বাইডেনের গণতন্ত্র সম্মেলন প্রত্যাখ্যান ইমরান খানের - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-১২-১০ ১৪:৩১:১৯

বাইডেনের গণতন্ত্র সম্মেলন প্রত্যাখ্যান ইমরান খানের

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র-সম্মেলনে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) ইসলামাবাদের এই প্রত্যাখ্যানে অসন্তোষের আভাস রয়েছে। বাইডেনের গণতন্ত্র সম্মেলন প্রত্যাখ্যান ইমরান খানের আন্তর্জাতিক সময় ২ মিনিটে পড়ুন এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের অংশীদারত্বকে মূল্যায়ন করছি। আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকসহ দ্বিপাক্ষিকভাবে এই সম্পর্ককে আমরা এগিয়ে নিতে চাই। বিভিন্ন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমরা যোগাযাগ রক্ষা করে চলছি। ভবিষ্যতে নিজেদের সময়মতো এ বিষয়ে আমরা আলোচনা করব। বিবৃতিতে ইসলামাবাদ জানায়, দুদেশের যৌথ লক্ষ্যগুলোকে এগিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা, গঠনমূলক কার্যক্রম ও আলোচনাকে জোরদার করতে নিজেদের সমর্থন অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান। ৯ ও ১০ ডিসেম্বর এই গণতান্ত্রিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কথিত সন্ত্রাসবাদবিরোধী যুদ্ধে দুই মিত্রের মধ্যে আফগানিস্তান সংকটসহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে মতপার্থক্য থাকলেও সম্মেলনের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যানকে বিরল বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চীনের সঙ্গে ইসলামাবাদের কৌশলগত অংশীদারত্ব বাড়ছে। ২০২০ সালে দোহায় যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে শান্তি চুক্তির মধ্যস্থতা করেছে ইসলামাবাদ। বর্তমানে আফগানিস্তানের মানবিক সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশটির জব্দ করা সম্পদ ছাড় দিতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তান। গেল মধ্য-আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় তালেবানের হাতে। এরপর দেশটির ৯০০ কোটি মার্কিন ডলার জব্দ করার ঘোষণা দেয় ওয়াশিংটন। আরও পড়ুন: সিনেটে প্রথম হোঁচট খেলেন জো বাইডেন আফগান সংকট নিয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা সত্ত্বেও ২০২০ সালে হোয়াইট হাউসে ঢোকার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে কথা বলেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। আগস্টে ইমরান খান বলেন, তিনি জো বাইডেনের ফোনকলের অপেক্ষায় রয়েছেন। গণতান্ত্রিক সম্মেলনে যোগ দিতে শতাধিক দেশের নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। এতে পাকিস্তানসহ দক্ষিণ এশিয়ার চার দেশ রয়েছে। বাকি তিনটি দেশ হলো, ভারত, মালদ্বীপ ও নেপাল। চীন ও রাশিয়াকে বাদ দেওয়া হলেও তাইওয়ানকে রাখা হয়েছে। পাকিস্তানের মার্কিন গণতন্ত্র সম্মেলন প্রত্যাখ্যানে চীনের কোনো ভূমিকা আছে কিনা; তা স্পষ্ট হওয়া যায়নি। তবে সূত্রের বরাতে এক্সপ্রেস ট্রিবিউন বলছে, এ বিষয়ে বেইজিংয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছে ইসলামাবাদ।
Spread the love

নিউজ ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র-সম্মেলনে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) ইসলামাবাদের এই প্রত্যাখ্যানে অসন্তোষের আভাস রয়েছে।

এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের অংশীদারত্বকে মূল্যায়ন করছি। আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকসহ দ্বিপাক্ষিকভাবে এই সম্পর্ককে আমরা এগিয়ে নিতে চাই। বিভিন্ন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমরা যোগাযাগ রক্ষা করে চলছি। ভবিষ্যতে নিজেদের সময়মতো এ বিষয়ে আমরা আলোচনা করব।

বিবৃতিতে ইসলামাবাদ জানায়, দুদেশের যৌথ লক্ষ্যগুলোকে এগিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা, গঠনমূলক কার্যক্রম ও আলোচনাকে জোরদার করতে নিজেদের সমর্থন অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান।

৯ ও ১০ ডিসেম্বর এই গণতান্ত্রিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কথিত সন্ত্রাসবাদবিরোধী যুদ্ধে দুই মিত্রের মধ্যে আফগানিস্তান সংকটসহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে মতপার্থক্য থাকলেও সম্মেলনের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যানকে বিরল বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চীনের সঙ্গে ইসলামাবাদের কৌশলগত অংশীদারত্ব বাড়ছে। ২০২০ সালে দোহায় যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানের মধ্যে শান্তি চুক্তির মধ্যস্থতা করেছে ইসলামাবাদ। বর্তমানে আফগানিস্তানের মানবিক সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশটির জব্দ করা সম্পদ ছাড় দিতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তান।

গেল মধ্য-আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় তালেবানের হাতে। এরপর দেশটির ৯০০ কোটি মার্কিন ডলার জব্দ করার ঘোষণা দেয় ওয়াশিংটন।

আফগান সংকট নিয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা সত্ত্বেও ২০২০ সালে হোয়াইট হাউসে ঢোকার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে কথা বলেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

আগস্টে ইমরান খান বলেন, তিনি জো বাইডেনের ফোনকলের অপেক্ষায় রয়েছেন।

গণতান্ত্রিক সম্মেলনে যোগ দিতে শতাধিক দেশের নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। এতে পাকিস্তানসহ দক্ষিণ এশিয়ার চার দেশ রয়েছে। বাকি তিনটি দেশ হলো, ভারত, মালদ্বীপ ও নেপাল। চীন ও রাশিয়াকে বাদ দেওয়া হলেও তাইওয়ানকে রাখা হয়েছে।

পাকিস্তানের মার্কিন গণতন্ত্র সম্মেলন প্রত্যাখ্যানে চীনের কোনো ভূমিকা আছে কিনা; তা স্পষ্ট হওয়া যায়নি। তবে সূত্রের বরাতে এক্সপ্রেস ট্রিবিউন বলছে, এ বিষয়ে বেইজিংয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছে ইসলামাবাদ।

আরো সংবাদ