রোহিঙ্গাদের প্রভাবে অনিরাপদ হয়ে উঠেছে কক্সবাজার - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০১-২৪ ১৩:০২:৪৭

রোহিঙ্গাদের প্রভাবে অনিরাপদ হয়ে উঠেছে কক্সবাজার

রোহিঙ্গাদের প্রভাবে অনিরাপদ হয়ে উঠেছে কক্সবাজার

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের কারনে দিন দিন অনিরাপদ হয়ে উঠছে পর্যটন শহর কক্সবাজার। প্রতিনিয়ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ঘটছে হত্যা, অপহরণ, ধর্ষণ, চুরি, ডাকাতি, হামলা-মারামারির মতো ঘটনা। ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে অপরাধীরা। ক্যাম্পের কাঁটাতারের বেড়া কেটে বের হয়ে কক্সবাজারে বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। তার মধ্যে অনেকে পর্যটন এলাকায় চুরি, ছিনতাই, অপহরণসহ নানা অপরাধে জড়াচ্ছে।

গত ১৪ জানুয়ারি শহরের একটি আবাসিক হোটেলে এক রোহিঙ্গা যুবতীর বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। সে অনুষ্ঠানে শতাধিক রোহিঙ্গা যোগ দেয়। এ ঘটনাটি বেশ আলোচনার জন্ম দেয়। এর আগে, গত ২৯ ডিসেম্বর সৈকতের লাবণী পয়েন্টে একদল পর্যটকের সব কিছু ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যাওয়া তরুণরাও ছিল রোহিঙ্গা।

ক্যাম্প ছেড়ে রোহিঙ্গাদের কক্সবাজার শহর ও আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি স্বীকারও করেছে ক্যাম্প নিয়োজিত এপিবিএন। এদিকে, এপিবিএনের একাধিক চেকপোস্ট থাকার পরও রোহিঙ্গাদের নির্বিঘেœ বের হওয়ার বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে সংশ্লিষ্টদেরকে।

কক্সবাজার শহরে রোহিঙ্গা কিশোর ও যুবকদের উল্লেখযোগ্য উপস্থিতির কথা স্বীকার করে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, যে কোনো ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রস্তুত তারা। জেলা পুলিশের দেয়া তথ্যমতে, চুরি, ডাকাতি, ধর্ষণ, অস্ত্র, মাদক এবং খুনসহ ১১ অপরাধের ঘটনায় গেল চার মাসে ৫৯১টি মামলা দায়ের করা হয়েছে রোহিঙ্গা অপরাধীদের বিরুদ্ধে। যেখানে আসামি করা হয়েছে ১ হাজার ৭৬২ জনকে। এর মধ্যে ২৬২টি মাদক সংক্রান্ত মামলা। হত্যা মামলা রয়েছে ৫৫টি।

তথ্যমতে, গত ১৪ জানুয়ারি কলাতলীর হোটেল-মোটেল জোনের একটি অভিজাত ফ্ল্যাটে রোহিঙ্গা তরুণীর বিয়ের আয়োজন হচ্ছিল। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬৫ রোহিঙ্গাকে আটক করে ক্যাম্পে ফেরত পাঠিয়েছে। এর মধ্যে ১৯ জন বিদেশি পাসপোর্টধারী।

এদিকে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে রোহিঙ্গারা কীভাবে ক্যাম্প থেকে বের হয়ে কক্সবাজার শহরে পৌঁছল তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। গেল ৩১ ডিসেম্বর কক্সবাজারের কলাতলীর ডিসি পাহাড় সংলগ্ন আদর্শগ্রামের একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে বোমা তৈরির ৪ দশমিক ৯ কেজি বিস্ফোরকদ্রব্য, ১৫টি ককটেল, আইইডি তৈরির সরঞ্জাম, ১ দশমিক ৫ কেজি পারদ উদ্ধার করা হয়। এ সময় আরসার লজিস্টিক শাখার প্রধান হাফেজ রহমত উল্লাহসহ তিন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

২৯ ডিসেম্বর ভোরে ট্যুরিস্ট পুলিশ কার্যালয়ের মাত্র ৫০০ ফুট দূরত্বে পাঁচ পর্যটক ছিনতাইয়ের শিকার হন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার তিন জনই রোহিঙ্গা তরুণ এমনটি জানিয়েছেন ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত ডিআইজি আপেল মাহমুদ।

উখিয়ার রোহিঙ্গা অধ্যুষিত পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, কোথাও কোনো নিরাপত্তা নেই। রোহিঙ্গারা ইচ্ছেমতো ক্যাম্প থেকে বের হচ্ছে। তাদের কারণে আতঙ্কে স্থানীয়রা। রোহিঙ্গা অপরাধীরা ক্যাম্পের ভেতরে অপরাধ করে মিয়ানমারে কিংবা আমাদের গ্রামে-শহরে আত্মগোপন করে। আবার কক্সবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে অপরাধ করে ক্যাম্পে গা ঢাকা দেয়। ফলে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা কঠিন হয়ে পড়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, ক্যাম্পের নিরাপত্তায় নিয়োজিত এপিবিএনের চোখ কীভাবে ফাঁকি দিচ্ছে রোহিঙ্গারা!

ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গারা ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি স্বীকার করে ৮ এপিবিএনের অতিরিক্ত ডিআইজি আমীর জাফর বলেন, কিছু কিছু স্থানে রোহিঙ্গারা ক্যাম্পের কাঁটাতারের বেড়া কেটে ও সুড়ঙ্গ করে শহরে ছড়িয়ে পড়ছে। অনেক অপরাধী গ্রেফতার এড়াতে ক্যাম্প থেকে বের হয়ে মিয়ানমারে আত্মগোপন করতে পারে। ক্যাম্পগুলো পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় সহজে নিয়ন্ত্রণ কষ্টকর হয়ে পড়ে। তারপরও আমাদের প্রচেষ্টা চলমান। ১৪ এপিবিএন-র অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ ইকবাল বলেন, ‘আমাদের প্রচেষ্টার মাঝেও অনেক রোহিঙ্গা চোখ ফাঁকি দিয়ে পালাচ্ছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম বলেন, চুরি, ডাকাতি, ধর্ষণ, অস্ত্র, মাদক এবং খুনসহ এমন কোনো অপরাধ নেই যা করছে না রোহিঙ্গারা। গত চার মাসে ১১ ধরনের অপরাধের ঘটনায় ৫৯১টি মামলা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবগত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক শাহীন ইমরান বলেন, নানা কারণে রোহিঙ্গা এখন আন্তর্জাতিক ইস্যু। প্রত্যাবাসন ছাড়া রোহিঙ্গা নিয়ে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান কঠিন হয়ে পড়েছে।

আরো সংবাদ