মোখার প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা নেই-ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-১৪ ১৪:৩৭:৩৪

মোখার প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা নেই-ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

মোখার প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা নেই-ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক :  অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখা বাংলাদেশের উপকূলভাগ অতিক্রমকালে সমুদ্রে ভাটা চলায় জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী। রোববার দুপুরে সচিবালয়ে তার নিজ দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোখার অগ্রভাগ সকাল ছয়টা থেকে কক্সবাজার, টেকনাফ, সেন্টমার্টিন ও মিয়ানমারের সিটুয়ে উপকূল অতিক্রম শুরু করেছে। এখন ঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬৮ কিমি। এনামুর রহমান বলেন, সকাল থেকে ভাটা শুরু হয়েছে। তাই জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা নেই।

সংবাদ সম্মেলনে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত ঝড়টি বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের উপকূল অতিক্রম করছে। তবে কেন্দ্রের ৭৮ কিলোমিটারের মধ্যে ঝড়ের গতিবেগ এখনো ২০০ থেকে ২১৫ কিমি। এ গতিবেগে কেন্দ্রটি উপকূল অতিক্রম করলে বেশ কিছুটা ক্ষয়ক্ষতি হবে।

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলার প্রস্তুতি নিয়ে এনামুর রহমান বলেন, সরকার সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। সেন্টমার্টিনে ৩৭টি আশ্রয়কেন্দ্রে সাড়ে আট হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া কক্সবাজারে ৫৭৬টি কেন্দ্রে দুই লাখের বেশি, চট্টগ্রামে এক হাজার ২৪ আশ্রয়কেন্দ্রে পাঁচ লাখ মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

শনিবার ‘সুপার সাইক্লোন’ বলে পরে কেন পরিবর্তন করা হলো—এমন প্রশ্নের জবাবে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, তখন পূর্বাভাস দেখে ‘সুপার সাইক্লোন’ বলা হয়েছিল। পরে বাতাসের গতিবেগ দেখে তা প্রত্যাহার করা হয়। ‘সুপার সাইক্লোন’ হলে তখন বাতাসের গতিবেগ থাকে ২২০ কিলোমিটারের মধ্যে, সেটা হয়নি।

আরো সংবাদ