কক্সবাজারে এক ওসি'র স্ত্রী নিরাপত্তাহীনতায়! - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০৯-২৫ ০৯:৪৪:৪৬

কক্সবাজারে এক ওসি’র স্ত্রী নিরাপত্তাহীনতায়!

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজার শহরের চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও ডজনখানেক মামলার আসামী আবুল মনছুর প্রকাশ লুদু (৪৫) এর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা নিচ্ছে না কক্সবাজার সদর থানা পুলিশ। খোদ একজন ওসি’র স্ত্রীর দায়ের করা এজাহারটি দীর্ঘ ছয় মাসেও মামলা হিসেবে রেকর্ড করেনি কক্সবাজার সদর থানার ওসি শেখ মুনীর উল গিয়াস।

ওসি দাবি করেন, লুদু খারাপ লোক এতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু সমস্যাটা হচ্ছে অভিযোগকারী ও অভিযুক্ত আপন ভাই বোন এবং তাদের সমস্যাও পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে। তাই চাঁদাবাজির বিষয়টি রহস্যজনক মনে হয়েছে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে অভিযোগকারীনির স্বামী পুলিশ কর্মকর্তা। আমরা যদি মামলাটি নিই তবে সেটা ওই কর্মকর্তার প্রভাবের কারণে নিয়েছি বলে সকলেই মনে করবে।

তাই বিষয়টি নিয়ে আমি সদর থানার সহকারী পুলিশ সুপার ও জেলা পুলিশ সুপারের পরামর্শ গ্রহন করি। পরে বাদীকে বলেছি আদালতের মাধ্যমে পারিবারিক বিষয়টির সুরাহা করতে।

সূত্রমতে, গেল ২৭ মার্চ ১০ লাখ টাকা চাঁদার জন্য জমি বিক্রি করতে দিচ্ছে না লুদু এমন একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেছে তার ছোট বোন গোপালগঞ্জ জেলার টুংগীপাড়া থানার ওসি আবুল মনসুরের স্ত্রী দিল নেওয়াজ বেগম (৪১)। তবে সেই এজাহারকে এখনও মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করেনি কক্সবাজার সদর থানার ওসি মনির উল গিয়াস।

অথচ সদর থানা পুলিশের দেয়া তথ্য মতে, শহরের উত্তর রুমালিয়ারছড়ার হাশেমিয়া মাদ্রাসার পাশের হাজী আবদু ছবুর সওদাগরের ছেলে আবুল মনছুর প্রকাশ লুদুর বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর থানায় ডাকাতি, অস্ত্র, হত্যা চেষ্টা, হত্যা, সরকারি কাজে বাঁধা, মারামারি, অপহরণ ও চাদাঁবাজিসহ ১২ টির অধিক মামলা ও একাধিক জিডি রয়েছে। এছাড়া লুদু শহরের সন্ত্রাসীদের আশ্রয় প্রশয় দাতা বলেও অভিযোগ রয়েছে।

পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রী দিল নেওয়াজ বেগম বলেন, আমার ভাই ছোটবেলা থেকেই অপরাধমূলক কাজে যুক্ত। অন্যের জমি জবর দখল করে চাদাঁ আদায় করতে এখন তিনি (আপন বোনের) আমার কাছ থেকে চাঁদা দাবী করছেন। চাঁদা না দিলে প্রয়োজনে জানে মেরে ফেলার হুমকিও দিয়েছেন।

তিনি বলেন, আমার বাবা ২০২১ সালের ২৭ অক্টোবর শহরের আলীর জাহালের সাইফুল কমিউনিটি সেন্টারের পাশে ৮ শতাংশ জমি দানপত্র মূলে আমাকে রেজিষ্ট্রি করে দেন। যা আমার নামে খতিয়ান করা। সেই জমি আমি বিক্রি করতে গেলে আমার ভাই শহরের চিহ্নিত সন্ত্রাসী লুদু ডাকাত আমাকে বাধা দিচ্ছে। ক্রেতাদের বারবার হুমকি দিচ্ছে, খুন করবে বলে শাসিয়ে তাড়াচ্ছে। এতে ১০ লাখ টাকা দাবী করছে। এটির সুরাহা করতে আমরা পরিবারিকভাবে কয়েকদফা বসেছি। কিন্তু আমার বড় ভাই কারও কথা শুনেনি।

তিনি আরও বলেন, আমার জমি বিক্রিতে আমার অন্য ভাইবোনদের সমস্যা না থাকলেও লুদু ১০ লাখ টাকা চাঁদা জন্য আমার স্বামী মোহাম্মদ আবুল মনসুরকে ফোন করে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন। এনিয়ে চলতি বছরের ২৭ মার্চ আমি সদর থানায় লিখিত এজাহার দায়ের করেছি। কিন্তু ৬ মাস কেটে গেলেও মামলা নিচ্ছে না সদর থানার ওসি।

দিল নেওয়াজ বেগম আরও বলেন, আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে অতীতে সদর থানায় চাঁদাবাজীর মামলা রয়েছে। এছাড়া আমার কাছে যে চাঁদা দাবী করেছে তার অনেক স্বাক্ষী রয়েছে। আমি এমন ১৪ জন স্বাক্ষীর নাম ঠিকানা মোবাইল নম্বর এজাহারে দিয়েছি। এরপরও মামালা নিচ্ছে না পুলিশ।এতে করে আমি নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত আবুল মনছুর প্রকাশ লুদু বলেন, আমার বোন আমার বিরুদ্ধে যে এজাহার দিয়েছে তা আমি জানিনা বলে মুঠোফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

কক্সবাজার পুলিশ সুপার মাহাফুজুল ইসলাম বলেন, আমি নতুন এসেছি কক্সবাজারে। ২৭ মার্চের অভিযোগের বিষয়ে আমার কিছুই জানা নেই। তবে এব্যাপারে খোঁজখবর নেওয়া হবে।

সূত্র : আলোকিত বাংলাদেশ।

আরো সংবাদ