মহানবমীতে মন্ডপে মন্ডপে বাজবে বিদায়ের সুর - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১০-২৪ ১৬:১৩:১১

মহানবমীতে মন্ডপে মন্ডপে বাজবে বিদায়ের সুর

মহানবমীতে মন্ডপে মন্ডপে বাজবে বিদায়ের সুর
Spread the love

এম এ আজিজ রাসেল : কল্পারম্ভ আর সন্ধি পূজার মধ্যদিয়ে শেষ হয়েছে সনাতম ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার তৃতীয় দিন ‘মহাঅষ্টমী’। শনিবার (২৪ অক্টোবর) সকালে ষোড়শ উপাচারে অনুষ্ঠিত হয় দেবীর পূজা। এবার বেশিরভাগ ভক্ত এবার অঞ্জলি নিয়েছেন ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে কিছু দর্শনার্থী অবশ্য মন্দিরে উপস্থিত হয়ে ভোগ নিবেদন আর উপবাসে অঞ্জলি প্রহন করেছেন। পাঁচদিনব্যাপী শুরু হওয়া সার্বজনীন উৎসবের কাল রবিবার মহানবমী। মন্ডপে মন্ডপে বাজবে বিদায়ের সুর। সোমবার দশমী শেষে সৈকতে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটবে উৎসবের।

করোনা সংক্রমণের আতঙ্ক আর কার্তিকের নিন্মচাপের প্রভাবে বৃষ্টির কারণে এবারের উৎসবের আনন্দ অনেকটাই ম্লান করেছে। প্রাণঘাতি ভাইরাসে এবারের পূজায় বেচা কেনাও হয়েছে অনেক কম। খুব একটা ভীড় লক্ষ করা যায়নি দোকানপাট ও শপিং মল গুলোতে। অনেকেই অর্থনৈতিক টানাপোড়ের মধ্যে গত বছরের পোশাক দিয়ে চালিয়ে নিচ্ছেন। কেউ কেউ কেনাকাটা করলেও বাজেটে কাঁটছাট করতে হয়েছে। ২৪ অক্টোবর শনিবার সন্ধ্যায় শহরের কালী বাড়ি, সরস্বতি বাড়ি, বঙ্গপাহাড়, জলদাশ পাড়া, গোলদিঘি পাড়ের ইন্দ্রসেন দূর্গা বাড়ি ও কৃষ্ণনান্দধাম পূজা মন্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, ভক্তদের উপস্থিতি আগের চেয়ে অনেক কম। যারা আসছেন তাদের বেশিরভাগই স্বাস্থ্যবিধি মেনে। তাছাড়া মন্ডপ প্রাঙ্গনে গান বাজনার আয়োজন না থাকায় ভক্তরা দ্রুত বাড়ি ফিরছেন। অন্য বছরের চেয়ে এবারের আলোকজ্জাও অনেক কম হয়েছে। কয়েকটি মন্দিরে একেবারেই সীমিত পরিসরে হয়েছে প্রসাদ বিতরণ। আরতিতেও খুব একটা ভীড় দেখা যায়নি।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাড. রণজিত দাশ, সাধারণ সম্পাদক ও হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বাবুল শর্মা বলেন, আমরা যেন একটি সুন্দর প্রভাতে আবার সবাই একত্রিত হতে পারি, আমরা যেন আবার সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারি। সবাই যেন ভালো থাকে। তারা আরও বলেন, উৎসবে মায়ের কাছে প্রার্থণা একটা অসুর শক্তি বিনাশকারী দেবী দূর্গা সবাইকে বিপদ থেকে মুক্তি দিবেন।
ষষ্ঠী থেকে সপ্তমী হয়ে অষ্টমীতেও ছিল বৃষ্টি। দিনভর থেমে থেমে বাদলা হাওয়া মন্ডপে যেতে বাঁধা সৃষ্টি করেছে। তবুও উৎসব বলে কথা। অনেকেই বৃষ্টির মধ্যে এসেছেন মন্ডপে। ভোগ দিয়েছেন। মায়ের পায়ে দিয়েছেন পদ্ম। করোনার কারণে এবার পদ্মা ফুলেরও আকাল। দাম বেড়েছে কয়েকগুন। তারপরও মিলছে না।
পুরোহিতরা বলছেন, সন্ধি পূজোর সময় দেবীকে চামুন্ডা রূপে পূজা করা হয়। পুরাণে এই পূজার বিশেষ মাহাত্ম্য রয়েছে। বলা হয়, অষ্টমী এবং নবমীর সন্ধিক্ষণের এই পূজায় সারা বছর বিশেষ ফল লাভ হয়।
বলা হয়, রামচন্দ্রের হয়ে রাবণ বধের জন্য ব্রহ্মা দেবীর বোধন করেছিলেন আশ্বিনের কৃষ্ণা নবমী তিথিতে। ব্রহ্মা বলেছিলেন, আশ্বিন মাসের কৃষ্ণা নবমী তিথিতে আমরা সংকল্প করছি যতদিন পর্যন্ত না রাবণ বধ হয় ততদিন পর্যন্ত আমরা তোমার পুজো করে যাব। এরপরই দেবী তুষ্ট হন। বলেন, নবমীর অপরাহ্নেই রাবণ বধ হবে।
পুরাণ মতে দেবী দুর্গা যখন মহিষাসুরের সঙ্গে যুদ্ধে রত তখন তাঁর দুই সেনা চন্ড ও মুন্ড দেবীকে আক্রমণ করে। তখন দেবী দুর্গার তৃতীয় নয়ন থেকে এক দেবীর আবির্ভাব হয় যিনি চন্ড ও মুন্ডকে বধ করেন। এই কারনে দেবীর নাম হয় চামুন্ডা। সন্ধিক্ষণে আসলে দেবী চামুন্ডারই পূজা হয় ১০৮ পদ্ম ও ১০৮ প্রদীপ জ্বালিয়ে।
তাছাড়া পদ্মফুলের জন্ম পাঁকে। কিন্তু, তবুও পদ্মফুল পাঁক থেকে ওঠে গায়ে পাঁকের দাগ না নিয়ে। পদ্ম আসলে এই ইঙ্গিতই দেয় যে পরিবেশ শেষ কথা নয়। খারাপ পরিবেশে জন্মেও অনেক ভালো কাজ করা যায়, যেমন পাঁকে জন্মে পদ্ম পূজার আবশ্যিক অঙ্গ। হিন্দু শাস্ত্র মতে ১০৮ সংখ্যাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দেবতাদের থাকে অষ্টোত্তর শতনাম। ১০৮ পদ্ম, ১০৮ প্রদীপ। যোগের ক্ষেত্রেও ১০৮ সংখ্যা গুরুত্বপূর্ণ। আয়ুর্বেদ মতে শরীরে ১০৮ টি ‘পয়েন্ট’ আছে।

আরো সংবাদ