প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা  : বনাঞ্চল ধ্বংস করে এডমিন একাডেমি নয় - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৯-১২ ১৩:০০:০৪

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা  : বনাঞ্চল ধ্বংস করে এডমিন একাডেমি নয়

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা : বনাঞ্চল ধ্বংস করে এডমিন একাডেমি নয়
Spread the love

বার্তাপরিবেশক : ৭০০ একর বনভূমি ধ্বংস করে কক্সবাজারে সিভিল সার্ভিস একাডেমি করার উদ্যোগ বাতিলের দাবিতে বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন এর ব্যানারে এ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে ২০টি পরিবেশবাদী ও সামাজিক সংগঠন অংশ গ্রহণ করে।

উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকার যেখানে বেহাত বনভূমি উদ্ধারের চেষ্টা করছে, সেখানে সরকারি সংস্থা যদি বনভূমি ইজারা নেয়, তাহলে বনভূমি রক্ষা হবে কীভাবে? তাই এডমিন একাডেমির নামে কক্সবাজারে দেয়া ৭০০ একর বনভূমির বন্দোবস্ত পরিবেশ, প্রতিবেশ, জীববৈচিত্র্য এবং পর্যটনের সৌন্দর্য রক্ষার স্বার্থে বাতিল করতে হবে। প্রকৃতির পেরেক পাহাড়, জীববৈচিত্র্য, সংরক্ষিত বনভূমি ও সবুজ প্রকৃতি ধ্বংস করে কিসের এডমিন একাডেমি? আমাদের গায়ের রক্ত থাকতে কক্সবাজারের মাটিতে এমন কোনো সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হতে দেব না। পরিবেশ রক্ষায় গড়ে তোলা হবে তীব্র প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ।

বক্তারা আরও বলেন, কক্সবাজারের শুকনাছড়ি এলাকাটি প্রতিবেশগতভাবে সংকটাপন্ন। বিপন্ন প্রায় বন্য প্রাণীর নিরাপদ বিচরণ এই বনভূমি। এমন একটি বনভূমিতে কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ একাডেমি নির্মাণের যে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার, তা স্পষ্টত আইন বিরোধী এবং পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের জন্য চরম হুমকি স্বরূপ। তাই এডমিন একাডেমির নামে দেয়া অবৈধ বন্দোবস্ত বাতিল করতে হবে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন এর কক্সবাজারের সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১৯৯০ সালে জারি করা ভূমি মন্ত্রণালয়েরই একটি পরিপত্রে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড় ও পাহাড়ের ঢাল বন্দোবস্তযোগ্য নয় এবং ওই জমি মূলত বনবিভাগ বনায়নের জন্য ব্যবহার করবে। বন আইন অনুযায়ী, এ ধরনের রক্ষিত বনে কোনো ধরনের স্থাপনা করা নিষিদ্ধ।

এরপরও ভূমি মন্ত্রণালয় দেশের অন্যতম জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ সংরক্ষিত এ বনভূমিকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে খাসজমি হিসেবে দেখিয়েছে। ঝিলংজা মৌজার এ বনভূমি যে খাসজমি নয়, এটা সরকারি নথিতেও রেকর্ডেই আছে। ভূমি মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব মালিকানাধীন ছাড়া যেকোনো জমি কাউকে দিতে হলে তা আগে অধিগ্রহণ করতে হবে। ভূমি মন্ত্রণালয় তো এ ধরনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি, বরং ৪ হাজার ৮০০ কোটি টাকা মূল্যের ৭০০ একর জমি মাত্র ১ লাখ টাকায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে দিয়েছে। ভূমি মন্ত্রণালয়ের এ ধরনের কাজে রাষ্ট্রের বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

সরকারি কর্মচারীরা যথেচ্ছভাবে ক্ষমতা, সরকারি অর্থ ও সম্পদের ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে উঠছেন। দুর্নীতি ও অনিয়মের নতুন নতুন পথ নির্মাণ করছেন। কক্সবাজার নতুন প্রশাসন একাডেমি এমন আরেকটি উদ্যোগ মাত্র। জনগণের অর্থের অপচয় ও বিশাল একটি বন নষ্ট করা ছাড়া এ থেকে আর কোনো ফল মিলবে না।

বাপা কক্সবাজারের সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, কক্সবাজার আজকাল লুটপাটের গুদাম হয়ে গেছে। সমুদ্র সৈকত দ্বিখÐিত করা হয়েছে। উন্নয়নের নামে মাতারবাড়ি দখল চলছে। চতুর্দিকে আমরা ঘেরাও হয়ে গেছি।

তিনি বলেন, পাহাড় ধ্বংস করে সিভিল সার্ভিস একাডেমি মেনে নেয়া হবে না। কক্সবাজারের পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষায় আমরা ঐক্যবদ্ধ। আর কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। লিজ বাতিল না করলে সর্বস্তরের জনগণকে নিয়ে লিজ প্রতিহত করা হবে।

বাপা কক্সবাজারের সাধারণ সম্পাদক কলিম উল্লাহর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মুহম্মদ নুরুল ইসলাম, কক্সবাজার পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম, ইয়ুথ এনভায়রনমেন্ট সোসাইটির প্রধান নির্বাহী ইব্রাহিম খলিল মামুন, বাপা কক্সবাজারের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ১২ সামাজিক সংগঠনের সমন্বয়ক এইচএম নজরুল ইসলাম , জনসুরক্ষা মঞ্চ কক্সবাজারের সাধারণ সম্পাদক ইমাম খাইর, কক্সবাজার রোহিঙ্গা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মাহাবুবুর রহমান, জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি ইসমাইল সাজ্জাদ, বাপা নেতা শহীদুল্লাহ্ মেম্বার, মো. নেজাম উদ্দিন, কল্লোল দে চৌধুরী, দোলন ধর, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি শামসুল আলম প্রমুখ।

আরো সংবাদ