পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাবারের সহজলভ্যতা জরুরি : পুষ্টি বিষয়ক জাতীয় সভায় অভিমত - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-১২ ১৫:১১:২৪

পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাবারের সহজলভ্যতা জরুরি : পুষ্টি বিষয়ক জাতীয় সভায় অভিমত

পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাবারের সহজলভ্যতা জরুরি : পুষ্টি বিষয়ক জাতীয় সভায় অভিমত
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক :  দেশের কিশোর-কিশোরীদের অংশগ্রহণে ‘ভালো খাবো, ভালো থাকবো’ ব্যাতিক্রমী ক্যাম্পেইন পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাবার গ্রহণে উৎসাহিত করতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তবে সমস্যা হচ্ছে স্কুল বা কলেজ প্রাঙ্গনে পুষ্টিকর খাবার সহজলভ্য না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা ইচ্ছা করলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পুষ্টিকর খাবার খেতে পারেন না।

সম্প্রতি রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত পুষ্টি বিষয়ক জাতীয় সভায় অংশ নিয়ে কিশোর-কিশোরীরা এই অভিমত তুলে ধরেন। এর সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেন তারকা অভিনেত্রী জয়া আহসান। পুষ্টি বিষয়ক এই জাতীয় সভার আয়োজন করে ন্যাশনাল নিউট্রিশন সার্ভিস (এনএনএস)। এতে সহযোগী হিসেবে ছিল সুইজারল্যান্ডভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা গেøাবাল অ্যালায়েন্স ফর ইসপ্রæভড নিউট্রিশন (গেইন)

প্রায় ১০ লক্ষের অধিক কিশোর-কিশোরীদের শপথ গ্রহণে চলমান এই ক্যাম্পেইন ইতিমধ্যে দেশব্যাপী বেশ সাড়া জাগিয়েছে। তারই ধারাবাহিক অংশ হিসেবে এই সভার আয়োজন করা হয়। ক্যাম্পেইনে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণে সচেতনতার পাশাপাশি খাদ্য অধিকার, খাদ্য নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যগত উন্নয়ন বিষয়টিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়। যা টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে (এসডিজি) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন ন্যাশনাল নিউট্রিশন সার্ভিস (এনএনএস)-এর লাইন ডিরেক্টর ড. এস এম মোস্তাফিজুর রহমান, বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক আনিসুল হক, ইনফোলেডি সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড (আইসোশ্যাল) এর প্রধান নির্বাহী অনন্য রায়হান, গেইন বাংলাদেশ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ডা. রুদাবা খন্দকার, বাংলাদেশ ইনসিটটিউট অব আইসিটি ইন ডেভলপমেন্ট (বিআইআইডি)-এর প্রধান নির্বাহী শহীদ উদ্দিন আকবরসহ সংশ্লিষ্টরা।

কিশোর-কিশোরীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন ইউনাইটেড ন্যাশন ফুড সিস্টেম সামিট (ইউএনএফএসএস) অ্যাকশন ট্র্যাক -১ এর ইয়ুথ লিডার ও গেইনের ‘ভালো খাবো, ভালো থাকবো’ ক্যাম্পেইন এর প্রতিনিধি দীপ্তি চৌধুরী।

আলোচনায় অংশ নিয়ে আনিসুল হক বলেন, পুষ্টিকর খাবার গ্রহণে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। সচেতনতার অংশ হিসেবে কিশোর-কিশোরীদের অংশ গ্রহণে এই ক্যাম্পেইন সেদিক থেকে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি কিশোর-কিশোরীদের উদ্দেশ্যে বলেন, রোগ প্রতিরোধে ফলের বিকল্প নেই। তাই বিভিন্ন ঋতুতে যেসব ফল পাওয়া যায় সে অনুযায়ী আমাদের সব ধরণের ফল খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

জয়া আহসান বলেন, উজ্জ্বল ক্যারিয়ার করতে হলে ছোটবেলা থেকেই নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। যা শারীরিক ও মানসিক উৎকর্ষ সাধনে বড় ভূমিকা রাখবে।

তিনি কিশোর-কিশোরীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে বলেন, এটা ঠিক ছাত্র-ছাত্রীরা চাইলেও অনেক ক্ষেত্রে পুষ্টিকর খাবার খেতে পারেন না। তাই স্কুল, কলেজ, বিশ^বিদ্যালয় এলাকায় পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাবারের সহজলভ্যতা নিশ্চিত করতে হবে।

এস এম মুস্তাফিজুর রহমান কোভিড-১৯ সহ অন্যান্য রোগের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের উপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন।

অনন্য রায়হান এই ক্যাম্পেইনকে কোভিড-১৯ এর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ‘নতুন সম্ভাবনা’ হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, কিশোর-কিশোরীদের অংশগ্রহণে উৎসাহিত হয়ে অনেক অভিভাবকও বাড়ি বাড়ি গিয়ে এর পক্ষে জোরালো প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন।

ডা. রুদাবা খন্দকার বলেন, পুষ্টিকর খাবারকে এখন বাড়তি সুবিধা হিসেবে দেখা ঠিক হবে না। এটা আমাদের মৌলিক অধিকার। স্বয়ং জাতির পিতা সংবিধানে এই অধিকার নিশ্চিত করেছেন।

দীপ্তি চৌধুরী স্কুল-কলেজ পর্যায়ে পুষ্টিকর খাবারকে সহজলভ্য করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোরালো আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে আলোচকগণ নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণে ব্যক্তিগত সচেতনতার পাশাপাশি সমন্বিত উদ্যোগে খাবারের পুষ্টি মান বজায় ও নিরাপদ খাদ্যের পর্যাপ্ত প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণের বিশেষ তাগিদ দেন।

আরো সংবাদ