প্রতিকূল আবহাওয়ায় কমেছে লবণের উৎপাদন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-০৩ ২০:০৫:১৬

প্রতিকূল আবহাওয়ায় কমেছে লবণের উৎপাদন

প্রতিকূল আবহাওয়ায় কমেছে লবণের উৎপাদন

বিশেষ প্রতিবেদক :  প্রতিকূল আবহাওয়ায় দেশে ব্যাহত হচ্ছে লবণ উৎপাদন। প্রতি মাসে ২ লাখ টনের বেশি চাহিদার বিপরীতে গত তিন মাসে উৎপাদন হয়েছে মাত্র ২ লাখ ৮ হাজার ৫৫২ টন। এমন প্রেক্ষাপটে সম্প্রতি এক লাখ টন লবণ আমদানির অনুমতি দেয়ায় ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় চাষিরা। ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে লবণের দাম মণপ্রতি কমেছে দেড়শ’ থেকে দুইশ’ টাকা।

কক্সবাজার লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল ভূঁইয়া বলেন, ‘চলতি মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কিছুটা দেরিতে মাঠে নেমেছেন লবণ চাষিরা। এর উপর সম্প্রতি উৎপাদন প্রক্রিয়ায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে ঘন কুয়াশা ও পর্যাপ্ত রোদের অভাব। এতে উৎপাদন কমেছে স্বাভাবিকভাবেই।’
সদর উপজেলার ইসলামপুরের লবণ চাষী নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘উৎপাদন ভালো হচ্ছে না। কারণ আবহাওয়া এখন অনেক খারাপ। প্রতিদিন রোদ ওঠে না। তার জন্য লবণের দামও একটু কমে গেছে। আর লবণ উৎপাদনে অনেক অনেক টাকা খরচ হয়।’
চৌফদন্ডী এলাকার লবন চাষী মো: ফারুক বলেন, ‘গত মৌসুমের এই সময়ে মাঠ পর্যায় প্রতিমণ লবণ ৬শ’ টাকায় বিক্রি হলেও বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৪শ’ থেকে সাড়ে৪শ’ টাকায়। দালাল, ফড়িয়ারা আর একটু বেশি দামে এ লবণ বিক্রি করছে মিল মালিকদের কাছে। এমন পরিস্থিতিতে দরপতন ঠেকাতে নতুন করে আমদানির অনুমতি না দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই।’

তবে মিল মালিকদের দাবি, আমদানির পরও চাষিরা বর্তমানে যে দাম পাচ্ছেন তাতে চাষিদের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা নেই।
ইসলামপুর লবণ মিল মালিক সমবায় সমিতি’র সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম বলেন, ‘গত বছর এসময় মোটামুটি লবণ উৎপাদন ভালো হয়েছিল। এবছর আবহাওয়া একটু খারাপ হওয়ার কারণে আমাদের উৎপাদন একটু পিছনে যাচ্ছে। এখন এক মণ লবণ ৫৫০ টাকা দিয়ে কিনছি। যদি মৌসুমটা ভালো হতো চাষিরা আরও লাভবান হতো।’

লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয় সূত্র বলছে, ২০২২-২৩ অর্থবছরে দেশে লবণ উৎপাদন হয়েছিল ২২ লাখ ৩৩ হাজার টন। আর ২০২১-২২ অর্থবছরে ১৮ লাখ ১৫ হাজার ১৫৬ টন। আর চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে লবণের চাহিদা নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ লাখ ২৮ হাজার টন। উৎপাদনের মৌসুম ধরা হয় নভেম্বর থেকে মে পর্যন্ত সময়কালকে। তাই আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চাহিদার বেশি লবণ উৎপাদন সম্ভব হবে মনে করছে উন্নয়ন কার্যালয়। তবে লবণের দরপতন ঠেকাতে উৎপাদনের সাথে সাথেই বিক্রির বদলে সংরক্ষণ করে বিক্রির পরামর্শ কর্মকর্তাদের।

কক্সবাজার লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা আশা করছি সামনে যে আমাদের মূল মৌসুম, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে মার্চ এপ্রিল, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আমরা আমাদের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাবো।’
তিনি আরও বলেন, ‘যখন উৎপাদন বাড়তে শুরু করে, তখন স্বাভাবিক বাজারে দামটা কিছুটা কমে যায়। চাষিদের পরামর্শ দেই যে, আপনারা লবণগুলো তুলে একসাথে বাজারে বিক্রি না করে রেখে রেখে বিক্রি করেন।’
চাষিদের অভিযোগ, প্রতি বছর লবণ মৌসুমে দেশে চাহিদার বেশি উৎপাদন হলেও বিদেশ থেকে আমদানির পাঁয়তারা করে একটি পক্ষ।
তবে এ বিষয়ে সরকার সচেতন রয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল ভূঁইয়া। তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনের বাইরে সামান্য লবণও আমদানি করার অনুমতি দেওয়া হবে না। সরকার লবণ চাষিদের স্বার্থ রক্ষায় অত্যন্ত আন্তরিক।’
লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয়ের তথ্যমতে, গত মৌসুমে কক্সবাজারের ৯ উপজেলা ও চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার ৬৬ হাজার ৪২৪ একর জমিতে লবণ চাষ করেছিলেন ৩৯ হাজার ৪৬৭ জন চাষি।

আরো সংবাদ