মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত কায়সারের মৃত্যু পরোয়ানা জারি - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২০ জুন ২০২১ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১০-২২ ১১:০৩:৩১

মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত কায়সারের মৃত্যু পরোয়ানা জারি

মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত কায়সারের মৃত্যু পরোয়ানা জারি
Spread the love

ফাইল ছবি @ নিউজ ডেস্ক :  একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক কৃষি প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় পার্টির (জাপা) নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার সাঈদ আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বুধবার (২১ অক্টোবর) দুপুর ৩টার পর আমরা রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি পেয়েছি। আজ (বৃহস্পতিবার) মৃত্যু পরোয়ানা পাঠিয়েছি। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর এই পরোয়ানা পাঠানো হয়েছে।

চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ড সাজা বহাল রেখে রায় ঘোষণা করেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নিজের নামে ‘কায়সার বাহিনী’ গঠন করে যুদ্ধাপরাধ সংঘটনকারী হবিগঞ্জ মহকুমার রাজাকার কমান্ডার ও শান্তি কমিটির সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারকে সর্বোচ্চ সাজাসহ ২২ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।

২০১৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর এ রায় ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল।

একাত্তরে ১৫২ জনকে হত্যা-গণহত্যা, দুই নারীকে ধর্ষণ, পাঁচজনকে আটক, অপহরণ, নির্যাতন ও মুক্তিপণ আদায় এবং দুই শতাধিক বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠন ও ষড়যন্ত্রের ১৬টি মানবতাবিরোধী অপরাধের মধ্যে তার বিরুদ্ধে ১৪টিই প্রমাণিত হয়।

মামলায় সাঁওতাল নারী হীরামনি ও অপর নারী মাজেদাকে ধর্ষণের অপরাধ দু’টি প্রমাণিত হয়। ওই দুই বীরাঙ্গনা নারী ও ধর্ষণের ফলে বীরাঙ্গনা মায়ের গর্ভে জন্ম নেওয়া যুদ্ধশিশু শামসুন্নাহার প্রথমবারের মতো ট্রাইব্যুনালে এসে সাক্ষ্যও দেন কায়সারের বিরুদ্ধে। যুদ্ধাপরাধীদের মধ্যে অন্য অপরাধের পাশাপাশি প্রথমবারের মতো ধর্ষণের দায়ে ফাঁসির আদেশ পান কায়সার।

আরো সংবাদ