মুসলমানকে হিন্দু বানিয়ে চাকরি দিতেন তিনি! - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-২০ ০৬:৩৩:২৭

মুসলমানকে হিন্দু বানিয়ে চাকরি দিতেন তিনি!

মুসলমানকে হিন্দু বানিয়ে চাকরি দিতেন তিনি!
Spread the love

নিউজ ডেস্ক : আব্দুল মালেক। ২০০৪ সালে রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে চাকরি পাওয়ার পর উত্থান শুরু হয় তার। এরপর থেকে চাকরি দেওয়ার নামে প্রার্থীদের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন নিজ এলাকায় ‘দানবীর’ নামে পরিচিত এই প্রতারক।নাম-ঠিকানা পরিবর্তন করে মুসলমানকে হিন্দু বানিয়ে চাকরি দিতেন তিনি। নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের সিল ও প্যাড জাল করে ডিজিটাল জালিয়াতির মাধ্যমে নাম, ঠিকানা, ছবি পরিবর্তন ও ভুয়া এনআইডি তৈরি করে বিভিন্ন সংস্থায় কিছু লোককে চাকরিও দিয়েছেন তিনি। চাকরি দেওয়ার নামে দলিল জমা রেখে জমি দখল করতেন। অনিয়মের অভিযোগে ২০১৫ সালে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর তাকে বরখাস্ত করার পর সরকরি চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ‘এম ভিশন’ নামে কোচিং সেন্টার চালু করে চাকরিপ্রার্থী সংগ্রহ করতেন আব্দুল মালেক। ১৫ বছর ধরে এ ধরনের প্রতারণা করে এখন তিনি প্রায় ৫০ কোটি টাকার সম্পদের মালিক।
র‌্যাব-৪-এর কমান্ডিং অফিসার মো. মোজাম্মেল হক বলেন, বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করেন এই মালেক। সনদপত্র জাল করে অনেককেই চাকরি দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট অফিসের কেরানিদের সঙ্গে তার সম্পর্ক আছে। মালেক তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তিনি নিজেই ভেরিফিকেশন পজিটিভ করে দেন। যাদেরকে চাকরি দিতে পারতেন না, তাদের টাকা মেরে দেন। এভাবে তিনি বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন। গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ায় মালেকের মার্কেট, পরিবহন ব্যবসাসহ বিপুল সহায়-সম্পদ দেখে প্রলুব্ধ হন চাকরিপ্রার্থীরা। ভালো চাকরির লোভে সরল বিশ্বাসে মালেককে ৫ থেকে ১৩ লাখ টাকা পর্যন্ত দেন তারা। তবে অধিকাংশই চাকরি না পেয়ে উল্টো হয়রানির শিকার হন। এক ভুক্তভোগী জানান, ১৫ লাখ টাকা দেওয়ার কথা। আমি তাকে ১৩ লাখ টাকা দিয়েছি। আরেক অভিভাবক বলেন, ছেলে পরীক্ষা দেয় কিন্তু চাকরি হয় না। এমন একটা সময়ে তার কাছ থেকে যখন টাকা ফেরত চাই, তখন সে মিথ্যা মামলা করে। রাজধানীর তেজগাঁও এলাকায় নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তারের পর মালেকের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ জাল কাগজপত্র, ভুয়া সনদ ও সিল উদ্ধার করেছে র‌্যাব। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মচারী এই চক্রের সঙ্গে জড়িত বলে জানিয়েছে র‌্যাব। কমান্ডিং অফিসার আরও জানান, প্রতারক মালেকের প্রধান তিন সহযোগী তার ভাই আব্দুর রাজ্জাক, আল আমিন ও অবিনাশসহ চক্রের বাকি সদস্যদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানায় র‌্যাব। সূত্র-সময় সংবাদ।

আরো সংবাদ