মহেশখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক চিংড়ীঘের তৈরীর কাজ অব্যাহত - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০২-২৭ ০৬:০৬:০৯

মহেশখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক চিংড়ীঘের তৈরীর কাজ অব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুরের বন বিভাগের প্যারাবন দখল করে চিংড়ী ঘের করতে মাটি কাটা অব্যাহত রয়েছে। প্রায় শতাধিক শ্রমিক দিয়ে মাটি কেটে ঘের তৈরী করার সময় ১৯ ফেব্রুয়ারী সকালে বনবিভাগ অভিযান চালায়। এসময় কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি করে শ্রমিকদের উচ্ছেদ করে বনবিভাগ। কিন্তু বনবিভাগের অভিযানের পর রাতে পুনরায় শ্রমিক দিয়ে মাটি কেটে ঘের তৈরী করার কাজ অব্যাহত রেখেছে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেক।
কক্সবাজারে বাঁকখালী নদী দখলের দায়ে বাংলাদেশ নদী কমিশনের তালিকা, জেলা প্রশাসনের তালিকা, পরিবেশ অধিদপ্তরের তালিকা ও বিআইডব্লিউটিএ এর তালিকায় শীর্ষে নাম রয়েছে শাপলাপুরের ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেক। প্যারাবন কাটা এবং নদী দখলের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলাও করে পরিবেশ অধিদপ্তর। এর পরেও বন্ধ হচ্ছে না ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেক কর্তৃক প্যারাবন ও নদী দখল।
শাপলাপুরে অবস্থিত চরণদ্বীপ রেঞ্জের বিট কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক সরকার বলেন, চেয়ারম্যান আবদুল খালেক দিনেশপুর আশ্রয়ন প্রকল্প সংলগ্ন বন বিভাগের প্যারাবনে অবৈধভাবে শ্রমিক দিয়ে মাটি কেটে চিংড়ী ঘের করার চেষ্টা করে। উক্ত খবরের ভিত্তিতে উর্ধতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে ১৯ ফেব্রুয়ারী সকালে অভিযান চালানো হয়। অভিযান কালে প্রায় শতাধিক শ্রমিক মাটি কেটে বাধঁ দিয়ে ঘের তৈরী করার চেষ্টা করছিল। এসময় বন বিভাগের পক্ষ থেকে তাদের বাধাঁ দেয়া হয়। কিন্তু শ্রমিকরা বনবিভাগের বাধা মানতে রাজি না হওয়ায় কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি করে তাদের উচ্ছেদ করা হয়। পরবর্তিতে রাতের বেলায় পুনরায় শ্রমিক দিয়ে মাটি কেটে ঘের তৈরী করার কাজ করার কথা শুনেছি। এ বিষয়টি উর্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। বনবিভাগের সরকারী জমি কাউকে দখল করতে দেয়া হবে না।
গোরকঘাটা ও চরণদ্বীপের রেঞ্জ কর্মকর্তা হাবিবুল হক বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেক চৌধুরী কর্তৃক প্যারাবনের জমিতে মাটি কেটে চিংড়ী ঘের করার চেষ্টা করলে অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদ করা হয়। পুনরায় সরকারী জমি জবরদখলের চেষ্টা করা হলে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে আলাপ করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বনবিভাগের জমি কাউকে দখল করতে দেয়া হবে না। এবিষয়ে শাপলাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও মোবাইল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
অনুসন্ধানে জানা যায়, কক্সবাজার শহরের কস্তুরাঘাট এলাকায় বাঁকখালী নদী দখল করে পাকা ভবন, টিনশেড ঘর নির্মাণ ও পুকুর খনন করেছেন শাপলাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেক। নদী দখলদারের মধ্যে জেলা প্রশাসনের ৪০০ জনের তালিকায় কয়েকজন প্রভাবশালী দখলদারের মধ্যে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল খালেকের নাম সবার শীর্ষে। বাংলাদেশ নদী কমিশনের তালিকা ও বিআইডব্লিউটিএ এর ৫১ জন প্রভাবশালী দখলদারের তালিকায়ও রয়েছে আব্দুল খালেক। প্যারাবন কাটা এবং নদী দখলের অভিযোগে আব্দুল খালেকের বিরুদ্ধে মামলাও করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

আরো সংবাদ