পাহাড়ি জনপদে অস্ত্রের মুখে অপহরণ, মুক্তিপণে ছাড় - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-০১ ১৪:৪৩:১২

পাহাড়ি জনপদে অস্ত্রের মুখে অপহরণ, মুক্তিপণে ছাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের পাহাড়ী এলাকায় ধারাবাহিক অস্ত্রমুখে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। কোন অবস্থায় এ অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্যমতে, গত ৬ মাসে টেকনাফের পাহাড়ি এলাকা থেকে প্রায় ৭২ জনকে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে রোহিঙ্গা রয়েছে ৪০ জন। অপহরণের শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে অন্তত ৩৫ জন মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন বলে ভুক্তভোগীদের পরিবার সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার বছরখানিকের মধ্যে অপহরণকারী চক্র বেড়ে যায়। আশ্রিত রোহিঙ্গারা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন পাহাড়ের ঢালেফালে অবস্থান নিয়ে এ অপহরণ কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। এখন অপহরণকারী চক্রের হাতে রয়েছে অস্ত্রসস্ত্র। তারা রোহিঙ্গা শিবির কেন্দ্রীক জঙ্গি গোষ্ঠির সদস্য। তাদের সাথে রয়েছে স্থানীয় কিছু যুবক। তাদের সহযোগিতায় ধারাবাহিক এ অপহরণ চলছে। পাশাপাশি আইন-শৃংখলা বাহিনীর অভিযানও অব্যাহত রয়েছে।

ভুক্তভোগিরা জানান, সকাল সন্ধ্যায় জমিতে কাজ করার সময়, ভোরে মসজিদে যাওয়ার পথে, সন্ধ্যা নামলে পাহাড়ি জনপদগুলো যেনো অন্যরকম পরিবেশ তৈরি হয়। মুখোশ পরা দুর্বৃত্তের দল অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সাধারণ মানুষকে অপহরণ করে গহীন পাহাড়ে নিয়ে যায়। পরে স্বজনদের ফোনে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বলা হয় বিষয়টি কাউকে না জানাতে। তাদের দেয়া সময়ের মধ্যে মুক্তিপণ দিয়ে আক্রান্তদের ছেড়ে দেওয়া হয়। আবার মুক্তিপণ দিতে বিলম্ব হলে তাদের উপর চলে পাশবিক নির্যাতন। এভাবেই চলছে কক্সবাজারের টেকনাফের পাহাড়ি জনগণের জীবনযাত্রা।

অপহরণের শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে অন্তত ৩৫ জনকে মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়েছে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। সর্বশেষ গেল রবিবার (৩০ এপ্রিল) সকালে টেকনাফ বাহারছড়ায় পানের বরজে কাজ করার সময় স্কুল ছাত্রসহ দুইজন অপহরণের শিকার হয়েছে। এ সময় আরও দুইজনকে কুপিয়েছে অপহরণকারীরা।

গতকাল অপহরণের শিকার দুজন হলেন, ৬নং ওয়ার্ডের জাহাজ পুরার বাসিন্দা বাছা মিয়ার ছেলে রহিম উদ্দিন (৩২) ও মো. সরোয়ারের ছেলে মো. রিদুয়ান (১৯)। তারা সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা। আর আহতরা হলেন, একই এলাকার বাসিন্দা দুই সহোদর আবদুল আমিন (২৫) ও আবদুল্লাহ (১৭)।


ওসি জানান, অপহরণের ঘটনাটি জানার পর পরই পুলিশ, গ্রাম পুলিশ, গ্রামবাসীর সহায়তায় পাহাড়ে পাহাড়ে অভিযান শুরু করা হয়। এর মধ্যে সোমবার সকালে অপহৃত পরিবারের কাছে ফোন করে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণও দাবি করে় অপহরণকারীরা। 

পুলিশ বলছে, অপহরণকারীদের ধরতে কাজ করছে তারা। এর আগে গেল ১৬ মার্চ সকালে জাহাজপুরা এলাকা থেকে কলেজ শিক্ষার্থী গিয়াস উদ্দিন (১৭), রশিদ আলম (২৬), জানে আলম, (৪৫), জাফর আলম (৪০), জাফরুল ইসলাম (৩০), ফজল করিম (৩০) ও আরিফ উল্লাহ (৩০) অপহরণের শিকার হন। ১৯ মার্চ জাদিমুড়ার জুম্মা পাহাড়ি এলাকা থেকে অপহরণের শিকার হন মোহাম্মদ ছৈয়দ। ২৪ মার্চ রহমত উল্লাহ নামে আরেকজন অপহরণের শিকার হন। ২ মার্চ অপহরণের শিকার হন ৪ মার্চ ৭০ হাজার টাকায় মুক্তিপণে ফিরে আসেন টেকনাফ বাহারছড়ার মারিশবনিয়া এলাকা থেকে প্রবাসী হোসন আলীর ছেলে মো. সালমান (৫) এবং মো. আলীর ছেলে উবাইদুল্লাহ (১৩)।

গেল ২৪ এপ্রিল দুপুরে হ্নীলা দমদমিয়া ন্যাচার পার্কে ঘুরতে গিয়ে শিবিরের সি-বøকের বাসিন্দা হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. বেলাল (১৩), মোহাম্মদ ইলিয়াসের ছেলে নূর কামাল (১২), মো. উবায়দুল্লাহর ছেলে নূর আরাফাত (১২), বি বøকের মো. রফিকের ছেলে ওসমান (১৪) এবং ডি বøকের মাহাত আমিনের ছেলে নুর কামাল (১৫) অপহরণের শিকার হন। তারা ২৮ এপ্রিল মুক্তিপণ দিয়ে ফিরে আসেন।

গত ২৮ জানুয়ারি বাহারছড়া ইউনিয়নের চৌকিদার পাড়া এলাকা থেকে অপহরণ হন নুরুল আমিনের ছেলে রহমত উল্লাহ (২৫) ও আলী আকবর এর ছেলে আব্দুল হাফিজ।

৯ জানুয়ারি উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেচুয়াপ্রাং এলাকা থেকে অপহরণের শিকার আবুল হোসেনের ছেলে আব্দু সালাম, গুরা মিয়ার ছেলে আব্দুর রহমান, রাজা মিয়ার ছেলে মুহিব উল্লাহ ও রাজা মিয়ার ছেলে আব্দুল হাকিম। স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মতে, এসব অপহরণের সাথে স্থানীয় অপরাধীরা জড়িত।

বিভিন্ন সূত্রমতে জানাগেছে, টেকনাফ বাহারছড়ার জাহাজপুরা, হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গীখালী এবং হোয়াইক্যং ইউনিয়নে বারবার অপহরণের ঘটনা ঘটছে। কখনো স্থানীয় আবার কখনো রোহিঙ্গারা অপহরণের শিকার হচ্ছে। অনেকে মুক্তিপণ দিয়ে ফিরে এলেও অনেকে আর ফিরে আসেননি। এসব এলাকার কিছু চিহ্নিত অপরাধী ও জনপ্রতিনিধি এ অপরাধের সাথে সরাসরি যুক্ত রয়েছে।

বাহারছড়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য হুমায়ুন ও রফিকুল ইসলাম বলেন, আমরা শুনতে পেয়েছি, আমাদের মহিলা ইউপি সদস্য এবং ৬ নং ওয়ার্ড চৌকিদার ইসহাক অপহরণ চক্রের সাথে জড়িত। আমরা বারংবার অভিযোগ করার পরও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। এ অবস্থায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।

তারা আরও বলেন, এর আগে চৌকিদার ইসহাক অপহরণের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে কারাভোগ করেছেন। কিন্তু ইউপি সদস্য মুবিনা আক্তারকে আটক করা হয়নি। তাদের আটক করা গেলে অপহরণের সঠিক তথ্য বেরিয়ে আসবে বলেও তারা মনে করছেন। তবে ফোন রিসিভ না করায় মুবিনা আক্তারের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

অপরদিকে হ্নীলা ইউনিয়নের রঙ্গীখালী এলাকার শাহ আলম গ্রæপের মো. ইউনুস এর ছেলে ইয়াসিন আরাফাত, দিল মোহাম্মদের ছেলে সাদেক এবং বাইদুল প্রকাশ উদুল্লাহ অপহরণের সাথে জড়িত। কিন্তু তাদের অবস্থান পাহাড়ি এলাকায় হওয়ায় তাদের সহজে গ্রেপ্তার করতে পারছে না পুলিশ। স¤প্রতি গ্রæপ প্রধান শাহ আলম পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন। রয়েছে গিয়াস উদ্দিন গ্রæপ নামে আরও একটি গ্রæপ। স¤প্রতি অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছেন গিয়াস উদ্দিন। স্থানীয় এ চক্রের সঙ্গে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের যোগ সংযোগ রয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের। গেল ৬ মাসে এসব ইউনিয়ন থেকে কৃষক ও ছাত্রসহ ৬২ জন অপহরণের শিকার হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৩৪ জন স্থানীয় বাসিন্দা, বাকি ২৮ জন রোহিঙ্গা।

আহতদের বরাত দিয়ে বাহারছড়া ইউপির ৬ নং ওয়ার্ড সদস্য রফিকুল ইসলাম ভুক্তভোগীদের বরাত দিয়ে বলেন, প্রতিদিনের মতো গেল রবিবার সকালে পাহাড়ের পাদদেশে পানের বরজে কাজ করতে যান তারা চারজন। এ সময় কয়েকজন অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে তাদের অপহরণের চেষ্টা করলে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি ও ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীদের কোপ খেয়ে দুইজন পালিয়ে এলেও অপর দুজনকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে পাহাড়ে নিয়ে যায়।

অপহরণের শিকার স্কুল শিক্ষার্থী রিদুয়ানের পিতা সওয়ার আলম বলেন, পানের বরজে কাজ করা অবস্থায় আমার ছেলেসহ দুইজনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এখন মুক্তিপণ দাবি করছে ৫ লাখ টাকা। কিন্তু এতো টাকা আমি কিভাবে দিবো। আমি ছেলে উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের আন্তরিক সহায়তা কামনা করছি।

অপহরণকারীদের হাতে আহত আমিন ও আব্দুল্লাহ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তারা প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, সন্ত্রাসীরা সবাই মুখোশ পরা ছিল। তাদের হাতে বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র ছিল। কোনো রকমে আমরা পালিয়ে আসতে পারলেও রহিম উদ্দিন ও রিদুয়ানকে ধরে নিয়ে গেছে। ধারালো অস্ত্রের কোপে আমরা হাতে ও মাথায় আঘাত পেয়েছি।

এ বিষয়ে বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক মশিউর রহমান বলেন, জাহাপুরা পাহাড়ি এলাকায় কিছু বসতি আছে। তারা পানের বরজ, সুপারি, সবজি বাগান করে। বাগান পরিচর্যার জন্য গেলে অপহরণের শিকার হন। তাদের উদ্ধারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এ অপহরণ কান্ডে স্থানীয় কিছু চক্র জড়িত আছে বলে আমরা শুনেছি। তাদের চিহ্নিত করার পাশাপাশি অভিযোগের তদন্ত করা হচ্ছে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে ভুক্তভোগী কেউ সহজে পুলিশকে তথ্য দিতে চায় না।

হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ মো. আলী বলেন, গেল কয়েক মাসে আমার এলাকা থেকে অন্তত ২০ জন অপহরণের শিকার হয়েছেন। রঙ্গীখালী এলাকায় কিছু অপরাধী রয়েছে। তাদের সাথে রোহিঙ্গাও জড়িত। এসব অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা গেলে অপহরণসহ সব ধরনের অপরাধ কমে আসবে। কিন্তু শৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও কঠোর হতে হবে।

টেকনাফ থানার ওসি আব্দুল হালিম বলেন, যেহেতু এলাকাগুলো দুর্গম, তাই কৃষকদের আমরা বলেছিলাম, তারা যেন পাহাড়ি এলাকায় সংঘবদ্ধ থাকে। কিন্তু তারা বিষয়টি আমলে না নিয়ে যে যার মতো কাজে যায়। আর সুযোগ বুঝে তাদের অপহরণ করে অপরাধীরা। এতে আমদেরও বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। তারপরও আমাদের সীমাবদ্ধতার মাঝে অপহরণকারীদের চিহ্নিত করে কিভাবে অপরাধ নির্মূল করা যায় তা নিয়ে আমরা কাজ করছি।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম বলেন, অপরাধীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আমরা সকল তথ্য উপাত্ত নিয়ে খুব শীঘ্রই পাহাড়ে অভিযান পরিচালনা করবো। তবে দুর্গম পাহাড়ী এলাকা হওয়ায় কাজ করা আমাদের জন্য দুরূহ হয়ে পড়ছে।

আরো সংবাদ