» মৌলভী আনোয়ারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ মৌলভী আনোয়ারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ | কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩ ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৩-২৮ ০৯:২৬:০৭

মৌলভী আনোয়ারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ

মৌলভী আনোয়ারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ

বার্তা পরিবেশক : ব্যবসায় লভ্যাংশ প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা নিয়ে প্রতারণা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে মৌলভী আনোয়ার হোছাইন নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। তিনি নিজেকে কখনো ব্যবসায়ী, কখনো কক্সবাজার পৌর ইমাম-মুয়াজ্জিম কল্যাণ সমিতির সভাপতি কিংবা কক্সবাজার পৌর বাস টার্মিনাল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব পরিচয়ে প্রতারণা করে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঈদগাওঁ পাঁহাশিয়াখালীর বাসিন্দা মুহাম্মদ আফছার কামাল নামে একজন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের কাছ থেকে ব্যবসার নামে টাকা নিয়ে তা আর ফেরত না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এব্যাপারে ভুক্তভোগী ৩০ দিনের মধ্যে পাওনা ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা পরিশোধের সময় সীমা বেঁধে দিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে উকিল নোটিশ প্রেরন করেন ৯ ফেব্রæয়ারী ২০২৩ ইং তারিখ যা কিনা অভিযুক্ত ব্যক্তি গ্রহণ করেন ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ইং তারিখ।

টাকা পরিশোধ সময়কাল ৭ মার্চ ২০২৩ ইং তারিখ পূর্ন হলেও এখনও পর্যন্ত তিনি দেনা পরিশোধের ব্যাপারে কার্যকর ও বিশ্বাসযোগ্য কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি বলে ভুক্তভোগী জানান এবং তা আমলে না নিয়ে বীরদর্পে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মাসের পর মাস। মৌলভী আনোয়ার বিগত ১১ মাসে পঞ্চাশ বারের অধিক টাকা পরিশোধের প্রতিশ্রæতি দিয়েও তা রক্ষা করেননি। বর্তমানে পাওনাদার টাকা ফেরত চাইলে তিনি পাওনাদারকে উল্টো হুমকিসহ নানা ধরনের আপত্তিকর আচরণ করেন বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য যে, মুহাম্মদ আফছার কামাল বিগত ২০২২ সালের পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের ছুটিতে নিজ এলাকা কক্সবাজারে বেড়াতে গেলে দীর্ঘদিন পর মৌলভী আনোয়ার সাথে সাক্ষাৎ লাভ করেন এবং উক্ত সাক্ষাতে মৌলভী আনোয়ার “মেসার্স গাউছিয়া ট্রেডিং” নামীয় তার একক মালিকানাধীন একটি সিলিন্ডার গ্যাস বিক্রয় ও বিপণন জাতীয় প্রতিষ্ঠানে ৫০% লভ্যাংশে বিনিয়োগের প্রস্তাব প্রদান করেন আফছার কামালকে। মৌলভী আনোয়ারের সামাজিক অবস্থানের উপর অগাধ আস্থা রেখে এবং পূর্ব পরিচিত হওয়ার সুবাদে মুহাম্মদ আফছার কামাল ব্যবসায়ে বিনিয়োগের সম্মতি প্রকাশ করেন।

এর ধারাবাহিকতায় মাওলানা আনোয়ার মৌখিক প্রতিশ্রুতি দিয়ে মুহাম্মদ আফছার কামালের ঢাকাস্থ অফিসে গিয়ে প্রথম দফায় ১১ মে ২০২২ ইং তারিখে ৫০ হাজার টাকা নগদ গ্রহণ করেন। একই বছরের ২৪ মে ও ২৬ মে দুই দফায় ৫০ হাজার করে আরও ১ লাখ টাকা ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে গ্রহণ করেন এবং এই টাকা বুঝে পেয়েছেন বলে ফোন কল ও হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজে নিশ্চত করেন। পরবর্তীতে আরও ১০ হাজার টাকা অন্য একজনের বিকাশ নম্বরের মাধমে গ্রহণ করেন বলে তিনি স্বীকার করেছেন। এভাবে মোট ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা আনোয়ার হস্তগত করেন।

উপরোক্ত লেনদেনের দুই সপ্তাহ গত না হতেই মৌলভী আনোয়ার আফছার কামালকে আরও বাড়তি টাকা বিনিয়োগের জন্য উপর্যপুরি অনুরোধ ও চাপ দিতে থাকেন। এমতাবস্থায় আনোয়ারের সার্বিক কর্মকান্ডে ও পূর্বেকার সমূহ প্রতিশ্রুতি ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হওয়ায় আফছার কামাল তার সাথে বাণিজ্যিক অংশীদারিত্ব চালিয়ে নেওয়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে আফছার কামাল ব্যবসায় কৃত বিনিয়োগ বাতিল করত তৎকর্তৃক প্রদত্ত সমুহ অর্থ যার সমষ্টি ১ লাখ ষাট হাজার টাকা মুনাফা ব্যতিরেকে ফেরত প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন এবং মাওলানা আনোয়ার তা মেনে নিয়ে টাকা ফেরতদানের প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু অদ্যবধি উক্ত টাকা ফেরত না দিয়ে নানা চলচাতুরির আশ্রয় নিয়ে কালক্ষেপন করে যাচ্ছেন। বর্তমানে ভুক্তভোগী কোর্টে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আনোয়ার এভাবে নানা কৌশল ও প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে নানাজনের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। তার সামাজিক পরিচিতি ও স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজনের আশেপাশে থেকে এরূপ কর্মকান্ড নিয়মিত চালিয়ে যাচ্ছেন এবং পরিচিতিকে প্রতারণার ঢাল হিসাবে ব্যবহার করছেন। এ বিষয়ে জানতে মৌলভী আনোয়ার হোছাইনকে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য দেয়া সম্ভব হয়নি।

আরো সংবাদ