ফের কস্তুরাঘাট এলাকায় প্যারাবন কেটে দখলের মহোৎসব - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২২-০১-১০ ২০:৩৯:০৫

ফের কস্তুরাঘাট এলাকায় প্যারাবন কেটে দখলের মহোৎসব

ফের প্যারাবন কেটে দখলের মহোৎসব
শেয়ার করুন

বার্তা  পরিবেশক : কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্যারাবন নিধন আর সরকারি খাসজমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মহোৎসব চলছে। থেমে নেই নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধ বালু উত্তোলন, অবাধে পাহাড় কর্তন, বনের গাছ নিধন ও মাটি বিক্রিও। কক্সবাজার শহরের বাঁকখালী নদীর তীরে সৃষ্ট প্যারাবনের আনুমানিক ২০ হাজার গাছ কেটে দখল করা হয়েছে কয়েক শ’ একরের জলাভূমি। পাশাপাশি গাছপালা উজাড় হওয়ায় ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির আবাসস্থল ও জীববৈচিত্র্য। কাটা গাছের গোড়ালি যাতে প্রশাসনের কেউ দেখতে না পান এ জন্য ট্রাকে মাটি ও বালু নিয়ে চলছে ভরাটের কাজ। কয়েক দিন ধরে প্যারাবনের বিশাল ভূমি টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে রেখে সেখানে ভরাটের কার্যক্রম চালানো হলেও বাঁধা দেওয়ার কেউ নেই। বাঁকখালী নদীর দখলদারদের উচ্ছেদ, দখল বন্ধ, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞাও রয়েছে।

জানা গেছে, কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহি বাঁকখালী নদীর তীরের কস্তুরাঘাট এলাকায় প্যারাবনে আগুন ধরিয়ে দিয়ে নদীর জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ১০ একর প্যারাবন নিধন করে সরকারি খাস জমি ও নদীর তীর দখলে নিয়েছে স্থানীয় কয়েকটি দখলবাজ সিন্ডিকেট। পাশাপাশি প্যারাবনের কয়েক হাজার গাছ কেটে পাহাড়ি মাঠি পেলে ভরাট করে রাতারাতি তৈরি করা হয়েছে টিনের ঘেরা দিয়ে প্লট।

অভিযোগ উঠেছে, এই দখলকৃত প্লট চড়াদামে বিক্রি করছে দখলবাজরা। আর এই দখল কার্যক্রমে মোটা অংকের বিনিময়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছে পরিবেশ অধিদপ্তরের গুটি কয়েক অসাধু কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কয়েকজন অফিসার। যেকারনে দখলকারিদের বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা হলেও বরাবরের মতোই মামলা থেকে বাদ পড়েছে দখলে নেতৃত্ব দেওয়া এবং অসংখ্য দখলকৃত প্লটের মালিক ও দখলবাজরা।

সরেজমিনে গিয়ে একাধিক লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, শুরু থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত যারা দখলের মহোৎসব চালিয়ে যাচ্ছেন তারা হলেন, নেত্রকোনা সদরের মৌগাতী, মারাদিঘী এলাকার ইদ্দিকুর রহমান এর পুত্র এলএ অফিসের চিহ্নিত দালাল ওমর ফারুক (৩৬) ওরফে দালাল ফারুক, মহেশখালীর কুতুবজোমের মেহেরিয়া পাড়ার রোকন উদ্দিন (৪০), মহেশখালী পৌরসভার, চরপাড়ার মোহাম্মদ ইউছুফ (৪৫), সাতকানিয়া কাঞ্চনার শরিফুল আলম চৌধুরী (৫০), মহেশখালী পুটিবিলা এলাকার জাহেদুল ইসলাম শিবলু (৪০), বদর মোকামের এলাকার কামাল মাঝি (৫০), খরুশকুল কুলিয়া পাড়ার মৃত মোহাম্মদ আলীর পুত্র মোহাম্মদ সোহেল (৩৬), সাতকানিয়া পশ্চিম ডলুর জসিম উদ্দিন (৪৪), বাঁশখালী চনুয়ার জিয়া মোঃ কলিম উল্লাহ (৪০), লোহাগাড়া চৌধুরীপাড়াস্থ উত্তর হরিয়া এলাকার খোরশেদ আলম চৌধুরী (৫৫), মনোহরগনজয়ের দক্ষিন সরসপুর বাতাবাড়িয়া এলাকার ফিরোজ আহমদ, বদর মোকামের কফিল উদ্দিন, চট্রগ্রাম সিটি কর্পোরেশনস্থ চাদগাঁও এলাকার মাহমুদুল করিম (৪১), শহরের লালদিঘীপাড় এলাকার আশিক (৩৮), কক্সবাজার সদর উপজেলার হাজীপাড়ার আমীর আলী (৪৫), রামু চাকমারকুলের মোস্তফা কামাল (৫০) ও বৈল্যাপাড়ার আমিন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন দখলদার বলেন, স্থানীয় কয়েক প্রভাবশালী ব্যক্তি শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে রাতে হাজার হাজার কেউড়া, বাইনগাছ কেটে বনভূমি টিন দিয়ে ঘিরে দখলে নিয়েছেন। এরপর প্রতি গন্ডা (দুই শতক) জমি ১০ থেকে ১২ লাখ টাকায় বিভিন্ন লোকজনের কাছে বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা।

এ বিষয়ে স্থানীয় মিজানুর রহমান জানান, গেল সোমবার ১০ জানুয়ারি বিভিন্ন গণমাধ্যমে বাঁকখালী প্যারাবন নিধনের ঘটনায় আমাকে জড়িয়ে যে সংবাদ প্রকাশিত হয় তা দৃষ্টিগোছর হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, আমি একজন প্রতিষ্ঠিত সমাজপতি এবং টিকাদার। সংবাদকর্মীরা যাচাই বাচাই না করে রহস্যজনক কারনে আমার নামটি প্রকাশ করেছে। সংঘবদ্ধ দখলবাজ চক্রের মাধ্যমে বাঁকখালী নদীর প্যারাবন নিধন করা হচ্ছে এটা সত্য।

এতে আমি স্থানীয় ব্যক্তি হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে তাদেরকে বাঁধা দিয়ে আসছি। এ জন্য তারা আমার উপর হামলাও করতে এসেছিলো। যা আশ-পাশের লোকজন অবগত রয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন তদন্ত করলে আসল ঘটনা বের হয়ে আসবে। আমি এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানাচ্ছি।

 


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ