রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন খাতে মন্দাভাব - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-১১-০৩ ১২:৫৩:০৮

রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন খাতে মন্দাভাব

প্রস্তুত পর্যটন রাজধানী : ৩ লাখ পর্যটকের সম্ভাবনা

নিজস্ব প্রতিবেদক :  রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন মৌসুমের শুরুতে কক্সবাজারের পর্যটন খাতে মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। পর্যটন ব্যবসায়ীদের দাবি, গেল এক সপ্তাহে কক্সবাজারের পর্যটনের সবখাতে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।

শুক্রবার (৩ নভেম্বর) বিকালে সরেজমিন সৈকতের লাবণী পয়েন্টে গিয়ে দেখা যায়, পর্যটক শূন্য কক্সবাজার সৈকত। চারদিকে নীরবতা। সৈকত পাড়ের বালিয়াড়িতে পড়ে আছে কিটকটগুলো।

পর্যটন ব্যবসায়ীরা বলছেন, অক্টোবর মাস থেকে শুরু হয় পর্যটন মৌসুম। এসময় লাখো পর্যটকের পদচারণায় মুখরিত থাকে সাগরপাড়। কিন্তু পর্যটন মৌসুমের শুরুতেই রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে পর্যটক শূন্য হয়ে পড়েছে কক্সবাজার। যার কারণে বিপাকে সৈকতপাড়ের ফটোগ্রাফার, বীচ বাইক, ওয়াটার বাইক, ঘোড়াওয়ালা ও কিটকট ব্যবসায়ীরা।

ফটোগ্রাফার কাশেম বলেন, এবার পর্যটন মৌসুমে ভালো ব্যবসা হবে আশা করেছিলাম। কিন্তু এখন দেখি ভরা মৌসুমে পর্যটক শূন্য হয়ে পড়েছে। গেল ৬ দিন সৈকতে আসছি আর যাচ্ছি কোন আয় হচ্ছে না। কারণ রাজনৈতিক অস্থিরতায় সৈকতে এখন প্রায় পর্যটক শূন্য।

ছাতা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন দুলাল বলেন, ছাতা মার্কেটে ২০০ মতো দোকান রয়েছে। এসব দোকানে প্রতিনিধি ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকার বার্মিজ পণ্য বেচাবিক্রি হতো। কিন্তু এখন বেচাবিক্রি একদম নেই বললেই চলে। রাজনৈতিক অস্থিরতার কারনে পর্যটক না থাকায় ব্যবসা হচ্ছে না।

এছাড়াও কক্সবাজারে রয়েছে পাঁচ শতাধিক হোটেল মোটেল রিসোর্ট গেস্ট হাউস ও কটেজ। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, এসব প্রতিষ্ঠানে পর্যটক না থাকায় নেমে এসেছে নীরবতা। আর রাজনৈতিক এ অস্থিরতায় কক্সবাজারের পর্যটনখাতে প্রতিদিন শতকোটি টাকার লোকসান হচ্ছে।

কক্সবাজার হোটেল মোটেল গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সেলিম নেওয়াজ বলেন, পর্যটন মৌসুমের শুরুতেই বিএনপি-জামাতের ডাকা হরতাল ও অবরোধের কারণে কক্সবাজারের পর্যটনখাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ায় কক্সবাজার এখন প্রায় পর্যটক শূন্য। ফলে কক্সবাজারের পর্যটনের সবখাতে প্রতিদিন ৮০ থেকে ১০০ কোটি টাকার লোকসান হচ্ছে।

এদিকে, রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন মৌসুমে কক্সবাজার এখন কেবল হাহাকার নীরবতা। হোটেল-মোটেল জোনে হাজার হাজার কর্মকর্তা কর্মচারীর এরকম পরিস্থিতিতে বেতন-ভাতা তোলা কঠিন হবে বলে জানিয়েছেন হোটেল কর্তৃপক্ষ।

আরো সংবাদ