মহেশখালীতে সরকারী জায়গায় স্থাপনা নির্মাণের হিড়িক! - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৯ মে ২০২১ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-১৩ ১১:১৪:০৬

মহেশখালীতে সরকারী জায়গায় স্থাপনা নির্মাণের হিড়িক!

মহেশখালীতে সরকারী জায়গায় স্থাপনা নির্মাণের হিড়িক!

মহেশখালী প্রতিনিধি : কক্সবাজারের মহেশখালীতে অনুমতি ছাড়াই সরকারি জমিতে প্রতিনিয়ত নির্মিত হচ্ছে বিভিন্ন ক্যাটাগরি কাঁচা বাড়ীসহ বহুতল ভবন । উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড় উত্তর নলবিলা পাহাড়ি এলাকায় এসব ভবনের নির্মাণ হচ্ছে বেদমগতিতে!

এ যেন সরকারি জমি দখল করে বেআইনি ভবন নির্মাণের হিড়িক । এমনকি উপজেলাস্থ অন্যান্য ইউনিয়নে কর্তৃপক্ষ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করলেও কালারমারছড়ায় দীর্ঘ একযুগ ধরে কোন ধরণের উচ্ছেদ অভিযানের প্রভাব পড়েনি।

যার কারনে সরকারী ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত উত্তর নলবিলা মৌজার পাহাড়ি এবং ১২নং পাহাড় মৌজা জায়গায় গাছ কর্তন করে প্রভাবশালীরা অবৈধ ভবন নির্মাণের প্রতিযোগিতা অব্যাহত রেখেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

তবে এসব নির্মাণাধীন ভবন মালিকদের দাবি, সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সঙ্গে কথাবার্তা বলেই তারা নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রকাশ্যে ভবনের নির্মাণ কাজ চলাছে উত্তর নলবিলা বড়ুয়াপাড়া এলাকায় নজরুল ইসলাম। সম্প্রতি ৮ থেকে ১০ জন শ্রমিক লাগিয়ে ভবন নির্মাণ দ্রুত শেষ করতে বিরতিহীন কাজ চালাচ্ছে বলে প্রতিবেশিদের ভাষ্য।

সরকারি জমিতেই এভাবে ভবন নির্মাণ কাজ চলমান থাকলে বাংলাদেশ সরকারের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় দখল-বেদখল নিয়ে মালিকানায় ব্যাঘাত সৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

চলমান প্রকল্পের অধিগ্রহণে দখল-বেদখল নিয়ে অনেক সমস্য সৃষ্ট হয়েছে। সচেতনমহল অভিমত পোষণ করেন মহেশখালী উপজেলার পৌরসভা, বড় মহেশখালী, ছোট মহেশখালী, শাপলাপুর, মাতারবাড়ীতে তৎসময়ে সরকারী ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত ও ১২নং পাহাড় মৌজার জায়গায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করলেও কালারমারছড়া ইউনিয়নে অভিযান হয়নি।

এমনকি এ ইউনিয়নে বেশির স্থাপনা সরকারী জায়গার উপর নির্মিত এবং প্রভাবশালীদের দখলে। তাই সচেতন মহলের দাবী অতিবিলম্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে সরকারী জায়গা উদ্ধারের সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করেন তাঁরা।

সরকারী জায়গায় স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে ভবন মালিক নজরুল মুঠোফোনে জানান, আমার স্বপ্ন ছিল একটি বহুতল ভবন করার ; তাই করে যাচ্ছি। এখানে কারো অনুমতি নিতে হয় না। তবে আমি কথা বলেই করছি। এনিয়ে মহেশখালীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলমগীর হোছাইন জানান, ভবন নির্মাণের বিষয়ে আমি অবগত নই । যদি অবৈধভাবে কেউ ভবন নির্মাণ করে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ