বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০২-০৬ ২১:৩৬:৫৭

বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক:   ২০২০ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে পা রেখে টাইগার ক্রিকেটের ইতিহাসে নতুন অধ্যায় লিখেছে বাংলাদেশ যুব দল। পচেফস্ট্রুমে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়ে লাল-সবুজের প্রথম দল হিসেবে কোনো বিশ্বমঞ্চের ফাইনালে গেছে আকবর আলীর দল।

৯ ফেব্রুয়ারি এই পচেফস্ট্রুমেই ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে লড়বে বাংলাদেশ। এক নারীদের এশিয়া কাপ ছাড়া আর কোনো ফাইনালেই ভারতের বিপক্ষে জয়ের ইতিহাস নেই টাইগারদের জাতীয়-যুব পর্যায়ের ক্রিকেটে। রোববারের ম্যাচটা জিততে পারলেই ইতিহাস।

সাউথ আফ্রিকায় বসা আসরে বৃহস্পতিবার নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের আঁটসাঁট বোলিং দিয়ে ২১১ রানে আটকে রেখে ব্যাটসম্যানদের উপর দায়িত্বটা দিয়েছিলেন টাইগার বোলাররা। দায়িত্বটা সুন্দরভাবেই সেরেছেন ব্যাটসম্যানরা। বিশেষ করে মাহমুদুল হাসান জয়। তিনে নামা ডানহাতি ব্যাটসম্যানের ম্যাচজয়ী সেঞ্চুরি ৩৫ বল আগেই টাইগারদের এনে দিয়েছে ঐতিহাসিক ক্ষণ।

বাংলাদেশ যে ফাইনাল খেলবে তাতে যেন চমকে যাওয়ার কিছু নেই! সাউথ আফ্রিকার পথে দেশ ছাড়ার আগে আকবর জানিয়ে গিয়েছিলেন, বিশ্বকাপ জেতার সামর্থ্য আছে তার দলের। অতীতে বাংলাদেশের অন্য যুব অধিনায়ক বিশ্বকাপে ভালো করাকেই মেনেছেন পাথেয়, সেখানে আকবরের কথা বুঝিয়েছে আত্মবিশ্বাসটা। কিউইদের বিপক্ষে প্রতিটা মুহূর্তে সেটাই যেন ঠিকরে পড়েছে। বোলিং, ফিল্ডিং, ব্যাটিং- তিন ক্ষেত্রেই যুবা টাইগারদের দাপট দেশের ইতিহাসে প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের দারুণ সম্ভাবনা জাগিয়েছে।

সেমির মতো স্নায়ুক্ষয়ী ম্যাচে একপেশে খেলে কিউইদের বিশ্বকাপ থেকে বিদায় করা। তাতে ফাইনালে ভারত-পরীক্ষার জন্য বড় রকমের রসদই নিতে পারবে বাংলাদেশ। ২১১ রান যুব বিশ্বকাপে খুব একটা সহজ লক্ষ্য নয়, আবার ৩২ রানের মধ্যে ফিরে গেছেন দুই ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমন ও তানজিদ হাসান তামিম।

স্বাগতিক সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে ৮০ রানের দারুণ ইনিংস খেলা তামিম এদিন মাত্র ৩ রান করে ফিরেছেন। তখন শঙ্কা! মাহমুদুল হাসান জয় ও তৌহিদ হৃদয় সেটি কাটিয়েছেন। দুজনের ৬৮ রানের জুটি ভিত গড়ে দিয়েছে।

৪৭ বলে ৪০ করে তৌহিদ হৃদয় আদিত্য অশোকের বলে স্টাম্পিং হয়ে ফিরলে খানিকটা ছন্দপতন। জয়কে দারুণ সঙ্গ দিয়ে সেখান থেকে ম্যাচটা শেষ করে এসেছেন পাঁচে নামা শাহাদাত হোসেন। চতুর্থ উইকেটে ১০১ রান তোলার পর বিচ্ছিন্ন হয়েছেন দুজনে।

ম্যাচজয়ী সেঞ্চুরি তুলেছেন মাহমুদুল। ৯৬ থেকে জেসি টাসকোফকে অনসাইডে চার মেরে সেঞ্চুরিতে পৌঁছান। ১২৬ বলে সেঞ্চুরি তোলার পরের বলেই আউট হয়েছেন, বোলারের হাতে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে। ইনিংসে ১৩ চার হাঁকানো জয় যখন সাজঘরে ফিরছেন, দলের প্রয়োজন মাত্র ১১ রান। বাকি কাজটা সেরেছেন ৫১ বলে ৪০ রানে অপরাজিত থাকা শাহাদাত।

ব্যাটিংয়ে যেমন অবদান জয়ের তেমনি বোলিংয়ে শরিফুল ইসলামের। এ পেসারের বাউন্স, ইনসুইং-আউটসুইংয়ে শুরুতেই সাবধানী হয়ে পরে নিউজিল্যান্ড। সেই সুযোগে উইকেট তুলেছেন স্পিনার শামিম হোসেন।

শুরুতে কিপটে বোলিংয়ে বাংলাদেশের পেস-স্পিন এদিন সমানে সমান দৌড় দিয়েছে। বাঁহাতি স্পিনার রাকিবুল ১০ ওভারে ৩ মেডেনে ৩৫ রানে নেন এক উইকেট। তিনি নিজের স্পেলের শুরুতে টানা ৩.২ ওভার ডট বল করেন।

আরেক বাঁহাতি স্পিনার হাসান মুরাদ ১০ ওভারে এক মেডেনে ৩৪ রানে নেন ২ উইকেট। ডানহাতি অফস্পিনার শামীম হোসেন ৬ ওভারে এক মেডেনে ৩১ রানে জমান ২ উইকেট। বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম শেষে যেয়ে একটু খরুচে হয়ে পড়েন, ১০ ওভারে ২ মেডেনসহ ৪৫ রান খরচায় তার ঝুলিতে উইকেট ৩টি।

আরো সংবাদ