বিশ্ব ভলোবাসা দিবসে কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-১৪ ১১:৪০:২৩

বিশ্ব ভলোবাসা দিবসে কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল

সমুদ্র সৈকতে নির্মল আনন্দে মেতেছে পর্যটকরা

জসিম সিদ্দিকী : বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে মানুষের ঢল নেমেছে। গত শুক্রবার থেকেই দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভ্রমণ পিপাসুদের আগমনে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো কক্সবাজারজুড়ে। বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনায় যারা এতদিন আতঙ্কে ছিলেন তারাও একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে সব কিছু ভুলে পরিবার ও আপনজনদের নিয়ে বেড়াতে এসেছেন কক্সবাজারে। শান্তিপূর্ণভাবে আনন্দ উপভোগ করতে প্রশাসন কর্তৃক প্রচার চালানো হলেও পর্যটকেরা তা মানার ক্ষেতে ছিলেন উদাসীন।

সরেজমিনে আজ বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সকালে কক্সবাজারে দেখা গেছে, পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে কক্সবাজারের দর্শনীয় স্পটগুলো। সমুদ্রে নামতেই সাগরের ঢেউয়ের পানি এসে পরম আতিথেয়তায় পা ধুয়ে দিল। তারপর আস্তে আস্তে পানি আবার সমুদ্রের দিকে চলে গেল। আবার আসলো আবার চলে গেল। সমুদ্রের এই বিশালতায় মুগ্ধ হয়ে ভালোবাসার মানুষকে হাত ধরে সময় কাটানোর এমন দৃশ্য দেখা যায়।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হুমাইরা আক্তার হিমু বলেন, আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। তাই বন্ধুদের নিয়ে সমুদ্রে নেমেছি আনন্দ উপভোগ করতে।

সোহেল নামের আরেকজন চাকরিজীবী বলেন, আমার বান্ধবীর পছন্দের শহর কক্সবাজার। আমরা আগের বছরও এখানে বেড়াতে এসেছিলাম। এবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে দু’দিন আগে থেকেই কক্সবাজারে এসছি। আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি আমাদের ভালোবাসার পাঁচ বছর পূর্ণ হয়েছে। এই দিনে রংপুর কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের পরিচয়। আমার বান্ধবী মেঘনাকে নিয়ে ঘুরতে এসেছি।

ভোর থেকে সৈকতের সর্বত্র জড়ো হয়ে দাঁড়িয়ে আছে হাজারো পর্যটক। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্ট থেকে সুগন্ধা ও কলাতলী পয়েন্টে দেখা যায়, পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত ছিল। ভালোবাসা দিবসকে স্মরণীয় করার জন্য প্রিয় মানুষকে সাধ্যমতো উপহার কিনে দিতে ভিড় দেখা গেছে রাখাইন বার্মিজ মার্কেটগুলোতে।

তাছাড়া সমুদ্রের ঝিনুক মার্কেটেও উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। ফুলের দোকানেও লম্বা লাইন। কেউ আবার মুঠোফুনে বিভিন্ন ভঙ্গিতে ছবি তুলে দিবসটিকে স্মৃতিময় করে রাখছেন। সমুদ্র সৈকতে যুগল পর্যটকদের ভোর থেকেই আড্ডা দিতে দেখা গেছে।

তাদের মধ্যে উম্মে আইমন ও রাসেল বলেন, ‘আমরা গভীর রাত পর্যন্ত আজ আড্ডা দিব। কক্সবাজার সমুদ্রে রাত যত গভীর হয় তত আড্ডা ভালো জমে। এখানকার পরিবেশ খুব সুন্দর। গতকাল রাত বারোটা পর্যন্ত সমুদ্রে আড্ডা হয়েছে। এখানে যে যার মতন করে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

ঢাকা থেকে আসা আতাউর রহমান দম্পতি বলেন, এখানকার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এসেছি। ৫ বছর আগে একবার এসেছিলাম। এখানে অনেক দর্শনীয় স্পটের মধ্যে মিনি বান্দরবান খ্যাত উখিয়ার রেজু খালের পাশে গোয়ালিয়া, উখিয়ার পাথুরে বীচ ইনানী সমুদ্র সৈকত, ও হিমছড়িতে গিয়ে ভালো লাগছে।

 

হোটেল কর্তৃপক্ষ বলছেন, এবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে হোটেল-মোটেল আগে থেকেই বুকিং হয়ে আছে। আর কক্সবাজার সর্বত্রই ট্যুরিস্ট পুলিশের কঠোর নজরদারি রয়েছে।

আরো সংবাদ