বিচারাধীন দোকান ভেঙ্গে নতুন ঘর নির্মাণ, ভুক্তভোগিদের নীরব কান্না - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-১৩ ১৮:১৫:০৫

বিচারাধীন দোকান ভেঙ্গে নতুন ঘর নির্মাণ, ভুক্তভোগিদের নীরব কান্না

ব্যবসায়ী কুতুব উদ্দিনের নীরব কান্নায় এগিয়ে এসেছে কউক
Spread the love

বার্তা পরিবেশক : লকডাউন ও ঈদকে পুঁজি করে বিচারধীন দোকান ঘর ভেঙ্গে নতুন ঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে কক্সবাজার জেলা কালেক্টরেট ৪র্থ শ্রেণী কর্মচারি সমিতির বিরুদ্ধে। এ নিয়ে ১১ মে ভুক্তভোগি মৌসুমী আক্তার কুতুব সমিতির ৪র্থ শ্রেণীর ২ নেতার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছেন। বর্তমানে এ অভিযোগ দেয়ার পর তার পরিবার পরিজন নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি সকলের কাছে সহযোগিতা কামনা করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, বিগত ৫/৫/২০১৬ সালে কক্সবাজার জেলা কালেক্টরেট ৪র্থ শ্রেণী কর্মচারি সমিতি থেকে ৮ লক্ষ টাকা নগদ জামানত  এবং ৭ লক্ষ টাকার জমিদারি নির্মাণ করেন। দোকানের নির্মাণ কাজ চলাকালে ৬ মাসের ভাড়া ৬০ হাজার টাকা প্রদান করেন। মাসিক ১০ হাজার টাকা ভাড়া নিয়ে দোকান ঘরটি নেন কক্সবাজারের বিশিষ্ট হোটেল ব্যবসায়ী ও আওয়ামী পরিবারের সন্তান কুতুব উদ্দিন। উক্ত দোকান ঘরে কুতুব উদ্দিন অনেক টাকাও বিনিয়োগ করেছেন। ওই দোকান ঘরে সমিতির কোনো বিনিয়োগ ছিল না। অতিথিতে শুধু নামমাত্র মাসিক ভাড়া নিতেন! প্রায় ৫ বছর ধরে ওই দোকানটি নিয়ে কুতুব উদ্দিনের সাথে সমিতির সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের বিরোধ সৃষ্টি হওয়ায় ওই দোকানে তার পরিবার পরিজন অবস্থান করেন। বর্তমানে তাদের হুমকিতে পরিবার পরিজন নিয়ে অতি মানবেতর জীবন যাপন করছেন কুতুব উদ্দিনের পরিবার যা তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন।

সমিতির নেতৃবৃন্দরা টাকা গ্রহণ করার পরও কোনো কারন ছাড়াই তাকে রেস্তোরা খুলতে দিচ্ছেন না। উল্টো মোটা অংকের বিনিময়ে অন্যত্রে দোকান ভাড়া দেয়ার জন্য তাকে উচ্ছেদসহ দোকান ঘরে থাকা তার স্ত্রী সন্তানের উপর অমানবিক আচরণ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এতে নিরুপায় হয়ে বিষয়টি বিগত ১৬/১১/২০২০ ইংরেজী তারিখে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর বরাবর আবেদন দায়ের করেন কুতুব উদ্দিনের স্ত্রী মৌসুমী আক্তার কুতুব। এ আবেদনটি প্রশাসন আমলে নিয়ে শুনানী পর্যায়ে রয়েছে বলে জানাগেছে।

এদিকে কুতুব উদ্দিন জানান, সন্ত্রাসী কায়দায় কক্সবাজার জেলা কালেক্টরেট ৪র্থ শ্রেণী কর্মচারি সমিতির সভাপতি সুলতান মাহমুদ  বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম তার দোকানের সামনের স্টিলের চার্টার, ভিআইপি টেবিল ও বাথরুমসহ নানা সরঞ্জাম ভাংচুর ও লুটপাট করে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছেন। এতে তার অনেক টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।

বিচারাধীন দোকান ভেঙ্গে নতুন ঘর নির্মাণ, ভুক্তভোগিদের নীরব কান্না

বিচারাধীন দোকান ভেঙ্গে নতুন ঘর নির্মাণ, ভুক্তভোগিদের নীরব কান্না

এদিকে কমিটি আসে যায়, এক এক সময় একেক কমিটি এসে ওই দোকান নিয়ে ঝামেলা সৃষ্টি করেন। কিন্তু তারা বারংবার চুক্তি ভঙ্গ করে তার পরিবারের উপর অমানবিক আচরণ করেন। বর্তমান কমিটি দায়িত্ব গ্রহণ করার পর প্রশাসনের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি হিসেবে প্রভাব খাটিয়ে একের পর এক হয়রানি করে আসছেন কুতুব পরিবারের উপর। শুধু তাই নয়, উক্ত দোকান ঘরের সম্মুখের কিছু অংশ ভাঙ্গিয়ে ঘেরা দিয়ে তার পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন বলেও তিনি দাবী করেন। বর্তমানে দোকান ঘরের পিছনের অংশে পাকঘর ভেঙ্গে নতুন দোকান তৈরী করার পরিকল্পনা চালাচ্ছেন। শুধু তাই নয়  কুতুব উদ্দিনের পরিবারকে ওই দোকান থেকে চলে যেতে হুমকি প্রদর্শন চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। এসব তথ্য জানিয়েছেন কুতুব উদ্দিন।

সম্প্রতি সম্মুখের অংশে ব্লক দিয়ে নতুন করে দোকান ভাড়া দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে কোনো ধরণের অনুমতি না নিয়ে এ বেপরোয়া কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিরা।

তিনি আরও দাবী করেন, অধিকন্তু তার সাথে সম্পাদিত চুক্তিপত্র চলমান থাকলেও দোকান বুঝে না দিয়ে টাকা আত্নসাতের উদ্দেশ্য অন্যত্রে দোকান ভাড়া দেয়ার জন্য গভীর পাঁয়তারা চালিয়ে আসছেন ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি সমিতি। এতে হীনমান্যতার পরিচয় দিতে বেআইনীভাবে কুতুব উদ্দিনকে দোকান থেকে উচ্ছেদ করার জন্য নানা অপকৌশল চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

কক্সবাজারে বঙ্গবন্ধু’র বিশ্বস্ত সহোচর মরহুম আহমদ কবির সওদাগরের সন্তান এবং ২৮ বছর ধরে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত থাকা এ কুতুব উদ্দিন জানান, আমি বর্তমানে কক্সবাজারের বাহিরে চিকিৎসাধীন থাকার সুবাদে কতিপয় ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি সমিতির নেতা সুলতান মাহমুদ বাবুল ও আবুল হাশেমের নেতৃত্বে এ কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। তিনি আরও জানান, তার বিনিয়োগ করা দোকান ঘর দেখভাল করার জন্য বর্তমানে তার স্ত্রী মৌসুমী আক্তার কুতুব, মেয়ে কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী সাদিয়া কুতুবী ইলাসহ মোট ৫জন মানবেতর জীবন যাপন করছেন বলে জানান কুতুব উদ্দিন। যদি কোনো হৃদয়বান মানুষ তাদের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি বিস্তারিত জানতে চাইলে এ ০১৮৩৭১৯৪৯৮১ নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেন। এ বিষয়ে কক্সবাজার আদালতে একাধিক মামলাও বিচারধীন রয়েছে বলে তিনি দাবী করেছেন।

এ ব্যাপারে তিনি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মানবাধিকার, বিভিন্ন স্তরের জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের মানবতাবাদী মানুষের কাছে সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন এবং জরুরী ভিত্তিতে উক্ত ন্যাক্কারজনক কাজ বন্ধ করার দাবীও জানান। পাশাপাশি তার জামানত ও বিনিয়োগকৃত টাকা উদ্ধারসহ পরিবার পরিজনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন কুতুব উদ্দিন।

আরো সংবাদ