মাধ্যমিক শাখায় এবার ভর্তি হবে লটারির মাধ্যমে - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১ ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-১১-২৫ ১৮:৩৮:৪৭

মাধ্যমিক শাখায় এবার ভর্তি হবে লটারির মাধ্যমে

মাধ্যমিক শাখায় এবার ভর্তি হবে লটারির মাধ্যমে

নিউজ ডেস্ক :  করোনা সংক্রমণের কারণে এবার প্রথম থেকে নবম শ্রেণীতে লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অর্থাৎ যোগ্যতার পরিবর্তে ভাগ্য পরীক্ষার ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়া হবে। লটারি প্রক্রিয়ায় একজন শিক্ষার্থী পাঁচটি প্রতিষ্ঠানে আবেদনের সুযোগ পাবে। করোনার কারণে ২০২১ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় (এসএসসি ও এইচএসসি) নির্ধারিত সময়ে নেয়া সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি আরও জানান, গত এসএসসি পরীক্ষার ফলের ৭৫ শতাংশ ও জেএসসি পরীক্ষার ফলের ২৫ শতাংশ ধরে এবারের এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই।

মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তি নিয়ে গতকাল এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াবার জন্য প্রতি শ্রেণীতে লটারির মাধ্যমে ভর্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যোগ্যতার চাইতে ভাগ্যকে প্রাধ্যান্য দেয়া হচ্ছে। বাধ্য হয়েই এই পদ্ধতি বেছে নিয়েছি।’ ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন যুক্ত ছিলেন।

বিগত বছরে প্রথম শ্রেণীতে লটারির মাধ্যমে এবং দ্বিতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণীতে লিখিত পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হতো। জেএসসি ও জেডিসির ফলের ভিত্তিতে নবম শ্রেণীতে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতো, কিন্তু এবার অষ্টমের সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হওয়ায় সে সুযোগ নেই।

রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ভর্তিতে ‘ক্যাচমেন্ট (এলাকাভিত্তিক) কোটা’ ৪০ থেকে বাড়িয়ে ৫০ শতাংশ করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘ক্লাস্টারভিত্তিক লটারিতে ঢাকার শিক্ষার্থীরা একটির জায়গায় এবার পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাছাই করার সুযোগ পাবে।’

সব শ্রেণীতে লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তির যুক্তিকতা তুলে ধরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘তিনটি বিকল্প খতিয়ে দেখেছি। একটি হচ্ছে স্কুলে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া। কিন্তু শিক্ষার্থীদের স্কুলে এনে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার ঝুঁকি নিতে চাচ্ছি না। এমসিকিউ পদ্ধতির কথা চিন্তা করেছি, কিন্তু তাতেও শিক্ষার্থীদের স্কুলে আসতে হত। অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া সবার জন্য নিরাপদ হলেও সব শিক্ষার্থীর অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা নিশ্চিত করা কঠিন হবে, তাই এটি যুক্তিযুক্ত মনে হয়নি। সবার ইন্টারনেট অ্যাকসেস নেই, আবার সংযোগেও সমস্যা আছে।’

৭ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রথম থেকে নবম শ্রেণীতে ভর্তির পুরো প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানিয়ে দেয়া হবে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ভাগ্যের ওপর নির্ভর করতে হবে বলে এবার শিক্ষার্থীদের যোগ্যতার বিষয়টি হয়ত অনেকে ভাববেন যে অপ্রাসঙ্গিক হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু একটু ভালো করে যদি লক্ষ্য করি, তাহলে বোঝা যাবে যে প্রক্রিয়াটি যোগ্যতাভত্তিক না হয়ে ভাগ্যভিত্তিক হলেও আমাদের বিদ্যালয়গুলো সর্বোপরি আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় একটি ইতিবাচক পরিবর্তনের সুযোগ সৃষ্টি হবে।’

অনেক সময় স্কুলে শিক্ষার্থী ভর্তি নিয়ে প্রশ্ন ওঠে- মন্তব্য করে দীপু মনি বলেন, ‘লটারির মাধ্যমে ভর্তি করা হলে স্বচ্ছতাও নিশ্চিত করা যাবে। আশা করি পূর্ণ স্বচ্ছতার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে পারব। অনেক প্রতিষ্ঠান বেশি ভর্তি ফি নেয়। অনেক সময় আমরা ব্যবস্থা নিই, অনেক সময় প্রমাণ না থাকায় ব্যবস্থা নিতে পারি না। আশা করি কেউ অতিরিক্ত ফি নেবেন না, অতিরিক্ত ফি নিলে ব্যবস্থা নেব, আমরা কঠোর হব।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রচলিত ব্যবস্থায় কেবল একাডেমিক অর্থে সব মেধাবী শিক্ষার্থীরা গুটিকয়েক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীভূত হয়, ফলে বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে এক ধরনের অসাম্য তৈরি হয়। প্রচলিত ভর্তি প্রক্রিয়া অব্যাহত হলে তা দূর করা অসম্ভব। একটি দেশের গুণগত শিক্ষা অর্জনে এ ধরনের অসাম্য একটি বড় বাধা। এই পদ্ধতিতে বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে কিছুটা হলেও সাম্য প্রতিষ্ঠায় সক্ষম হব।’

নির্ধারিত সময়ে আগামী বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না

করোনা সংক্রমণের মধ্যে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেয়া সম্ভব হবে না জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, ‘আগামী বছর যাদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা দেয়ার কথা, তাদের জন্য ‘তিন মাসে শেষ করা যায়’- এমন একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে, তার আলোকে তাদের তিন মাস ক্লাস করিয়ে তাদের পরীক্ষা নেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, ‘সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের আলোকে আমরা তাদের তিন মাস ক্লাস করাতে চাই। সে কারণে হয়ত এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা ২/১ মাস পিছিয়ে যাবে।’

পরিস্থিতি অনুকূল হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এসএসসি ও এইচএসসির শিক্ষার্থীদের ছয় দিন ক্লাসে আনা হবে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘অন্য শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা দুয়েকদিন স্কুলে এসে ক্লাস করবে, পাশাপাশি তাদের অনলাইন ক্লাসও চলবে।’

১০/১২ বছর ধরে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি ও সমপর্যায়ের এবং ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি ও সমপর্যায়ের পরীক্ষা শুরু হয়ে আসছে। ওই দিনগুলো সরকারি ছুটি থাকলে পরের দিন পরীক্ষা শুরু হয়। কিন্তু এবার এসএসসি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেয়া গেলেও দেশে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পেলে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। ফলে সব ধরনের পরীক্ষাসহ এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ঝুলে যায়। এই পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হবে না, তবে জেএসসি জেডিসি এবং এসএসসি ও সমমানের ফলাফলের ভিত্তিতে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল ঘোষণা করা হবে।

এছাড়া এবার পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনী পরীক্ষা এবং স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষাও হচ্ছে না। পরীক্ষা ছাড়াই সব শিক্ষার্থী পরের ক্লাসে উঠে যাবে। যদিও শিক্ষার্থীদের কোথায় দুর্বলতা তা বোঝার জন্য ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে সাপ্তাহিক অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

করোনা মহামারীর কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। সংক্রমণ সহনীয় পর্যায়ে নিম্নমুখী না হওয়ায় সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা রয়েছে।

আরো সংবাদ