মিয়ানমারে গ্রামে গ্রামে হত্যাযজ্ঞের নতুন ঘটনা উদঘাটন - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-১২-২১ ০৭:২৮:৫৭

মিয়ানমারে গ্রামে গ্রামে হত্যাযজ্ঞের নতুন ঘটনা উদঘাটন

মিয়ানমারে গ্রামে গ্রামে হত্যাযজ্ঞের নতুন ঘটনা উদঘাটন
Spread the love
নিউজ  ডেস্ক  :   মিয়ানমারের সেনাবাহিনী গত জুলাই মাসে কয়েকটি গ্রামে ধারাবাহিক হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে, যেখানে অন্তত ৪০ জনকে নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়েছে বলে উঠে এসেছে বিবিসির এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে।
প্রত্যক্ষদর্শী এবং বেঁচে যাওয়া কয়েকজনকে উদ্ধৃত করে বিবিসি বলেছে, সেনাবাহিনীর সদস্যরা গ্রামের বাসিন্দাদের এক জায়গায় জড়ো করার পর পুরুষদের আলাদা করে ফেলে, তারপর তাদের হত্যা করা হয়। এসব ঘটনার অনুসন্ধানে যেসব ভিডিও ও ছবি মিলেছে, তাতে দেখা গেছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে হত্যা করার আগে নির্যাতন চালানো হয়। তারপর মাটিতে গর্ত খুঁড়ে পুঁতে ফেলা হয় তাদের লাশ।
বিবিসি লিখেছে, জুলাই মাসে মধ্য মিয়ানমারের সাগাইং জেলার কানি শহরের কাছে এরকম চারটি হত্যাযজ্ঞ চলে। ওই এলাকাটি বিদ্রোহীদের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। গত ফেব্রæয়ারিতে অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতার দখল নেওয়ার পর থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে বেসামরিক নাগরিকদের বিক্ষোভ ও প্রতিরোধ সামাল দিতে হচ্ছে।
বিবিসি লিখেছে, কানি এলাকার ১১ প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষাৎকার নেওয়ার পর মোবাইল ফোনে ধারণ করা ভিডিও ও ছবির সঙ্গে মিলিয়ে দেখেছে তারা।
ওই ভিডিও ও ছবিগুলো সংগ্রহ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি এনজিও, যারা মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা নিয়ে অনুসন্ধান করছে। সবচেয়ে বড় হত্যাযজ্ঞটি চালানো হয় কানি এলাকার ওইন গ্রামে। সেখানে অন্তত ১৪ জন পুরুষকে পিটিয়ে অথবা নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। পরে তাদের লাশ ফেলে দেওয়া হয়েছে জঙ্গলের ভেতরে পাহাড়ি খাদের মধ্যে।  ওই এলাকার প্রত্যক্ষদর্শীরা বিবিসিকে বলেছেন, সেনা সদস্যরা ওই লোকগুলোকে হত্যা করার আগে দড়ি দিয়ে বেঁধে পিটিয়েছে।
ওই গ্রামের এক নারীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে বিবিসি, যার ভাই, ভাতিজা এবং দেবরকে সেনা সদস্যরা হত্যা করেছে।
তিনি বলেছেন, “দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ওই দৃশ্য সহ্য করা সম্ভব ছিল না। আমরা মাথা নিচু করে রেখেছিলাম, কাঁদছিলাম। “আমরা বার বার ওদের প্রাণভিক্ষা চেয়েছি, তারা আমাদের কথা কানে তোলেনি। তারা মেয়েদের বলছিল, ‘এর মধ্যে কি তোমাদের স্বামী আছে? যদি থাকে তাহলে শেষ বিদায় নিয়ে নাও’।”
সৈন্যদের হাত থেকে পালিয়ে বেঁচে যাওয়া একজন বলেছেন, তার সাথে অন্য যাদের আটক করা হয়েছিল, ঘণ্টার পর ঘণ্টা অকথ্য নির্যাতন চালিয়ে তাদের হত্যা করা হয়েছে।
“তাদের বেঁধে রেখে পাথর ছোড়া হয়েছে, রাইফেলের কুঁদো দিয়ে মেরেছে। এই অত্যাচার চলেছে সারা দিন ধরে।” বেঁচে যাওয়া ওই ব্যক্তি বলেছেন, হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া সেনা সদস্যদের কেউ কেউ তরুণ, ১৭-১৮ বছর বয়সীরাও আছে। কেউ কেউ আবার অনেক বয়স্ক। তাদের সঙ্গে এক নারীকেও তিনি দেখেছেন।
বিবিসি লিখেছে, ইয়িন গ্রামের কাছেই জি বিন ডুইন গ্রামে জুলাইয়ের শেষ দিকে একটি গণকবরে ১২টি বিকৃত লাশ মাটি চাপা অবস্থায় পাওয়া যায়। এর মধ্যে একটি শিশু এবং এক প্রতিবন্ধী ব্যক্তির মৃতদেহও ছিল।
পাশেই একটি বরই গাছের সঙ্গে বাঁধা অবস্থায় পাওয়া ষাটোর্ধ্ব এক ব্যক্তির লাশ। বিবিসি লিখেছে, তার মৃতদেহের ভিডিও পর্যালোচনা করে নির্যাতনের স্পষ্ট চিহ্ন দেখা গেছে।  ওই বৃদ্ধের পরিবার বলেছে, সেনা সদস্যরা গ্রামে ঢোকার সময় ছেলে আর নাতিরা পালিয়ে গেলেও তিনি বাড়িতে থেকে গিয়েছিল এই আশায় যে, বয়সের কারণে হয়ত তার কোনো ক্ষতি কেউ করবে না।
বিবিসি লিথেছে, গণতন্ত্র ফেরানোর আন্দোলনে থাকা ওই এলাকার বেসামরিক মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলো সেনাবাহিনীর ওপর যে আক্রমণ চালিয়ে আসছে, তার শাস্তি হিসেবেই গ্রামে গ্রামে এই হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছে বলে ধারণা করা যায়।  জুলাইয়ের যে সময়টায় ওই হতাযজ্ঞ চালানো হয়েছে, তার আগের মাসগুলোতে জি বিন ডুইন গ্রামসহ আশপাশের এলাকায় সামরিক বাহিনীর সঙ্গে স্থানীয় মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর জোট পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের লড়াই তীব্র হয়ে উঠেছিল।
বিবিসি বলছে, তাদের সংগ্রহ করা ছবি, ভিডিও ও সাক্ষাৎকার থেকে এটা স্পষ্ট যে, মূলত পুরুষদের নিশানা করেই এসব হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছে, যেমনটা সা¤প্রতিক মাসগুলোতে মিয়ানমারের অন্যান্য এলাকাতেও দেখা গেছে। সেনাবাহিনী এবং পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের মধ্যে সংঘাতের জেরে শস্তি হিসেবে হত্যা করা হয়েছে স্থানীয় পুরুষদের।
নিহতদের স্বজনদের দাবি, সেনাবাহিনীর ওপর হামলার সঙ্গে তারা কোনোভাবে জড়িত ছিলেন না। ইউনিয়ন গ্রামের হত্যাযজ্ঞে ভাইকে হারানো এক নারী বলেছেন, সেনা সদস্যদের কাছে তিনি মিনতি করে বলেছিলেন যে তার ভাই ‘গুলতি পর্যন্ত ছুড়তে পারে না’। এক সৈনিক তখন উত্তর দেয়: “একটা কথাও না, আমরা ক্লান্ত, এক্কেবারে মেরে ফেলব।”
ফেব্রুয়ারির সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে বিদেশি সাংবাদিকদের মিয়ানমারে কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। বেশিরভাগ বেসরকারি সংবাদমাধ্যম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফলে একেবারে মাঠে থেকে খবর সংগ্রহ করা এক কথায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
বিবিসি লিখেছে, হত্যাযজ্ঞের এসব অভিযোগের বিষয়ে মিয়ানমারের তথ্য উপমন্ত্রী এবং সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র জেনারেল জাও মিন তুনের প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়েছিল তারা। তিনি সেনাবাহিনীর হত্যাযজ্ঞের বিষয়টি অস্বীকার করেননি।
তিনি বলেন, “এটা হতে পারে। যখন তারা আমাদের সঙ্গে শত্রুর মত আচরণ করে, আত্মরক্ষা করার অধিকার আমাদেরও আছে।”

আরো সংবাদ