বঙ্গবন্ধুর নামে হচ্ছে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০১-০৬ ১১:২৭:৪৯

বঙ্গবন্ধুর নামে হচ্ছে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

বঙ্গবন্ধুর নামে হচ্ছে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
Spread the love

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজারের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর রাখা হচ্ছে। নামকরণের বিষয়টি অনুমোদন দিয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট। নামকরণ করে প্রজ্ঞাপন জারির প্রক্রিয়া শুরু করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। সরকারের দায়িত্বশীল সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

সামগ্রিক দিক বিবেচনায় নিয়ে কক্সবাজার বিমানবন্দরের নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে নামকরণের জন্য মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন চায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। বঙ্গবন্ধুর নামে কোনো স্থাপনা ও প্রতিষ্ঠানের নামকরণ করতে হলে ট্রাস্টের অনুমোদন বাধ্যতামূলক। গত মাসে এ সংক্রান্ত অনুমোদন দেয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট। ১৯৯৪ সালে এ ট্রাস্ট গঠন করা হয়। এ ট্রাস্টের সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি এর ব্যবস্থাপনা কমিটিরও প্রধান। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হকের কাছে জানতে চাইলে নামকরণের বিষয়টি তিনি এড়িয়ে গেছেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা নামকরণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাংলাদেশকে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের সেতু বন্ধনকারী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চায় সরকার। এজন্য বিমান খাতকে আঞ্চলিক হাব হিসেবে গড়ে তোলার নানা কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। দেশের সব আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় বিমানবন্দরগুলোকে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। বিমানবন্দরগুলোর মধ্যে কক্সবাজার অন্যতম। পর্যটন নগরী কক্সবাজারের সঙ্গে রাজধানী ঢাকা ও অন্যান্য শহরের যোগাযোগ বাড়ানো হচ্ছে। এছাড়া দেশের সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় আকাশপথে দ্রুত যোগাযোগব্যবস্থা স্থাপন করতেও কক্সবাজারকেই বেছে নিয়েছে সরকার।

এসব কারণে কক্সবাজারের বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করা হচ্ছে। এতে কক্সবাজারের সঙ্গে বৈশি^ক যোগাযোগ সহজ হবে। বর্তমানে একজন আন্তর্জাতিক পর্যটককে ঢাকা বা চট্টগ্রামের বিমানবন্দর ব্যবহার করে কক্সবাজারে পৌঁছতে হয়। এতে দীর্ঘ সময় ও অর্থ ব্যয় হয়। পর্যটকদের দুর্ভোগের মধ্যেও পড়তে হয়।

কক্সবাজারের বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে নেওয়ার জন্য রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ বাড়ানো হচ্ছে। কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ৭৭৫ ফুট ছিল। তা বাড়িয়ে ৯ হাজার ফুট করা হয়েছে। আর ১২০ ফুট প্রশস্ত রানওয়েকে ২০০ ফুটে উন্নীত করা হয়েছে। এছাড়া রানওয়ের শক্তি বৃদ্ধি, বিমান অবতরণ ও উড্ডয়ন এলাকায় আলোক ব্যবস্থা স্থাপন করা হয়েছে।

২০১৭ সালে বিমানবন্দরে ই-৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট ওঠানামা উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রানওয়ের দৈর্ঘ্য আরও ৩ হাজার ফুট বাড়িয়ে ১২ হাজার ফুটে উন্নীত করার প্রক্রিয়া শুরু করতে বলেন। এ নির্দেশনার আলোকে ‘কক্সবাজার বিমানবন্দর রানওয়ে সম্প্রসারণ’ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় আপাতত রানওয়ে ১০ হাজার ৭০০ ফুটে উন্নীত করা হচ্ছে। জানুয়ারি ২০১৯ থেকে ডিসেম্বর ২০২১ মেয়াদি হলেও প্রকল্পটি বিলম্বিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গত ২৯ আগস্ট সম্প্রসারণ কাজের উদ্বোধন করেন।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা জানান, রানওয়ে সম্প্রসারণ কাজের পাশাপাশি প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ও বিমানবন্দরকেন্দ্রিক অন্যান্য উন্নয়নকাজ চলছে। রানওয়ে সম্প্রসারণের কাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওইসব কাজও শেষ হবে। এসব কাজ শেষ হলে কক্সবাজার একটি আধুনিক বিমানবন্দরে রূপান্তরিত হবে।

দেশে তিনটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর রয়েছে। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটের তিনটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মধ্যে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরই প্রধান। ২০১০ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির আগে এর নাম ছিল জিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। ওইদিন মন্ত্রিসভা বিমানবন্দরের নাম পরিবর্তন করে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করার সিদ্ধান্ত নেয়।

২০০৯ সালের পর আওয়ামী লীগ সরকার রাজধানীর কাছে আরও একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করার উদ্যোগ নেয়। জাতির পিতার নামে বিমানবন্দরের নামকরণ করা হয় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। প্রাথমিকভাবে মুন্সীগঞ্জের আড়িয়ল বিলকে বাছাই করা হয়। কিন্তু স্থানীয়দের বাধার মুখে বিমানবন্দরের স্থান সরিয়ে নেওয়া হয় ময়মনসিংহের ত্রিশালে। পরে ত্রিশালকে বাদ দিয়ে আঁড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর তৈরির পরিকল্পনা করা হয়।

এরপর আবার সিদ্ধান্ত বদলে পদ্মার দক্ষিণ-পশ্চিমপাড় মাদারীপুর বা শরীয়তপুরে স্থান নির্বাচন করা হয়। ২০১৬ সালে বিমানবন্দর প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে নিয়োগ করা হয় জাপানি পরামর্শক নিপ্পন কোয়িকে। স্থান নির্বাচনে নিপ্পন কোয়ির সঙ্গে ১৩৬ কোটি টাকার চুক্তি করে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। সমীক্ষার পর মাদারীপুরের শিবচরকে উপযুক্ত স্থান হিসেবে বাছাই করলেও দেখা দেয় নতুন জটিলতা। বিমানবন্দর করার জন্য স্থানীয় প্রায় আট হাজার পরিবারকে স্থানান্তর করার প্রয়োজন দেখা দেয়। এরপর থেকেই থমকে আছে সবকিছু।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের বিষয়টি এখন আর সরকারের অগ্রাধিকার তালিকায় নেই। মুন্সীগঞ্জের আড়িয়ল বিল আর মাদারীপুরের শিবচরকেই তারা পছন্দের তালিকায় রেখেছেন। ভবিষ্যতে সরকারের অগ্রাধিকারের তালিকায় থাকলে তারা যেকোনো একটি স্থানে বিমানবন্দর নির্মাণের কাজ শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

সরকারের অগ্রাধিকারে না থাকলেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ২০৩৫ সালের পর রাজধানীর পাশে আরও একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রয়োজন দেখা দেবে। যদিও সরকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ করছে; যা ২০২৫ সালে চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে। তখন এ বিমানবন্দরের সক্ষমতা আরও বাড়লেও বিমান খাতে যে প্রবৃদ্ধি, তাতে এর পরের ১৫ বছরের মধ্যে এটাও প্রয়োজনীয় যাত্রীধারণ করতে পারবে না।

এছাড়া টার্মিনালের সক্ষমতা বাড়লেও রানওয়ের সমস্যা কমবে না। এ অবস্থায় এক রানওয়ের শাহজালালেই দ্বিতীয় রানওয়ে করার বিকল্প বের করতে হবে অথবা নতুন বিমানবন্দর নির্মাণে যেতে হবে সরকারকে। সূত্র : দেশ রুপান্তর।

আরো সংবাদ