিনি।
 
রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শেখ ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. সেলিম হোসেনের বিরুদ্ধে নিয়োগ পরীক্ষার উত্তরপত্র টেম্পারিংয়ের মতো জালিয়াতির অভিযোগে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
 
 যোগ্যতা ও বয়স না থাকা সত্ত্বেও নিজের আত্মীয় ফাহিমা খানম চৌধুরী ও গাজী ফারাজসহ নিয়ম বহির্ভূত একাধিক নিয়োগের জন্য সিলেটের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য মোর্শেদ আহমেদ চৌধুরীসহ ৫৮ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক।
 
লবিং ও তদবিরের মাধ্যমে উপাচার্য পদে আসীন হওয়ার যে প্রথা তৈরি হয়েছে, সেই প্রক্রিয়াই উপাচার্যদের দুর্নীতিগ্রস্ত করছে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।
 
শিক্ষাবিদ ড. মেসবাহ কামাল সময় সংবাদকে বলেন, শিক্ষক, গবেষক বা শিক্ষা প্রশাসক হিসেবে লব্ধ অভিজ্ঞতা মূল্যায়ন না করে দলীয় বা যোগসাজশের বিবেচনায় নিয়োগ দেয়া হলে যোগ্য লোক নিয়োগ পান না। সূত্র- সময় সংবাদবিশ্ববিদ্যালয়ের সবোর্চ্চ পদে আসীন উপাচার্যদের বিবেকবোধ, সততা ও নৈতিকতা না থাকলে কেবল আইন প্রয়োগ করে উপাচার্যদের দুর্নীতির রাশ টেনে ধরা সম্ভব নয়।

 
 ইউজিসির সচিব ড. ফেরদৌস জামান বলেন,  শুধু নিয়ম-নীতি প্রতিষ্ঠা আর তদন্ত করে তাদেরকে এই পথ থেকে সরে আনা যাবে না। তাদেরকে নিজেদের বিবেক দ্বারা পরিচালিত হতে হবে।

এছাড়া অনেক সময় ইউজিসি প্রতিবেদনের আলোকে ব্যবস্থা না নেয়ায় এসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে বলে মনে করে কমিশন।

আরো সংবাদ