বিষমুক্ত সবজি চাষে পথ দেখাচ্ছেন যে নারীরা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২২-০৩-১১ ০৯:১৭:২১

বিষমুক্ত সবজি চাষে পথ দেখাচ্ছেন যে নারীরা

নিউজ  ডেস্ক  :  লতিফা বেগম (৩৩) কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে রমনা এলাকার একটি নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহবধূ। তার স্বামী মুকুল ইসলাম একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। আবাদি জমি নেই তাদের। কেবল বসতভিটার সঙ্গে শতাংশ খালি জায়গা রয়েছে।

লতিফা গত ১ বছর ধরে এই অল্প জমিতেই ক্ষতিকারক কীটনাশক ও রাসায়নিক ছাড়াই ঘরে তৈরি জৈব সার ব্যবহার করে নানা ধরনের সবজি ফলাচ্ছেন। উৎপাদিত সবজি দিয়ে পরিবারের চাহিদা মেটানোর পর বাইরের ক্রেতাদের কাছেও বিক্রি করছেন কিছু কিছু।

এই এলাকার আরেক গৃহবধূ লিজা বেগমের গল্পটাও একই রকম। তিনি তার বসতভিটা লাগোয়া ১৭ শতাংশ জমিতে সবজি চাষ করছেন ১ বছর ধরে। সবজি উৎপাদনে তিনিও ব্যবহার করেন বাড়িতে তৈরি প্রাকৃতিক কেঁচো সার বা ভার্মি কম্পোস্ট।

ছবি: স্টার

লিজা বেগম জানান, উৎপাদিত সবজি দিয়ে পরিবারের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি তা ভালো দামে বিক্রিও করছেন তিনি। এই কাজে তাদের সহযোগিতা করছে স্থানীয় একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লতিফা ও লিজার মতো ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের অন্তত ৫০০ পরিবার কীটনাশক ও রাসায়নিকমুক্ত সবজি উৎপাদনে যুক্ত আছে।

এমন আরেকজন সরকারপাড়া গ্রামের নূরজাহান বেগম (৫০) ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বাজারে যে শাক-সবজি পাওয়া যায় তার অনেক দাম। রাসায়নিক সার ও কীটনাশক দিয়ে উৎপাদন করা এসব সবজি স্বাস্থ্যের জন্যও ক্ষতিকর। তাই ভার্মি কম্পোস্ট ব্যবহারের মাধ্যমে উৎপাদিত ফসল যেমন নিজেদের জন্য নিরাপদ, তেমনি বাজারেও এর ভালো চাহিদা আছে।’

স্বল্প আয়ের এই পরিবারগুলোকে রাসায়নিকমুক্ত সবজি চাষে উদ্বুদ্ধ করছে সাসটেইনড অপরচুনিটিজ ফর নিউট্রিশন গভর্নেন্স (সঙ্গো) শীর্ষক একটি প্রকল্প। ইউরোপীয় ইউনিয়নের আর্থিক সহায়তায় যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশ ও কর্ডএইড।

ছবি: স্টার

এ বিষয়ে প্রকল্পের চিলমারী উপজেলা তত্ত্বাবধায়ক আহসানুল কবির বুলু ডেইলি স্টারকে বলেন, এরমধ্যেই ব্রহ্মপুত্রপাড়ের মানুষের মাছে বিষমুক্ত সবজি চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ভার্মি কম্পোস্ট উৎপাদন ও সবজি চাষের প্রশিক্ষণ এবং সহায়তা দেওয়া হচ্ছে তাদের।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মঞ্জুরুল হক এ বিষয়ে বলেন, আপাতত জৈব সার ব্যবহার করে উৎপাদিত সবজি দিয়ে পরিবারগুলোর চাহিদা মিটলেও এর বাণিজ্যিক উৎপাদন সেভাবে শুরু হয়নি। এই কাজে বেসরকারি সংস্থার পাশাপাশি কৃষি বিভাগও কারিগরি সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। সূত্র… ডেইলি স্টার অনলাইন ।

আরো সংবাদ