ফেনীতে মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-০৭ ০৬:৫৬:৩১

ফেনীতে মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ফেনীতে মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা
Spread the love

নিউজ ডেস্ক :  ফেনীতে তানিশা ইসলাম তিসা (১১) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে তার ঘরের ছাদের উপর গলা কেটে হত্যা করে ফেলে যায় দুর্বৃত্তরা। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের মাইজবাড়িয়া গ্রামের আনোয়ার ড্রাইভারের বাড়িতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ আলামত হিসেবে একজোড়া পায়ের সেন্ডেল ও রক্তমাখা ছুরি জদ্ধ করে। স্যান্ডেলের সূত্রধরে ওইদিন রাতেই ঘটনার সাথে জড়িত সন্ধেহে পুলিশ নিহতের আপন জেঠাতো ভাই আক্তার হোসেন নিশান (১৭) কে আটক করেছে। ধর্ষণ কাজে ব্যর্থ হয়ে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশ ও স্থানীয়রা ধারনা করছেন।
জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এন এম নুরুজ্জামান জানান, সদর উপজেলার কালিদহ ইউপির মাইজবাড়িয়া গ্রামের আনোয়ার ড্রাইভারের বাড়িতে ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে পড়–য়া তানিশা নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে ফেলে যায় দুর্বৃত্তরা। নিহত তানিশা ওই গ্রামের সৌদি প্রবাসী শহিদুল ইসলামের ছোট মেয়ে। তারা দুই বোন এক ভাই।

নৃশংস হত্যাকান্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে যান,ফেনী পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আতোয়ার রহমান,মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নিজাম উদ্দিন সহ স্থানীয় জনপ্রতিনির্ধিগণ।

পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, তানিশা ফেনী মহিছুন্নাহ মহিলা মাদ্রাসায় ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়তেন। বাবা প্রবাসে থাকেন। তিনদিন আগে তার বড় ভাই বাড়ীর পাশে মসজিদে এতেকাফে চলে যায়। তার বড় বোন স্বামীর বাড়িতে অবস্থান করছেন। বাড়িতে শুধু মা মেয়ে আর বৃদ্ধা দাদি ছিলেন। গত ৫ মে বুধবার তানিশার ১১তম জন্মদিন ছিল। ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার বিকেলে তার বড়বোন বাড়িতে আসেন তার জন্য ল্যাহেঙ্গা জামা নিয়ে। রাতে ঘরে তানিশাকে তার দাদির কাছে রেখে মা ও বড়বোন পাশের বাড়িতে যায়। পাশের বাড়ি থেকে ঘন্টাখানিক পর ঘরে এসে তানিশাকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে বিল্ডিংয়ের ছাদের উপর মেয়ের রক্তাক্ত লাশ দেখতে পেয়ে শোর চিৎকার করতে থাকে।

এদিকে এ ঘটনায় তানিশার বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। প্রতিবেশি ও আত্মীয় স্বজনদের কান্নায় আকাশ পাতাল ভারী হয়ে উঠেছে। মেয়ের শোকে কাতর মা আর বোন বার বার অজ্ঞান হয়ে পড়ছেন। কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না মেয়ের এমন মৃত্যু। এ ঘটনায় জড়িত প্রকৃত আসামীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী।

ফেনী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: নিজাম উদ্দিন মাদ্রাসা ছাত্রীর গলাকাটা লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় নিহতের জেঠাতো ভাই নিশানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নিহতের গলায় ধারালো ছুরির আঘাত ও রশি পেছানো ছিল। লাশ ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। সূত্র ইনকিলাব

আরো সংবাদ