বনাঞ্চলে ইন্টারপোলের নজরদারি - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১২-২৩ ১৪:১১:১২

বনাঞ্চলে ইন্টারপোলের নজরদারি

বনাঞ্চলে ইন্টারপোলের নজরদারি

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  পাবর্ত্য জেলা বান্দরবানের আলীকদম থেকে চট্টগ্রাম শহরে পাচার হচ্ছে বিপন্ন প্রজাতির একটি উল্লুক স¤প্রতি ইন্টারপোল থেকে এমন একটি সংবাদ আসে পুলিশ সদর দপ্তরে। এসপি পদমর্যাদার এক কর্মকর্তা দ্রæত বিষয়টি অবহিত করেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থানার ওসিকে। উল্লুক উদ্ধারে অভিযানে শুরু করেন ওসি আতিকুর রহমান। এ সংবাদকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে বসানো হয় চেকপোস্ট।

কিন্তু এর মধ্যে উল্লুকটি কয়েকটি পাচারকারী চক্রের মধ্যে হাতবদল হয়। ফলে ইন্টারপোল থেকে প্রাপ্ত তথ্যে কোনোভাবেই উদ্ধার করা যাচ্ছিল না বিপন্ন প্রায় প্রাণীটি। তবুও হাল ছাড়েননি ওসি। নিজ উদ্যোগে সোর্সদের মাধ্যমে ব্যাপক নজরদারি শুরু করেন। একপর্যায়ে উপজেলার চুনতি অভয়ারণ্যের ফরেস্ট রেঞ্জ কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাস থেকে উল্লুকটি উদ্ধার করা হয়।

গত ৮ অক্টোবর চাঞ্চল্যকর ওই অভিযানের বিষয়ে লোহাগাড়া থানার ওসি মোহাম্মদ আতিকুর রহমান বলেন, হেডকোয়ার্টারের (সদর দপ্তর) মাধ্যমে ইন্টারপোল থেকে পাওয়া তথ্যে উল্লুকটি উদ্ধারের পাশাপাশি গ্রেপ্তার করা হয় মো. মুবিন (৩০) ও মাজহারুল (৩৫) নামের দুই পাচারকারীকে। পরে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১ বছর কারাদÐ এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

লোহাগাড়া থানার ওসি আতিকুর রহমান বলেন ‘উল্লুকটি উদ্ধারের আগে তিন গ্রæপের মধ্যে হাতবদল হয়। তাই উদ্ধারের ক্ষেত্রে একটু বেগ পেতে হয়েছে। আমরা মামলাটি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি। এই চক্রের আদ্যোপান্ত বের না হওয়া পর্যন্ত আমরা তদন্ত চালিয়ে যাব।

বিভিন্ন সময় বাংলাদেশ থেকে পাচার হচ্ছে বিপন্ন প্রায় উল্লুক, কখনও লজ্জাবতী বানর। সজারুর সঙ্গে ধরা পড়ছে বনমোরগ, মেছোবিড়ালও। কক্সবাজার ও বান্দরবানের গহীন বনাঞ্চল থেকে বিপন্নপ্রায় এসব প্রাণী পাচার করছে একটি আন্তর্জাতিক চক্র। পাচারের পথ হিসেবে তারা ব্যবহার করছে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলাটি।

পুলিশ সূত্র জানায়, ওই ঘটনার কয়েকদিন পর অর্থাৎ ২৭ অক্টোবর লোহাগাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয় একটি বনমোরগ ও তিনটি মেছোবিড়াল। বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার গহীন বন থেকে বিপন্নপ্রায় প্রাণী চারটি ধরা হয়। এরপর একটি নম্বরবিহীন মোটরসাইকেলে করে লামা-আজিজনগর হয়ে লোহাগাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পৌঁছান মো. এমরান ও মো. আলীম উদ্দিন নামের দুই ব্যক্তি। সেখান থেকে একটি বাসে করে চট্টগ্রাম শহরের রিয়াজউদ্দিন বাজারে নেয়ার কথা ছিল। তার আগেই লোহাগাড়া থানা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন দুই পাচারকারী।

এছাড়া গত ১০ নভেম্বর চুনতি অভয়ারণ্যের ফরেস্ট রেঞ্জ কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাস তল্লাশি করে উদ্ধার করা হয় একটি সজারু ও দুটি লজ্জাবতী বানর। এরশাদ নামের এক যুবক এসব প্রাণী কক্সবাজার থেকে ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছিলেন। ইন্টারপোল থেকে পাওয়া গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষণ করে অভিযান তিনটি পরিচালনা করে লোহাগাড়া থানা পুলিশ।

বিভিন্ন সময় বাংলাদেশ থেকে পাচার হচ্ছে বিপন্নপ্রায় উল্লুক, কখনও লজ্জাবতী বানর। সজারুর সঙ্গে ধরা পড়ছে বনমোরগ, মেছোবিড়ালও। কক্সবাজার ও বান্দরবানের গহীন বনাঞ্চল থেকে বিপন্নপ্রায় এসব প্রাণী পাচার করছে একটি আন্তর্জাতিক চক্র। পাচারের পথ হিসেবে তারা ব্যবহার করছে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলা। এই উপজেলার বিভিন্ন পথ ব্যবহার করে পাচারকারীরা এসব প্রাণী পৌঁছে দিচ্ছে নির্দিষ্ট চক্রের হাতে। পরবর্তীতে যা চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে।

ইন্টারপোলের তথ্যের ভিত্তিতে প্রাণীগুলো রক্ষায় বিশেষ অভিযানে নেমেছে লোহাগাড়া থানা পুলিশ। অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন থানার ওসি নিজেই। তাকে সহায়তা করছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ অর্গানাইজেশন (ইন্টারপোল)। সংস্থাটির আগ্রহে এসব বন্যপ্রাণী উদ্ধারে তৎপর হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তরও।

ইন্টারপোলের ওয়েব সাইট থেকে জানা যায়, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের জন্য সারা বিশ্বে ‘ঞযঁহফবৎ ২০২২’ শিরোনামে অক্টোবর মাসব্যাপী অভিযান পরিচালনা করে সংস্থাটি। ২০১৭ সাল থেকে তারা অভিযান পরিচালনা করে আসছে। ২০২২ সালে ষষ্ঠবারের মতো চালানো ওই অভিযানে সর্বোচ্চ ১২৫ দেশের শুল্ক, পুলিশ, আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট, বন্যপ্রাণী ও বনাঞ্চল সংরক্ষণে জড়িত সংস্থা অংশ নেয়। তাদের অভিযান পরিচালনার জন্য নির্দেশনাও দেয় ইন্টারপোল। এ সময় গোয়েন্দা তথ্যে বিভিন্ন দেশ থেকে কাঠ থেকে শুরু করে জীবন্ত প্রাণী, পশুর অংশ ও পোশাক, সৌন্দর্য পণ্য, খাদ্যসামগ্রী, ঐতিহ্যবাহী ঔষুধ ও হস্তশিল্প জব্দ করা হয়।

ইন্টারপোলের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ষষ্ঠবারের অভিযানে অবৈধ ব্যবসা, প্রক্রিয়াকরণ, রপ্তানি, সুরক্ষিত বন্যপ্রাণী ও বনজপণ্য আমদানির সঙ্গে জড়িত ১৪১ প্রতিষ্ঠান ও ৯৩৪ জনকে শনাক্ত করা হয়। আটক করা হয় বিপন্নপ্রায় বিভিন্ন প্রজাতির ১১৯টি বিড়াল, ৩৪টি স্তন্যপায়ী প্রাণী, ২৫টি গন্ডারের শিং, ৩৪টি প্রাইমেট, ১৩৬টি প্রাইমেট শরীরের অঙ্গ, নয়টি প্যাঙ্গোলিন, ৩৮৯ কেজি প্যাঙ্গোলিনের খুলি, ৭৫০টি পাখি, ৪৫০টিরও বেশি পাখির অংশ, প্রায় ৭৮০ কেজি ও ৫১৬ টুকরো হাতির দাঁত, ২৭টি হাতির শরীরের অঙ্গ, ১৭৯৫টি সরীসৃপ এবং প্রায় ৫০০ কেজি সরীসৃপের অংশ এবং ১১৯০টি কচ্ছপসহ বিভিন্ন প্রাণীর অংশবিশেষ। এছাড়া উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমাণ কাঠ। বিপন্নপ্রায় বন্যপ্রাণী উদ্ধারে ইন্টারপোলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। বেশকিছু সফল অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

অভিযানের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের বনাঞ্চলেও নজরদারি চালাচ্ছে ইন্টারপোল। তাদের গোয়েন্দা তথ্যে ভর করে বেশকিছু সফল অভিযান পরিচালনা করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে উদ্ধার করেছে বিপন্নপ্রায় বিভিন্ন প্রাণী। তবে, অভিযান চলমান থাকায় কী পরিমাণ প্রাণী এবং প্রাণীর শরীরের অংশ উদ্ধার হয়েছে তার হিসাব করেনি পুলিশ সদর দপ্তর।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (ইন্টারপোল) শরীফ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বিপন্নপ্রায় বন্যপ্রাণী উদ্ধারে ইন্টারপোলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। বেশকিছু সফল অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযান আরও জোরদার করা হবে। তিনি আরও বলেন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে নিয়মিত সমন্বয় সভা হতে হবে। নজরদারি ও অভিযান বাড়াতে বিশেষায়িত সংস্থা বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের জনবল বাড়ানো উচিত।

বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউটের বন্যপ্রাণী শাখার বিভাগীয় কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ রবিউল আলম বলেন, পাচার এবং নির্বিচারে হত্যার কারণে বন্যপ্রাণী ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে। কিছু কিছু প্রজাতি বিলুপ্তও হয়ে যাচ্ছে। আর্থিক লোভে পাচারকারীরা বন্যপ্রাণী এবং তাদের দেহের বিভিন্ন অংশ বিদেশে পাঠিয়ে থাকে। এতে পরিবেশ ভারসাম্য হারাচ্ছে। নজরদারি ও অভিযান বাড়াতে বিশেষায়িত সংস্থা বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের জনবল বাড়ানো উচিত। তথ্য সূত্র : ঢাকা পোস্ট।

আরো সংবাদ