সীমান্তে চলছে গোলাগুলি ও বোমা বর্ষণ, সর্তকতায় বিজিবি - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-০৪ ০৬:৫৫:১৯

সীমান্তে চলছে গোলাগুলি ও বোমা বর্ষণ, সর্তকতায় বিজিবি

মায়ানমারের সংঘাতে আবারও কাঁপছে বাংলাদেশের সীমান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক :  বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের অংশে ব্যাপক গোলাগুলি ও বোমা বর্ষণ হচ্ছে। রবিবার (৪ ফেব্রæয়ারি) দিবাগত রাত ৩টা থেকে দুপুর পর্যন্ত বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ও তুমব্রæ সীমান্তে থেমে থেমে গুলি ও বোমা বর্ষণ চলছে। বেশ কয়েকটি গুলি ও মর্টারশেল এসে পড়েছে বাংলাদেশের ভূখÐে। তুমুল যুদ্ধাবস্থায় মিয়ানমারের বিজিপির সদস্যরা প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের দেয়া তথ্যমতে, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রæ সীমান্তে মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলিতে দুই বাংলাদেশি আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তারা হলেন প্রবীর চন্দ্র ধর (৫৯) ও একজন নারী (নাম পরিচয় জানা যায়নি)। তারা দুজনেই হিন্দু পাড়ার বাসিন্দা বলে নিশ্চিত করেছেন ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়ি তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মাহাফুজ ইমতিয়াজ ভুঁইয়া। গোলাগুলিতে কোনাপাড়ার কয়েকটি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এ ঘটনার পর থেকে সীমান্ত এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক আরও বেড়ে গেছে। এমন পরিস্থিতে রবিবার সকালে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) প্রথমে ১৪ পরে বিকেলে নাগাদ পর্যন্ত ৬৬ জন তুমব্রæ বিজিবি ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে।

এদিকে বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আবদুল্লাহ আল মাসরুকি  জানান, গোলাগুলি ও সংঘর্ষে প্রাণহানির শঙ্কায় মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ বিজিপির বেশকিছু সদস্য বাংলাদেশের ভূখÐে আশ্রয় নিয়েছে। তবে কতজন মিয়ানমার বিজিপির সদস্য আশ্রয় নিয়েছে সংখ্যাটা তিনি নিশ্চিত করেননি। বিজিবি উল্লেখ করতে পারেনি। তাদের প্রচলিত আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী নিরস্ত্র করে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ জানিয়েছেন, মায়ানমারের বিজিপির প্রায় ৬৬ জন সদস্য তুমব্রæ সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

এদিকে উত্তেজনা বৃদ্ধির কারণে সীমান্তের ১০০ গজ দূরত্বে থাকা মিশকাতুন নবী দাখিল মাদরাসাসহ ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার কথা জানিয়েছেন বান্দরবান জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফরিদুল আলম হোসাইনী।

বান্দরবান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল মান্নান জানান, রোববার (৪ ফেব্রæয়ারি) সকাল থেকে মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকার অভ্যন্তরে গোলাগুলি বৃদ্ধি পাওয়ায় সীমান্ত এলাকার বাইশ ফাঁড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভাজাবনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তুমব্রæ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিমকুল তুমব্রæ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দক্ষিণ ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।

এদিকে, বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড বিজিবি সীমান্তে নিরাপত্তা বাড়িয়েছে। নিরাপত্তা চৌকিগুলোতে সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে বিজিবি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী ক্যাম্প দখলকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হচ্ছে। শনিবার বিকেল থেকে থেমে থেমে গোলাগুলি হচ্ছিল। রবিবার আবার ভোর থেকে লাগাতার গোলাগুলি, মার্টারশেল নিক্ষেপ ও রকেট লান্সার বিস্ফোরণে, বিকট শব্দে কেপে উঠছে সীমান্তবর্তী নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম-তুমব্রæ বিস্তীর্ণ এলাকা। শুধু তাই নয় গুলির শিষা ও রকেট লঞ্চার উড়ে এসে পড়ছে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছেন।

এসব ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী। ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠাতেও পারছেন না অভিভাবকরা। এছাড়াও কৃষকরা কৃষি ক্ষেতে যেতে ও দৈনন্দিন কাজে যেতে ভয় পাচ্ছেন।

স্থানীয়রা জানান, গত কয়েক দিন ধরে মিয়ানমারের ভেতরে সশস্ত্র গোষ্ঠীর সঙ্গে দেশটির সেনাবাহিনীর সংঘাত চলছে। এতে ব্যবহার করা হচ্ছে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন গোলাবারুদ ও বিস্ফোরক। এসব গোলাবারুদ আর বিস্ফোরকের বিকট শব্দে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের সীমান্ত এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না। এদিকে সীমান্তে এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই নিজ বাড়ি ছেড়ে আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে চলে যাচ্ছেন।

তুমব্রæ উত্তরপাড়া স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল হক বলেন, যেভাবে মিয়ানমার থেকে গুলি এপাড়ে এসে পড়ছে তাতে পরিবার ও নিজেকে নিরাপদ মনে করছি না। আপাতত উখিয়ায় বোনের বাসায় আশ্রয় নিয়েছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফিরবো।

আব্দুল্লাহ নামের আরেক বাসিন্দা বলেন, গতকাল বিকেলে কয়েকটি গুলি ও মর্টারশেল সিএনজিচালিত অটোরিকশায় এসে পড়েছে। রবিবার সকালে এক কৃষকের শরীরে পড়েছে। ভোরে বসতঘরে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে কেউ নিরাপদ নয়। তাই অন্য জায়গায় আশ্রয় নিতে যাচ্ছে। সীমান্তের পরিস্থিতি এখনো থমথমে। আমরা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় রয়েছি।

ঘুমধুম ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. আলম বলেন, আমার ওয়ার্ডের কিছু মানুষ পার্শ্ববর্তী এলাকায় আশ্রয় নিয়েছেন। ভোর থেকে ভারী অস্ত্রের বিকট শব্দ শুনা যাচ্ছে। এদিকে সীমান্তে থমথমে অবস্থা বিরাজ করায় দুই গ্রামের প্রায় ৫ হাজার বাংলাদেশি অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন।

এনিয়ে ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়ি’র ইনচার্জ পরিদর্শক মাহাফুজ ইমতিয়াজ ভুঁইয়া বলেন, এখানকার পরিস্থিতি এই মুহূর্তে কিছুটা স্বাভাবিক আছে। সীমান্ত এলাকায় কাউকে যেতে দেয়া হচ্ছে না। বিজিবি ও আমরা তৎপর রয়েছি। আতঙ্কিত হয়ে এলাকা ছাড়ার খবর তেমন তার কাছে নেই বলে জানান।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা বলছেন, রাত থেকে এখনও মুহুর্মুহু গুলি ও মর্টার শেলের গোলা নিক্ষেপ চলছে মিয়ানমার সীমান্তে। এ ঘটনায় পশ্চিম পাড়ার ফরিদ আলমের বাড়িতে গুলি এবং কোনাপাড়া ইউনুছের বাড়িতে এসে পড়ে মর্টার শেলের খোসা। এতে বাড়ির টিন ছিদ্র হয়ে খোসাটি বাড়ির ভেতরে এসে পড়ে। তবে বাড়িতে কেউ না থাকায় হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এ ঘটনার আগে থেকেই কোনারপাড়ার বাসিন্দারা বাড়িঘর ছেড়ে আত্মীয়-স্বজনের বাসায় চলে গেছেন। নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ভয়ে লোকজন ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। ঘুমধুমের তুমব্রæ এলাকার অনেকই ঘরবাড়ি ও দোকানপাট বন্ধ করে নিরাপদে সরে পড়েছে।

এদিকে রাতভর যুদ্ধের পর মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের ফাঁড়ি দখলে নিয়েছে আরাকান আর্মির যোদ্ধারা। রোববার (৪ জানুয়ারি) সকাল থেকে নাইকংছড়ি ও উখিয়ার পালংখালী সীমান্তের ওপারে থেমে থেমে গোলাগুলির শব্দ ভেসে এলো এপারে। সীমান্ত এলাকা থেকে পাওয়া খবরে জানাগেছে রবিবার রাতে সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের ৩৪ নম্বর রাইট ক্যাম্প দখলে নিতে আরাকান আর্মি হামলা চালায়। এরপর শুরু হয় দু’পক্ষের মধ্যে তীব্র লড়াই। মুহুর্মুহু গোলাগুলি ও মর্টার শেলের যুদ্ধের একপর্যায়ে রাতের আঁধারে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের ১৪ জন এবং বিকেল নাগাদ  ৬৬ জন বাংলাদেশে পালিয়ে এসে বিজিবির তুমব্রæ ফাঁড়িতে আশ্রয় নেয়।

সীমান্তের বিভিন্ন সূত্র বলছে, মিয়ানমারের রাখাইনে চলমান সংঘাতে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন জান্তা বাহিনীর প্রায় সব ক্যাম্প দখল করে নিয়েছে সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠি আরাকান আর্মি। রাতে দখল করেছে তুমব্রæ ৩৪ নম্বর রাইট ক্যাম্প।

সীমান্তের ওই এলাকায় মাত্র কয়েকটি ক্যাম্প দখলে আছে মিয়ানমার জান্তা বাহিনীর। এরমধ্যে ঢেকিবুনিয়া ক্যাম্প উল্লেখযোগ্য। এই ক্যাম্পগুলো দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে আরাকান আর্মি।

স্থানীয়রা বলছেন, এই ক্যাম্পগুলোর অবস্থান সীমান্ত ঘেঁষা। ক্যাম্পগুলোর এপারের সীমান্তে প্রচুর বাংলাদেশী জনবসতি রয়েছে। ক্যাম্পগুলো দখলের জন্য গোলাগুলি হলেই এপারের সীমান্তে চলে আসবে। হতাহতের ঘটনাও ঘটবে।

উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন জানিয়েছেন শনিবার ও রোববার সকাল থেকে সীমান্ত-সংলগ্ন এলাকায় তীব্র গোলাগুলির শব্দ শুনা যাচ্ছে।

গ্রামবাসীরা জানান, শনিবার বিকেল ও রবিবার মধ্যরাতে ওপারে কয়েক হাজার রাউন্ড গুলিবিনিময় এবং মর্টার শেল নিক্ষেপ করা হয়েছে।

এদিকে, শরণার্থী কমিশন বলছে, নতুন করে যেকোনো অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসান কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, আরও রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের আশঙ্কা রয়েছে। তবে আমাদের বর্ডার গার্ড (বিজিবি) অত্যন্ত সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির মতো রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের অ্যালায়েন্স সংগঠন আরসাও সংঘাতে জড়িয়েছিল। কিন্তু মিয়ানমার সেনা চৌকিতে অতর্কিত হামলার পর মাত্র একদিনেই পরাজয় স্বীকার করে নেয় আরসা। আর তার ফলাফল হিসাবে ৮ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে চলে আসতে বাধ্য হয়।

আরো সংবাদ