ঘুষ বাণিজ্যের মামলা হলেও বহালে আনসার কর্মকর্তা জসিম! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৭ মার্চ ২০২১ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০১-০৮ ২১:৫৬:০২

ঘুষ বাণিজ্যের মামলা হলেও বহালে আনসার কর্মকর্তা জসিম!

মামলা হলেও বহালে মহেশখালীর আনসার কর্মকর্তা জসিম!

নিউজ ডেস্ক  :  সাধারণ আনসার সদস্যদের পুঁজি করে ঘুষ বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন। তার নাটকীয় কর্মকান্ড নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বছরজুড়ে বহুবার প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নানা কারনে আমলে নেননি বলে দাবী করেছে ভূক্তভোগিরা।

অবশেষে নিরুপায় হয়ে  আনসার কর্মকর্তা জসিমের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে মহেশখালী উপজেলা আনসার কোম্পানী কমান্ডার মোহাম্মদ সোহেল। তিনি জসিমের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ এনে দন্ডবিধির ১৬১/৪০৯/৪২০/৫০৬ ধারা তৎসহ দুর্ণীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারার অপরাধে গত ২৮ অক্টোবর ২০২০ সালে কক্সবাজার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে  মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং ২১/২০২০ ইংরেজী। গত ১১ নভেম্বর বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআই কক্সবাজার পুলিশ সুপারকে তদন্তের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি বিজ্ঞ আদালত আগামী ৩০ কার্য দিবসের মধ্যে মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য নির্দেশ দেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানাগেছে, মহেশখালী উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন বিভিন্নভাবে মিথ্যা প্রলোভন ও পদ-পদবী দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ৮ জন অসহায় আনসার সদস্যদের কাছ থেকে প্রায় ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। অপরদিকে বর্তমান নিয়োগপ্রাপ্তদের কাছ থেকেও প্রায় ৭ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এ কর্মকর্তা।

ভূক্তভোগি ৮ আনসার সদস্য তার ঘুষ বাণিজ্যের বিষয় উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিক লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এতে কোনো কূল কিনারা না হওয়ায় অবশেষে গত ২৮ অক্টোবর কক্সবাজার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে তারা মামলা দায়ের করে।
বর্তমানে মামলাটি পিবিআইয়ের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা দ্বারা তদন্ত কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে বাদী পক্ষের ১০ জন আনসার সদস্য কক্সবাজার পিবিআই কার্যালয়ে তদন্ত কর্মকর্তার কাছে ১৬০ ধারামতে জসিম ও অপরাপর আসামীদের বিরুদ্ধে জবানবন্দি দিয়েছে।

ভূক্তভোগিদের দাবী, দীর্ঘদিন ধরে নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে দেশের ইতিহাসের স্বনাম ধন্য সংস্থা আনসার বাহিনীতে চাকরি করে আসছে বিতর্কিত এ জসিম। তার চাকরি জীবনে বিভিন্ন স্থানে নানা অপরাধমূলক ঘটনার জন্ম দিয়ে তিনি এখনও চাকরিতে বহালে রয়েছে। ভূক্তভোগিদের প্রশ্ন এতো অপরাধ করার পরও কিভাবে জসিম চাকরিতে বহাল আছে! শুধু তাই নয়, তার হাতে আক্রান্ত হয়ে পথে বসেছে শতাধিক সাধারণ আনসার সদস্য।

সূত্র জানিয়েছে, মামলার আসামী জসিম আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ডিইটি দেয়ার নামে তার অধীনস্থ কর্মচারিদের ব্যবহার করে নামে বেনামে আনসার সাজিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ তারা আনসার বাহিনীর প্রশিক্ষিত কেউ না। জসিম তাদেরকে টাকার বিনিময়ে ভূঁয়া আনসার সদস্য বানাতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এমন কি জসিম বেপরোয়া হয়ে তার অবৈধ কাজে বেশ সফলও বটে!
বর্তমানে মহেশখালীর প্রায় ৪৮ জন বিভিন্ন সংস্থায় কর্মরত সাধারণ আনসার সদস্য মাসিক কন্ট্রাকের বিনিময়ে অনুপস্থিত থেকে বেতন ভাতা সংগ্রহ করছে। কিন্তু জসিম কৌশল খাটিয়ে প্রতি মাসে তাদের বেতন ভাতা উত্তোলন করে। ওই টাকা থেকে অর্ধেক নিজে নেয় অপর অংশ অনুপস্থিত আনসার সদস্যদের বিকাশ করে।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী মোহাম্মদ সোহেল জানান, মহেশখালী উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা জসিম উদ্দিনসহ ১৭ জনের বিরদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছি। মামলা হলেও দুর্ণীতিবাজ ও ফক্করবাজ আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা জসিম এখনও বহালে। জসিমসহ অপরাপর আসামীরা বাদীসহ ভিকটিমদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতে হুমকি দিয়ে আসছে বলেও মামলার বাদী জানায়।

উল্লেখ্য যে, ২০১১ সালে জসিম উখিয়ায় টিআই হিসেবে কর্মরত থাকাকালে নানা অপরাধে ষ্ট্যান্ড রিলিজে আক্রান্ত হয়। ২০১০ সালে কুতুবদিয়ায় টিআই হিসেবে কর্মরত থাকাকালে একই অপরাধে বেতন ভাতা বন্ধ রাখার সুপারিশ করেছে তৎকালীন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল বশর চৌধুরী। ২০০৫ সালে মহেশখালীতে টিআই হিসেবে কর্মরত থাকাকালে নানা অপরাধে সাবেক এমপি আলমগীর ফরিদের হাতে লাঞ্চিত হয়ে মহেশখালী ত্যাগ করে। ২০১৮ সালে সিলেট সদরে দায়িত্ব পালনকালে একই অপরাধে জসিমকে হেড কোয়ার্টারে ক্লোজ করা হয়। সূত্র- দৈনিক কক্সবাজার।

আরো সংবাদ