মহেশখালীতে চাল উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-০৭ ০০:২১:৪৬

মহেশখালীতে চাল উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

মহেশখালীতে চাল উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের মহেশখালীতে চৌকিদারের বাড়ী থেকে ৩০ বস্তা ভিজিডির চাল উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন। উদ্ধার হওয়া চালের পরিমাণ প্রায় ৭০০ কেজি বলে দাবী করা হচ্ছে। মঙ্গলবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পশ্চিম সিপাহীর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সরকারী চাল উদ্ধারের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহফুজুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অপরাধী যেই হউক তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্থানীয়দের ভাষ্যমতে, ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের চৌকিদার আব্দুস সাত্তার এর ১ম স্ত্রী বিবুলা বেগম স্থানীয় একজন ধাত্রী সেই সূত্রে এলাকার বিভিন্ন জায়গায় কাজ করে। এই সুযোগে তার স্বামীকে ব্যবহার করে গ্রামের সহজ সরল নারীদের ভিজিডি, ভিজিএফ, বয়স্ক, মাতৃত্বকালীন কার্ড করে দেয়ার নামে টাকা আদায় করে থাকে। তার এই অপকর্ম বাস্তবায়নে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার, মহিলা মেম্বার ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা কার্যালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারীরা জড়িত থাকে। বিবুলার নেওয়া অর্থ থেকে সংশ্লিষ্টজনরা প্রতি কার্ডের পিছনে স্বাক্ষর করতে ১টি অংশ নেয় বলে জানা যায়।
ঘটনার দিন ৬ জুলাই ছোট মহেশখালী ইউনিয়ন পরিষদ থেকে চারটি ইজিবাইকযোগে চৌকিদার আব্দুস সাত্তার বিপুল পরিমাণ ৩০ কেজি ওজনের ভিজিডি চাল বাড়ীতে নামায়। এ দৃশ্যটি দেখতে পেয়ে এলাকার লোকজন প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করে। তারই সূত্র ধরে মঙ্গলবার বিকালে মহেশখালী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসএম আলমগীর হোসেন, ছোট মহেশখালী ইউনিয়ন ট্যাগ অফিসার তাপস দত্ত ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাশেদুুল ইসলামের নেতৃত্বে ১টি টিম চৌকিদার আব্দুস সাত্তারের বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় ওই বাড়ীতে তার ১ম স্ত্রী বিবুলা পলাতক ছিল। আব্দুস সাত্তারের বড় মেয়ে পারভীন আক্তারের দেয়া তথ্য মতে আব্দুস সাত্তারের বাড়ীর ১টি কক্ষে তালা বদ্ধ অবস্থায় ৮০ কেজি ওজনের ৬টি প্লাস্টিকের বস্তা পাওয়া যায়। পরে ওই কক্ষের উপরের শিলিং তল্লাশি করে ১৭টি ভিজিডি চালের খালি বস্তা ১টি কাটুনের প্যাকেটে পাওয়া যায়। এতে মোট ৭০০ কেজি চাল উদ্ধার করা হয়েছে।

পাশের বাড়ীর আব্দু জলিলের বসতবাড়ীর খাটের নিচে ৩ বস্তা জনৈক মোস্তাক আহমদের বাড়ী থেকে ৬ বস্তা, সোলতান আহমদের বাড়ীর খাটের নিচ থেকে ৬ বস্তা, পানির ড্রাম থেকে ৩ বস্তা টমটমের গ্যারেজ থেকে ৬ বস্তা জব্দ করে। এ সময় বাড়ীর মালিকগন একেকটি কার্ড প্রদর্শন করলেও প্রকৃত অর্থে কার্ডের সাথে তাদের মালিকানা সঠিক পাওয়া যায় নাই বলে জানাগেছে। এদিকে অভিযান চলাকালিন পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চৌকিদার আব্দুস সাত্তার ও তার মেয়েরা বাসা থেকে পালিয়ে যায়। উদ্ধারকৃত চাল উপজেলা প্রশাসনের হেফাজতে রয়েছে।

এ নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান জিহাদ বিন আলী জানান, আমার পরিষদ থেকে যদি মিথ্যা তথ্য দিয়ে কোন কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন হয় উক্ত বিষয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ