ফিরলেন মহানায়ক মুক্ত স্বদেশে - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২২-০১-১০ ১৩:০১:১৬

ফিরলেন মহানায়ক মুক্ত স্বদেশে

ফিরলেন মহানায়ক মুক্ত স্বদেশে
Spread the love

নিউজ  ডেস্ক :   দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধ করে একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানিদের পরাজিত এবং আত্মসমর্পণে বাধ্য করে মুক্তিযোদ্ধারা। বিজয় নিশ্চিত হয় বাংলাদেশের মানুষের। কিন্তু স্বাধীনতার মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তখন পাকিস্তানের কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে। পাকিস্তানিরা তাকে ফাঁসিতে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করছিল। কিন্তু সারাবিশ্বের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকামী মানুষের চাপে পাকিস্তান বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

পাকিস্তান সরকার বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ভুট্টো চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুকে ইরান বা তুরস্কে পাঠিয়ে দিতে। কিন্তু বঙ্গবন্ধু লন্ডন ছাড়া অন্য কোন দেশে যেতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন। পরে তাকে লন্ডন পাঠাতে বাধ্য হয় পাকিস্তান।

অনেক নাটকীয় ঘটনার পর পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে একাত্তরের ৭ জানুয়ারি রাতে পিআইয়ের একটি বিশেষ বিমানে বঙ্গবন্ধুকে লন্ডন পাঠানো হয়। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আইনজীবী কামাল হোসেনকেও পাঠানো হয়। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলী ভুট্টো রাওয়ালপিন্ডি বিমানবন্দরে বঙ্গবন্ধুকে বিদায় জানান। বঙ্গবন্ধু শর্ত দিয়েছিলেন তিনি যে লন্ডন যাচ্ছেন তা তার লন্ডন পৌঁছার আগে প্রকাশ করা যাবে না। সে অনুযায়ী তার লন্ডন যাত্রা গোপন রাখা হয়, বলা হয় বিমানটি পিআইএ’র ‘স্ট্রাটেজিক কার্গো ফ্লাইট’।

৮ জানুয়ারি সকালে লন্ডনে হিথ্রো বিমানবন্দরে অবতরণ করে বঙ্গবন্ধুকে বহনকারী বিমান। এর কিছু সময় আগে সে যে বিমানে লন্ডনে যাচ্ছে তা ব্রিটিশ সরকারকে জানানো হয়। ৮ জানুয়ারি সকালে বিবিসি বেতারে বঙ্গবন্ধুর লন্ডন পৌঁছার খবর প্রচার করা হয়। রেডিও পাকিস্তানের খবরে বলা হয়, পাকিস্তান সরকারের চার্টার্ড করা বিশেষ বিমানে শেখ মুজিব পাকিস্তান সময় ভোর তিনটায় রাওয়ালপিন্ডি ত্যাগ করেছেন।

বঙ্গবন্ধুর লন্ডন যাওয়ার পর বিবিসির খবর প্রচারের পর বাংলাদেশের মানুষ জানতে পারে, মহানায়ক তার নিজ দেশে ফিরে আসছেন।

লন্ডনে হিথ্রো বিমানবন্দরে বঙ্গবন্ধুকে স্বাগত জানান ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তা ইয়ান সাদারল্যান্ড এবং লন্ডনে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার আপা বি পন্থ। একই সময়ে বিবিসির খবর শুনে লন্ডনে প্রবাসী বাঙালিরা দলে দলে হিথ্রো বিমানবন্দরে ছুটে যেতে থাকে।

লন্ডনে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যাওয়া হয় ক্ল্যারিজ হোটেলে। প্রবাসী বাঙালিরা সে খবরও পেয়ে যায় প্রায় সঙ্গে সঙ্গে। এরপর শুরু হয় ক্ল্যারিজ হোটেল অভিমুখে প্রবাসীদের স্রোত। তারা ক্ল্যারিজ হোটেলে চারপাশে সমবেত হয়ে মুহুর্মুহু জয় বাংলা স্লোগানে পুরো এলাকা প্রকম্পিত করে তোলে। বঙ্গবন্ধু কিছুক্ষণ পরপর হোটেলের রুম থেকে জানালার কাছে এসে হাত নেড়ে জনতাকে অভিনন্দন জানান। ক্ল্যারিজ হোটেলের আশপাশে সমবেত জনতার ঢল সামলাতে হিমশিম খেতে হয় ব্রিটিশ পুলিশকে।

৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু লন্ডনে ব্যস্ত সময় কাটান। সেদিন তিনি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হীথের সঙ্গে বৈঠক করেন, বিরোধী দলীয় নেতা হ্যারল্ড উইলসন হোটেলে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করেন। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী টেলিফোনে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কথা বলেন। ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধুকে ঢাকায় ফেরার পথে দিল্লীতে যাত্রা বিরতি করার অনুরোধ জানান। তিনি বঙ্গবন্ধুকে ঢাকায় নিয়ে যেতে ভারত থেকে লন্ডনে বিশেষ বিমান পাঠানোরও ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কিন্তু পরে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হীথ নিজে ব্রিটিশ রয়েল এয়রফোর্সের বিমানে বঙ্গবন্ধুকে দিল্লী হয়ে ঢাকায় পাঠানোর প্রস্তাব করলে বঙ্গবন্ধু রাজি হন। এভাবেই ৮ জানুয়ারি দিন কেটে যায়।

বঙ্গবন্ধু দেশের উদ্দেশে ৯ জানুয়ারি ব্রিটিশ এয়ার ফোর্সের বিমানে চড়ে দিল্লীর পথে যাত্রা করেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ছিলেন ড. কামাল হোসেন ও তার স্ত্রী হামিদা হোসেন। তবে তার এ যাত্রা অত্যন্ত গোপন রাখা হয় নিরাপত্তার কারণে।

লন্ডন থেকে বিমানে তার সহযাত্রী হন ভারতের কূটনীতিক শশাঙ্ক ব্যানার্জী ও ভেদ মারওয়া। ভারতীয় বাঙালি শশাঙ্ক ব্যানার্জী এর আগে ঢাকায়ও ভারতীয় দূতাবাসে কাজ করেছেন। সে কারণে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার পরিচয় ছিল। বিমানে তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে অন্তরঙ্গ কথা বলেন। তিনি সে সময়ের স্মৃতিচারণ করে বই লিখেছেন।

বিমানে বঙ্গবন্ধু ও শশাঙ্ক ব্যানার্জী পাশাপাশি আসনে বসলেন। সামনের টেবিলে বঙ্গবন্ধুর প্রিয় সুগন্ধময় এরিনমোর তামাক, আর সেই বিখ্যাত পাইপ রাখা ছিল। আবেগাক্রান্ত বঙ্গবন্ধু বলে উঠলেন, ‘স্বাধীন বাংলাদেশ, আমার বাংলাদেশ।’

বঙ্গবন্ধু শশাঙ্ক ব্যানার্জীর দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘ব্যানার্জি, এবার একটি বিশেষ সহযোগিতা চাই।’ শশাঙ্ক বললেন, ‘আয়ত্তের মধ্যে হলে অবশ্যই চেষ্টা করব।’ বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘দিল্লিতে ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকের আগেই তার কাছে একটি খবর পৌঁছানো দরকার। বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় মিত্রবাহিনী সদস্যদের ৩১ মার্চ ১৯৭২ সালের মধ্যে ভারতে ফেরত পাঠানোর বিষয়টি চূড়ান্ত করতে হবে।’ বঙ্গবন্ধু বললেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার এ বিষয়ে কথা হয়েছে। ভারতীয় বাহিনী চলে গেলে বাংলাদেশ ব্রিটিশ সরকারের স্বীকৃতি পেতে আর কোন বাধা থাকবে না।

বঙ্গবন্ধু জানালা দিয়ে বিমানের বাইরে সাদা মেঘের দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকেন। একটু পর দাঁড়িয়ে গাইতে শুরু করলেন, ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’। এ সময় বঙ্গবন্ধুর চোখে পানি এসে যায়। বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘ব্যানার্জি, আপনিও গানটা ধরুন। রিহার্সেল দিয়ে নিই।’ দুজনে মিলে গানটা গাইলেন। বঙ্গবন্ধু চোখের পানি লুকানোর চেষ্টা করে বললেন, ‘এ গানটি হবে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত। কেমন হবে বলেন তো?’ শশাঙ্ক জবাব দিলেন, ‘ইতিহাসে তাহলে প্রথমবারের মতো দুটি দেশের জাতীয় সংগীতের লেখক হবেন একই ব্যক্তি, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।’

বিমানের যাত্রাপথে বঙ্গবন্ধুকে কলকাতা হয়ে দেশে ফেরার অনুরাধ জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থশঙ্কর রায় বার্তা পাঠান। কলকাতাবাসী বঙ্গবন্ধুকে দেখতে চায়। তিনি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ফিরতি বার্তায় জানালেন, স্বাধীনতাসংগ্রামে কলকাতাবাসীর সহযোগিতা তাকে কৃতজ্ঞ করেছে। কিন্তু ঢাকা ফিরতে তার তর সইছে না। তবে শীঘ্রই তিনি কলকাতা আসবেন। বার্তা পাঠিয়ে বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘পথ তো মনে হয় ফুরাতে চাইছে না। স্বাধীন বাংলাদেশের মুক্ত আকাশ, মানুষ, প্রকৃতি আমাকে ডাকছে। এ যে কী অনুভূতি, আমি বোঝাতে পারব না!’

দিল্লিতে বঙ্গবন্ধুকে স্বাগত জানান ভারতের রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি, প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সর্দার সরণ সিংসহ আরও অনেকে। ২১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে স্বাগত জানানো হয়। তিন বাহিনীর ১৫০ সদস্যের গার্ড অব অনার পরিদর্শন করেন বঙ্গবন্ধু। পরে জনসমাবেশে ইন্দিরা গান্ধী ও বঙ্গবন্ধু সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেন। ২০টিরও বেশি দেশের কূটনীতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি ভবনে বঙ্গবন্ধুকে কলকাতা থেকে আনা গুড়ের সন্দেশ, সমুচা, শিঙ্গাড়া আর দার্জিলিং চা দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়। এ সময় ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর বৈঠক হয়। বৈঠকে অন্য বিষয়ের মধ্যে তিন মাসের ভেতর বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় সৈন্য ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারেও আলোচনা হয়।

১০ জানুয়ারি ১৯৭২। দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে বিমান থেকে ঢাকায় নামলেন স্বাধীন বাংলাদেশের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জনস্রোত আর মানুষের সেøাগানে মুখরিত চারপাশ। সোচ্চার ধ্বনি উঠছে, ‘জয় বাংলা’, ‘জয় বঙ্গবন্ধু’, ‘জয় মুক্তিযুদ্ধ’। সে এক অভূতপূর্ব পরিবেশ, অভূতপূর্ব মুহূর্ত। চারদিকে মানুষের মধ্যে বঙ্গবন্ধুকে ফিরে পাওয়ার আনন্দ-উল্লাস।

ঢাকায় অবতরণের আগে বিমান থেকে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখতে চেয়েছিলেন। এজন্য বিমানটি রানওয়ে স্পর্শ করার আগে ঢাকার আকাশে প্রায় ৪৫ মিনিট বিমানবন্দরের উপর চক্রাকারে ঘুরতে থাকে। বঙ্গবন্ধু জানালার পাশে দাঁড়িয়ে বাইরের আকাশ দেখেন।

বিমান অবতরণের পর লাখো মানুষ বিমানবন্দরের ভেতর প্রবেশ করে সেøাগান দিতে দিতে বিমানের কাছে গিয়ে দাঁড়ায়। সেখান থেকে কাউকেই সরানো যাচ্ছিল না। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনাকালে মুজিব নগর সরকারের সব মন্ত্রী, নেতারা বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন। নেতারা বঙ্গবন্ধুকে বিমান থেকে নামিয়ে একটি খোলা ট্রাকে করে রওয়ানা হন রেসকোর্স ময়দানে দিকে।

বিমানবন্দর থেকে লাখো জনতার ভিড় ঠেলে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় লাগে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসতে। রাস্তার দুই পাশের বাড়িঘর থেকে প্রিয় নেতাকে একনজর দেখতে মানুষ নেমে আসে রাস্তায়। অনেকে ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে দেন। পুরো পথে মানুষর মুখে ছিল জয়বাংলা স্লোগান। অসংখ্য মানুষ বঙ্গবন্ধুকে বহনকারী ট্রাকের সঙ্গে হেটে হেটে রেসকোর্স ময়দানের দিকে আসতে থাকে।

এদিকে সকাল থেকেই দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসে রমনার রেসকোর্স ময়দানে। দুপুর হওয়ার আগেই রেসকোর্স ময়দান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। বঙ্গবন্ধু মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে শিশুর মতো কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর দুই চোখ গড়িয়ে অশ্রু ঝরছিল। তিনি কান্নারত কণ্ঠে বলেন, ‘বিশ্বকবি তুমি বলেছিলে ‘সাত কোটি সন্তানের হে মুগ্ধ জননী, রেখেছো বাঙালি করে মানুষ করোনি।’ বিশ্বকবি তোমার সেই আক্ষেপ মিথ্যা প্রমাণিত করে সাত কোটি বাঙালি যুদ্ধ করে রক্ত দিয়ে এই দেশ স্বাধীন করেছে।’

নৌকার মতো করে নির্মিত ১০০ ফুট দীর্ঘ মঞ্চ থেকে ৩৫ মিনিটের ভাষণে অশ্রুসিক্ত কণ্ঠে বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘আমি জানতাম না আবার আপনাদের মধ্যে ফিরে আসতে পারব। আমি ওদের বলেছিলাম, তোমরা আমাকে মারতে চাও মেরে ফেলো। শুধু আমার লাশটা বাংলাদেশে আমার বাঙালিদের কাছে ফিরিয়ে দিও।’ রেসকোর্স ময়দানের জনসভা শেষ করে বঙ্গবন্ধু সাড়ে ৬টায় তার ধানমন্ডির বাড়িতে যান।

আরো সংবাদ