মেয়াদোত্তীর্ণ হতে যাওয়া ভ্যাকসিন পাঠানো হচ্ছে গরিব দেশে - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০১-১৪ ১৩:০২:২৮

মেয়াদোত্তীর্ণ হতে যাওয়া ভ্যাকসিন পাঠানো হচ্ছে গরিব দেশে

বিশ্বের বিভিন্ন গরিব দেশে মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে যাওয়া করোনার ভ্যাকসিন পাঠানো হচ্ছে। জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা (ইউনিসেফ) এ দাবি করেছে। সাধারণত কোভ্যাক্সের আওতায় ভ্যাকসিনগুলো পেয়ে থাকে দরিদ্র দেশগুলো। এটি তদারকি করে ইউনিসেফ। সংস্থাটি বলছে, কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে সেসব দেশের জন্য বিপুল পরিমাণ টিকা মজুত করা হয়েছিল। কিন্তু এ মুহূর্তে বেশিরভাগেরই মেয়াদ প্রায় উত্তীর্ণ। তবু তা পাঠানো হচ্ছে। সম্প্রতি এর প্রমাণও মিলেছে। গত ডিসেম্বরে গরিব দেশগুলোর জন্য প্রায় ১০ কোটি টিকা পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সেগুলোর মেয়াদ প্রায় উত্তীর্ণ হওয়ায় ফিরিয়ে দিয়েছে তারা। বিদায়ী মাসের শেষদিকে নাইজেরিয়ায় ১০ লাখের বেশি আস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠানো হয়। তবে সেগুলোর মেয়াদ শেষ হওয়ায় ফিরিয়ে দেয় দেশটি। ইউনিসেফের সরবরাহ বিভাগের পরিচালক এতলোভা কাদিলি বিষয়টি স্বীকার করেন। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ডেভেলপ কমিটির বৈঠকে তিনি বলেন, ‘এর নজির আমরা পেয়েছি। শুধু ডিসেম্বরেই ১০ কোটির বেশি টিকা প্রত্যাখ্যান করে গরিব দেশগুলো। কারণ, সেগুলোর মেয়াদ প্রায় শেষ হতে চলেছে।’ একপর্যায়ে তিনি বলেন, ভ্যাকসিন রাখার জন্য পর্যাপ্ত স্টোরেজের ব্যবস্থা নেই সেসব দেশে। আগে এর ব্যবস্থা করা দরকার ছিল। তবে তার দাবিও নাকচ করে দিয়েছে ভুক্তভোগী দেশগুলো। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তারা বলছে, বিশ্বের ধনী দেশগুলো প্রয়োজনের অতিরিক্ত টিকা মজুত করে রেখেছে। নিজেদের ব্যবহারের পর অতিরিক্তি ভ্যাকসিন গরিব দেশগুলোর জন্য অনুদান হিসেবে দিচ্ছে তারা। যেগুলোর মেয়াদ নষ্ট হয়ে গেছে। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রেও একই ধরনের ঘটনা দেথা যায়। ভ্যাকসিনের মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ায় প্রায় কয়েক লাখ টিকা নষ্ট করে দেশটি। ওই সময় ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য ধুঁকছিল দরিদ্র দেশগুলো। সেই পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রশাসন তা ধ্বংস করায় বিশ্বজুড়ে আলোচনার ঝড় ওঠে।
শেয়ার করুন

নিউজ  ডেস্ক :  বিশ্বের বিভিন্ন গরিব দেশে মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে যাওয়া করোনার ভ্যাকসিন পাঠানো হচ্ছে। জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা (ইউনিসেফ) এ দাবি করেছে।

সাধারণত কোভ্যাক্সের আওতায় ভ্যাকসিনগুলো পেয়ে থাকে দরিদ্র দেশগুলো। এটি তদারকি করে ইউনিসেফ।

সংস্থাটি বলছে, কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে সেসব দেশের জন্য বিপুল পরিমাণ টিকা মজুত করা হয়েছিল। কিন্তু এ মুহূর্তে বেশিরভাগেরই মেয়াদ প্রায় উত্তীর্ণ। তবু তা পাঠানো হচ্ছে।

সম্প্রতি এর প্রমাণও মিলেছে। গত ডিসেম্বরে গরিব দেশগুলোর জন্য প্রায় ১০ কোটি টিকা পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সেগুলোর মেয়াদ প্রায় উত্তীর্ণ হওয়ায় ফিরিয়ে দিয়েছে তারা।

বিদায়ী মাসের শেষদিকে নাইজেরিয়ায় ১০ লাখের বেশি আস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠানো হয়। তবে সেগুলোর মেয়াদ শেষ হওয়ায় ফিরিয়ে দেয় দেশটি।

ইউনিসেফের সরবরাহ বিভাগের পরিচালক এতলোভা কাদিলি বিষয়টি স্বীকার করেন। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ডেভেলপ কমিটির বৈঠকে তিনি বলেন, ‘এর নজির আমরা পেয়েছি। শুধু ডিসেম্বরেই ১০ কোটির বেশি টিকা প্রত্যাখ্যান করে গরিব দেশগুলো। কারণ, সেগুলোর মেয়াদ প্রায় শেষ হতে চলেছে।’

একপর্যায়ে তিনি বলেন, ভ্যাকসিন রাখার জন্য পর্যাপ্ত স্টোরেজের ব্যবস্থা নেই সেসব দেশে। আগে এর ব্যবস্থা করা দরকার ছিল।  তবে তার দাবিও নাকচ করে দিয়েছে ভুক্তভোগী দেশগুলো।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তারা বলছে, বিশ্বের ধনী দেশগুলো প্রয়োজনের অতিরিক্ত টিকা মজুত করে রেখেছে। নিজেদের ব্যবহারের পর অতিরিক্তি ভ্যাকসিন গরিব দেশগুলোর জন্য অনুদান হিসেবে দিচ্ছে তারা। যেগুলোর মেয়াদ নষ্ট হয়ে গেছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রেও একই ধরনের ঘটনা দেথা যায়। ভ্যাকসিনের মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ায় প্রায় কয়েক লাখ টিকা নষ্ট করে দেশটি।

ওই সময় ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য ধুঁকছিল দরিদ্র দেশগুলো। সেই পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রশাসন তা ধ্বংস করায় বিশ্বজুড়ে আলোচনার ঝড় ওঠে। সূত্র- চ্যানেল ২৪


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ