পালিয়ে আসা ৩ শতাধিক বিজিপি সদস্যের নতুন জটিলতায়! - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-০৮ ০৫:৪১:২২

পালিয়ে আসা ৩ শতাধিক বিজিপি সদস্যের নতুন জটিলতায়!

আশ্রয় নেওয়া বিজিপির ৩৩০ সদস্যকে কাল হস্তান্তর
নিজস্ব প্রতিবেদক :  আরাকান আর্মির সাঁড়াশি আক্রমণের মুখে প্রাণভয়ে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা তিন শতাধিক বর্ডার গার্ড পুলিশ-বিজিপি, সেনা কর্মকর্তা এবং ইমিগ্রেশন সদস্যদের নিয়ে নতুন জটিলতায় পড়তে পারে বাংলাদেশ। আশ্রিত রোহিঙ্গাদের মতোই মিয়ানমার সরকারের এসব কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা স্থায়ী হতে যাচ্ছে বাংলাদেশে। বিশেষ করে রাখাইন রাজ্যের বিশাল অংশ আরাকান আর্মি দখল করে নেওয়ায় এখন তাদের ফিরিয়ে নেওয়া অনেকটা অনিশ্চিত।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ৩ দিন ধরে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তবর্তী বান্দরবানের তমব্রæ-ঘুমধুম, কক্সবাজারের থাইংখালী-উলুবুনিয়া এলাকার একই চিত্র। বিদ্রোহী গ্রæপ আরাকান আর্মির সঙ্গে লড়াইয়ে টিকতে না পেরে দল বেঁধে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছেন মিয়ানমার জান্তা সরকারের নানা পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা। কেউ কেউ পায়ে হেঁটে সীমান্ত পাড়ি দিলেও, ৬৪ জনের একটি দল নাফনদীতে হয়ে বাংলাদেশে এসেছে।
বিজিবির তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ৩২৮ জনের মধ্যে ২৪৯ জন মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ-বিজিপি। বাকিদের মধ্যে দুজন সেনা কর্মকর্তা, চার সিআইডি, ৫ স্থানীয় পুলিশ, ৯ স্পেশাল ব্রাঞ্চের সদস্য। এছাড়া ২০ জন ইমিগ্রেশন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং চারজন বেসামরিক ব্যক্তি রয়েছেন।
মিয়ানমার সরকার তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে। তবে দেশে ফিরলে তাদের জান্তা সরকারের কঠিন শাস্তির মুখে পড়তে হবে।
এ বিষয়ে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী জানান, যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের যেতে হবে। তাদেরটা সে দেশের ব্যাপার। বাংলাদেশ কখনও অন্য দেশের কোনো কিছুর মধ্যে নাক গলায়নি। তারা সে দেশে যাওয়ার পর তাদের কঠিন বিচার হবে কি হবে না সেটা মিয়ানমার সরকারের নিজস্ব বিবেচনার বিষয়।
তবে মিয়ানমার সরকার তাদের নৌপথে ফিরিয়ে নেওয়ার কথা বললেও বর্তমান পরিস্থিতিতে সীমান্তে আরাকান আর্মির শক্ত অবস্থানের কারণে তা সম্ভব নয়।

আরো সংবাদ