বাঁকখালী নদী ড্রেজিং প্রকল্প থেকে ৬ কোটি টাকার বালি উত্তোলন! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৬ মে ২০২১ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-২৮ ১১:০৭:৪৩

বাঁকখালী নদী ড্রেজিং প্রকল্প থেকে ৬ কোটি টাকার বালি উত্তোলন!

বাঁকখালী নদী ড্রেজিং প্রকল্প থেকে ৬ কোটি টাকার বালি উত্তোলন!

নিউজ ডেস্ক :  বাঁকখালী নদী ড্রেজিং প্রকল্প থেকে উত্তোলন করা বালু বিক্রির কার্যাদেশ ছাড়াই চার মাস ধরে বিক্রি করছে ড্রেজিং কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড।

জানুয়ারি মাস থেকে শুরু করে প্রায় চার মাসে শুধুমাত্র রামুর বাঁকখালী নদীর অংশ থেকে উত্তোলন করা বালুর অন্তত ৮০ ভাগ অবৈধ পন্থায় বিক্রি করা হয়েছে।এই বালুর বাজারমূল্য অন্তত ছয় কোটি টাকা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড বলছে, গত রোববার (২৫ এপ্রিল) পর্যন্ত এসব বালু বিক্রির জন্য কোনো প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ বা অনুমতি দেওয়া হয়নি।
অভিযোগ উঠেছে, বাঁকখালী নদীর কক্সবাজার সদর অংশ থেকে তোলা বালুর বিপরীতে সরকারকে রাজস্ব দিলেও রামু উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে উত্তোলন করা বালু একাধিক প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে ড্রেজিং কাজে দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়া, রাজারকুল, আতিক্কবিবির ঘাট, চেরাংঘাটা, হাইটুপী, কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের গাছুয়াপাড়াসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্ট থেকে এসব বালু উত্তোলন করা হয়। রাত-দিন শতাধিক মিনি ট্রাকে করে রেলপথ প্রকল্পসহ বিভিন্ন স্থানে এসব বালু বিক্রি ও সরবরাহ করা হয়েছে।

সম্প্রতি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন শেষে এসব অনিয়মের কারণে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) রামুর নেতৃবৃন্দ। এসব অনিয়মের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সোমবার (২৬ এপ্রিল) জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন বলেও তারা জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে সুজন রামু শাখার সভাপতি মাস্টার মো. আলম জানান, পুরো এলাকা পরিদর্শন করে আমরা জানতে পেরেছি, এই বালু বিক্রির জন্য এখনো কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে নিযোগ করা হয়নি। তবে গত চার মাস ধরে এখান থেকে বিপুল পরিমাণ বালু ট্রাকে ট্রাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর বেচার পর যা আছে তা এখনো নদীর বুকেই পড়ে আছে।

রোববার (২৫ এপ্রিল) রামুর ফতেখাঁরকুলের আতিক্কাবিবির ঘাট, চেরাংঘাটা, কাউয়ারখোপের গাউচ্ছাপাড়াসহ বিভিন্ন পয়েন্টে সরেজমিন পরিদর্শনে এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। প্রতিটি পয়েন্টেই একটি করে এস্কেভেটর দেখা গেছে। সেই এস্কেভেটর দিয়ে বালু মিনি ট্রাকে তুলে দেওয়া হচ্ছে।

আতিক্কাবিবির ঘাট সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দাদের কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, গত ডিসেম্বর বা তারও আগে থেকে এই অংশে ড্রেজিং শুরু হয়। সেই থেকে প্রতিদিন অন্তত ২০-২৫টি মিনিট্রাকে করে রাত-দিন এখান থেকে বালু নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
তাদের ভাষ্য, একদিনে অন্তত একটি পয়েন্ট থেকে ২০০ গাড়ি বালু নিয়ে যাওয়া হয়। স্থান ভেদে প্রতি গাড়ি বালু বেচা হয় ৬০০ থেকে ১০০০ টাকায়।

সরেজমিনে পরিদর্শনে একই অবস্থা দেখা গেছে, চেরাংঘাটার উত্তর ও দক্ষিণের দুটি এবং জাদীপাড়ার গাছুয়াপাড়া পয়েন্টেও। এভাবে প্রতি পয়েন্ট থেকে দিনে ২০০ গাড়ি ধরা হলে পাঁচটি পয়েন্টে দিনে এক হাজার গাড়ি এবং মাসে ৩০ হাজার গাড়ি বালু বেচা হয়েছে। যা চার মাসে দাঁড়ায় ১ লাখ ২০ হাজার।

প্রতি গাড়ি সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা ধরা হলে বিক্রিত বালুর অর্থমূল্য দাঁড়ায় প্রায় ৬ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে বিক্রি করা বালু মোট উত্তোলনকৃত বালুর ৬০ ভাগ হতে পারে বলে ধারণা করছেন এলাকাবাসী।তবে সম্প্রতি কক্সবাজারে চলমান রেলপথ প্রকল্পের কাজে বালুর চাহিদা কমে আসায় বালু বেচা-কেনা আগের চেয়ে কমে গেছে বলে জানান অনেকে।

রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়ুয়া বলেন, শুধু বাঁকখালী নদী ড্রেজিংয়ের বালু লুটপাট নয়, গত কয়েক মাসে রামুর অন্তত শতাধিক পাহাড় কেটে সাবাড় করা হয়েছে।

তিনি বলেন, মাঝে মাঝে উপজেলা প্রশাসনের লোক দেখানো অভিযান চোখে পড়ে, মাটিসহ পিকআপ ধরা হয়, ড্রেজার মেশিন জব্দ করা হয়, আবার রহস্যজনকভাবে এসব ছেড়েও দেওয়া হয়।

“ফলে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা এসব অনিয়ম বন্ধ হচ্ছে না। দিন শেষে দেখা গেছে অভিযানও হয়েছে আবার পাহাড়ও কাটা শেষ হয়েছে। ” যোগ করেন নীতিশ বড়ুয়া।

সাংস্কৃতিক সংগঠক বশিরুল ইসলাম জানান, বাঁকখালীর ড্রেজিং এবং পাহাড়কাটা মাটির ট্রাকের কারণে রামুতে রাস্তাঘাটে বের হওয়াও কষ্টকর। ধুলোবালিতে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু গতকাল জেনেছি, ড্রেজিংয়ের বালু বিক্রির জন্য এখনো কাউকে অনুমতিই দেওয়া হয়নি।

বাঁকখালী ড্রেজিংয়ের কাজ নিয়ে অবৈধভাবে বালু বেচার বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড-এর কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা মো. সরওয়ার মোবাইল ফোনে বালু বিক্রির বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

তিনি বলেন, লিংকরোডে আমাদের অফিস আছে, অফিসে আসেন। সব কাগজপত্র দেখাবো। সরকারকে বালু বিক্রির জন্য অতীতে অনেক টাকা রাজস্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান সরওয়ার।

কিন্তু ড্রেজিংয়ের রামুর অংশের বালু বিক্রির অনুমতি পেয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি পাননি বলে স্বীকার করেন। অনুমতি ছাড়া বালু কেন বিক্রি করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি মোবাইলে বলে আপনাকে সন্তুষ্ট করতে পারবো না। অফিসে আসেন কাগজপত্রসহ সব আপনাকে দেখাবো।

বিনা কার্যাদেশে বালু বিক্রির বিষয়ে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রণয় চাকমাও অবগত নন। তিনি বলেন, এসব বিষয় দেখার জন্য জেলা বালু ব্যবস্থাপনা কমিটি আছে, ওখান থেকে নিয়ন্ত্রণ এবং দেখভাল করা হয়। এখানে আমার কোনো এখতিয়ার নেই।

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী বলেন, যারা আবেদন করেছে তাদের মধ্য থেকে রেজুলেশনের মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠানকে বালু সরবরাহের অনুমতি দেওয়া হবে, সেটি চূড়ান্ত। শুধুমাত্র রেজুলেশনে সই করা বাকি আছে। আগামী দুয়েক-দিনের মধ্যে ওই প্রতিষ্ঠান বালু সরানো শুরু করবে।

কিন্তু অনুমতির আগে কিভাবে বালু বিক্রি করা হচ্ছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি রেল প্রকল্পের জন্য কিছু বালু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স নিয়ে গেছে। এছাড়া অরেকটি পয়েন্টে এভাবে বালু নেওয়ার খবর পেয়ে আমি লোক পাঠিয়ে তা বন্ধ করে দিয়েছি।

“এভাবে ওয়েস্টার্ন রাতের আঁধারে বালু বিক্রি করে থাকলে তার ক্ষতিপূরণ সরকারকে দিতে হবে। কোনো পয়েন্টে কত বালু মজুদ আছে, তা আমাদের কাছে হিসাব আছে। সে হিসাব অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ আদায় করা হবেবলে জানান প্রবীর কুমার গোস্বামী। ”
এদিকে চলমান ড্রেজিং প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় রোববার (২৫ এপ্রিল) প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে আসেন কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আমিন আল পারভেজ। তিনি বলেন, নদীর বুকে যেসব বালু রাখা হয়েছে তা দ্রুত সরিয়ে ফেলার জন্য বলা হয়েছে। রামু ইউএনওর তত্ত্বাবধানে এসব বালু নিরাপদ দূরত্বে সরানো হবে।

অনুমতি ছাড়াই বালু বিক্রির বিষয়ে জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা বলেন, কক্সবাজার সদর অংশে বালু নেওয়ার বিপরীতে সরকারকে দুই কোটি ৮৩ লাখ টাকা রাজস্ব দিয়েছে ওয়েস্টার্ন। এখানে ব্যতিক্রম হলে তা খতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য বাঁকখালী নদী ড্রেজিং ও খনন করে নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির মাধ্যমে নৌ-চলাচলের পথ সুগম করা, দুর্যোগপূর্ণ মুহূর্তে সাগরের নৌকা/ট্রলারের নিরাপদ অবস্থানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পোতাশ্রয় হিসেবে বাঁকখালী নদী ব্যবহার করা এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণ, পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং নদী ভাঙনের হাত থেকে ঘরবাড়ি, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রক্ষার জন্য ২০১৬ সালে প্রায় ১৯৫ কোটি ৪৩ লাখ ৯৫ হাজার টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্প গ্রহণ করে কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড। সূত্র বাংলা নিউজ

আরো সংবাদ