বাস্তহারা তরুণ ফুটবলার মানিক সবার সহযোগিতায় বাঁচতে চায় - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৩-২০ ০৭:০৩:৩০

বাস্তহারা তরুণ ফুটবলার মানিক সবার সহযোগিতায় বাঁচতে চায়

মোঃ কাইছার হামিদ, মহেশখালী: বাস্তহারা মা-বাবার ছেলে মেধাবি মানিক মনের অঙ্কিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে লেখা-পড়ার পাশাপাশি ফুটবল খেলাকে সাফল্যের মুলধন হিসেবে বেচে নিল। তার প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে সর্বাধিক সফল ব্যক্তিদের বৈশিষ্ট্য অনুসরন ও অনুকরণের পথ পদর্শক স্বরূপ নির্দিষ্ট ঠিকানাহীন ও বাস্তহারা বাবা-মায়ের ছোট্ট মানিক আজ তিলেতিলে বেড়ে উঠেছে। সে সাদাসিধা, শান্তশিষ্ট, সচরিত্র, ভদ্র, সদাচার, নম্রস্বভাবের, কঠোর পরিশ্রমী ও প্রতিভান্বিত মেধাবী ছাত্র এবং ভালো মানের তরুন ফুটবল খেলোয়াড়। তরুন ও মেধাবী মানিক ২০১৮ সালে দাখিল পরীক্ষায় কালারমারছড়া আর্দশ দাখিল মাদরাসা (বিজ্ঞান বিভাগ) থেকে জিপিএ- ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়ে বর্তমানে কক্সবাজার সরকারি কলেজে অধ্যয়নরত। দারিদ্র পরিবারের মেধাবী মানিক পড়াশোনার পাশাপাশি জনপ্রিয় ফুটবল খেলার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে আজ তিনি জাতীয় পর্যায়ের একটি মাইলফলকে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছেন। ২০১৭ সালে অনুঃ১৭ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টে মহেশখালীর সেরা খেলায়াড় নিবার্চিত হয়েছিলো এবং ২০১৯ সালে অনুর্ধ- ১৮ ঢাকা আবাহানী হয়ে সুনাম অর্জন করেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের জাকের হোসাইন (ড্রাইভার) ও শাহানা বেগমের দাম্পত্য জীবনে আরিফুল ইসলাম মানিক ছোট্ট একটি ভাড়া করা কুড়ি ঘরে জন্ম গ্রহণ করে। তার পিতা-মাতা প্রায় দেড় যুগ পূর্বে চট্টগ্রামের বাঁশখালি উপজেলা থেকে কামলার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার জেলার মহেশখালীতে আগমন করে। বর্তমানে তার কোন নিজস্ব বাড়ি ভিটা নাই বস্তিতে ভাড়া করা একটি কুড়ি ঘরে বসবাস। মোঃ আবু হানিফ সোহান, বন্ধু-বান্ধব ও খেলার সাথিরা ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনের সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিকসহ সংশ্লিষ্টদের নিকট সহযোগিতা কামনা করে। সে ফুটবল খেলাকে প্রধান্য দিয়ে চলার সাথি হিসেবে জনপ্রিয় ফুটবল খেলাকে গ্রহণ করেন। তার পরিবারের আর্থিক সহায়ক হিসেবে সাপোর্ট দেয়ায়সহ ফুটবলে স্বদেশের সুনাম বয়ে আনতে লেখা-পড়ার পাশাপাশি সাফল্যে পৌঁছাতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে প্রতিনিয়ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। সাফল্যের প্রদর্শন পূর্বক সফলতা অর্জনের পেছনে কারো না কারো অবদান থেকেই যায়। তার বাস্তব এই সম্ববনায় সবচেয়ে বৃহৎ স্নেহময় অবদান ও বিরতিহীন সময় দিয়ে ক্ষুদে ফুটবলার স্বপ্নকে বাস্তবরূপে রূপান্তর করতে অনুপ্রেরণায় এ পর্যন্ত। তাঁরা হলেন মা-বাবা ও কক্সবাজার জেলা অধিনায়ক মাসুদ আলম ও মহেশখালী ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি কৃতি ফুটবলার শামসুল আলম রনি। কক্সবাজার জেলা উপজেলার খ্যাতিমান দু’ফুটবলার মানিকের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা এবং সকলের নিকট দোয়া কামনা করেন।

আরো সংবাদ