পেকুয়ায় স্লুইচ গেট বন্ধ করে জলাবন্ধতা সৃষ্টির অভিযোগ - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-১০ ০৩:৩৮:০৬

পেকুয়ায় স্লুইচ গেট বন্ধ করে জলাবন্ধতা সৃষ্টির অভিযোগ

পেকুয়ায় স্লুইচ গেট বন্ধ করে জলাবন্ধতা সৃষ্টির অভিযোগ
Spread the love

পেকুয়া প্রতিনিধি :  কক্সবাজারের পেকুয়ায় প্রবাহমান খালের স্লুইচ গেট বন্ধ করে দিয়ে জলাবন্ধতা ও ২০ লাখ টাকার পোনা মেরে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও রুকুর খালে বাঁধ দিয়ে পানি প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে টাকা দাবী করতেছে অসহায় মৎস্যচাষীদের কাছ থেকেএমন অভিযোগে বুধবার (৯ জুন) সাধারণ মৎস্য চাষীরা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সরকারের  বিভিন্ন দপ্তরে। অভিযোগে তারা উল্লেখ করেন, খালের উপর বাঁধ দিয়ে পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতাসহ জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করায় প্রায় ২০লাখ টাকার চিংড়ি পোনা মারা যায় মৎস্য চাষীদের। এ মৎস্য চাষ করতে গিয়ে কৃষি ব্যাংকসহ বিভিন্ন অর্থলগ্নি প্রতিষ্টান হতে ঋণ গ্রহণ করেছেন।

বিপুল পরিমাণ ক্ষতির আশংকায় মৎস্য চাষী নুরুল আজিম, নুরুল ইসলাম, বখতিয়ার উদ্দিন ও জাফর আলম বলেন, পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের বেংখল ঘোনাটির মৎস্য প্রজেক্টের কাজ শুরু করেছিল আবু ছৈয়দ, মোস্তাক, মকছুদসহ বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসী। ইতোমধ্যে জয়নালকে তারা নির্মমভাবে হত্যা করলে এলাকা ছাড়া হওয়ার পর জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের নাম দিয়ে মৎস্য ঘেরটি মমতাজ ও রোকনসহ আরো কয়েকজন ব্যক্তি দখল করে নেয়। ওই প্রজেক্টের পাশে রুকুর খাল সংলগ্ন এলাকায় বিভিন্ন মালিক থেকে চাষীরা ১শ একরের প্রজেক্ট নিয়ে চাষ শুরু করেন। তাদের পানি নিস্কাশনের একমাত্র ব্যবস্থা রয়েছে বেংখল ঘোনার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত প্রবাহমান খালটি।

প্রবাহমান রুকুর খালটি মগনামা লঞ্চঘাটের স্লুইচ গেট দিয়ে পানি বের হত। খালের উপর নির্মিত ৪টি নাসি বন্ধ করে দেন মমতাজ ও রুকন নামে ব্যক্তিরা। যার কারণে পানি চলাচল বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় তাদের ব্যাপক ক্ষতির দিকে পতিত হচ্ছে।তাদের এ অবৈধ কাজের প্রতিবাদ করায় মারধরসহ জানে মেরে ফেলার প্রকাশ্যে হুমকি দিচ্ছে।

এমনকি এলাকার সাধারণ মৎস্যচাষীদের মাঝে ভীতি সৃষ্টি করার জন্য প্রতিনিয়ত গভীর রাতে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে রুকন ও মমতাজসহ তাদের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা। এতে সাধারণ চাষীরাসহ এলাকাবাসীদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে যেকোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা পরিলক্ষিত হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ত্বরিৎ ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে প্রাণহানির মত ঘটনা ঘটতে পারে বলে স্থানীয়দের অভিমত।

ভুক্তভোগীরা তাদের ক্ষতি থেকে বাঁচতে জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরো সংবাদ